কালিগঞ্জে আ.লীগ নেতার ইন্ধনে প্রতিবন্ধীর দোকানে হামলা ও লুটপাটের অভিযোগে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন


368 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জে আ.লীগ নেতার ইন্ধনে প্রতিবন্ধীর দোকানে হামলা ও লুটপাটের অভিযোগে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন
জানুয়ারি ২, ২০১৬ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরার কালিগঞ্জে আওয়ামী লীগ নেতার ইন্ধনে অহেদ আলী নামে এক এসিড আক্রান্ত প্রতিবন্ধীর দোকানে হামলা ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার প্রতিকার দাবি করে শনিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন অসহায় প্রতিবন্ধী অহেদ আলী।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে কালিগঞ্জের ভাড়াসিমলার মারকা এলাকার বৃদ্ধ প্রতিবন্ধী অহেদ আলী বলেন, তিনি জেলা প্রশাসন ও এসিড সারভাইভার ফাউন্ডেশনের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা অনুদান পেয়ে সাড়ে তিন বছর আগে জীবিকা অর্জনের তাগিদে কালিগঞ্জ উপজেলা সদরের কাকশিয়ালী উত্তর বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন মন্টু হাজীর পেট্রোল পাম্পের সামনে একটি ছোট স্টল দেন।

সেখানেই তিনি চা, পান, বিড়ি, সিগারেট বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। শুরুতেই স্টলের জায়গা নিজেদের দাবি করায় স্থানীয় কালিতলা দুর্গাপূজা মন্দিরকে বছরে ৬শ টাকা করে দিয়ে আসছিলেন তিনি।

কিন্তু ২০১৫ সালের ২৪ নভেম্বর সড়ক বিভাগ থেকে ওই দোকান সরিয়ে নেওয়ার জন্য বলা হয়। ঘটনাটি মন্দির কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে আমি আর কোন টাকা দিতে পারবো না বললে মন্দির কমিটির সভাপতি-সম্পাদকসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ক্ষিপ্ত হন।

এরই প্রেক্ষিতে তারা আমার দোকানে তালা ঝুলিয়ে দেয়। বিষয়টি জানালে পুলিশ বেশি টাকা দিয়ে মন্দির কমিটির সাথে মিমাংসা করতে বলে। এরপর ২০১৫ সালের ১০ ডিসেম্বর তারালি ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হোসেন ছোট মন্দিরের সভাপতি দীপঙ্করের উপস্থিতিতে আমাকে বছরে দুই হাজার টাকা করে চুক্তিতে দোকান চালাতে বলে।

তাদের কথামত টাকা না দিলে দোকান উচ্ছেদের হুমকি দেয়। এরই প্রেক্ষিতে গত ১৯ ডিসেম্বর ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা এনামুল হোসেন ছোট, ইউপি সদস্য নূর মোহাম্মদ, গ্রাম পুলিশ আবুল কাসেম, মন্দিরের সভাপতি দীপঙ্কর, সম্পাদক প্রদীপ ঘোষসহ অন্যান্যরা আমার দোকানে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে ও লুটপাট করে।
এ ঘটনার পর আমি নিরাপত্তাহীনতায় অভুক্ত জীবন-যাপন করছি।
সংবাদ সম্মেলনে এ ঘটনার প্রতিকার দাবি করে জীবন-জীবিকা অর্জনের সুবিধার্থে দোকান চালানোর ব্যবস্থা করতে জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।