কালিগঞ্জে গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়নে কাবিখা প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করলেন জেলা প্রশাসক


151 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জে গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়নে কাবিখা প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করলেন জেলা প্রশাসক
জুলাই ১, ২০২০ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::

কালিগঞ্জ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়নে সরকারী বরাদ্দকৃত কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা) প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করলেন সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস,এম মোস্তফা কামাল। ১ জুলাই বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় কালিগঞ্জ উপজেলার নলতা ইউনিয়নের নলতা শরীফ পলিটেকনিক্যাল মাটি ভরাট কাজ, (৮০ মেট্রিকটন) পুকুরে বালি মাটি ফেলে ভরাট কাজ পরিদর্শন এবং পরে মথুরেশপুর ইউনিয়নের খাজা বাড়িয়া নবাব কারিকরের বাড়ি হতে আনসার কারিকরের বাড়ি অভিমুখে রাস্তা সংস্কার, (৭ মেট্রিকটন) রতনপুর ইউনিয়নে মলেংগা আবু হাসানের বাড়ির পাশ হতে রফিক বেলের বাড়ির অভিমুখে রাস্তা সংস্কার (৬ মেট্রিক টন) কাজ পরিদর্শন করেন সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস,এম মোস্তফা কামাল। এসময় উপস্থিত ছিলেন কালিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মোজাম্মেল হক রাসেল, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি মোঃ সিফাত উদ্দীন, নলতা প্রকল্প কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছাত্র নেতা ফিরোজ হোসেন, মথুরেশপুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান গাইন, রতনপুর চেয়ারম্যান আশরাফুল হোসেন খোকন, সাংবাদিক বৃন্দ, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও প্রকল্প কমিটির ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। জেলা প্রশাসক এস,এম, মোস্তফা কামাল প্রচন্ড রোদে ছাতা মাথায় দিয়ে কালিগঞ্জ উপজেলার তৃনমুল পর্যায়ের ইউনিয়নে কাবিখা প্রকল্পের কাজ সঠিক ভাবে হয়েছে কি না তা পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেন। উল্লেখ্য কালিগঞ্জ উপজেলা ১নং বিষ্ণুপুর ইউনিয়ন, ৪নং দক্ষিন শ্রীপুর ইউনিয়ন, ৩নং চাম্পাফুল ইউনিয়ন, ৬নং নলতা ইউনিয়ন, ৭নং তারালী ইউনিয়ন, ৯নং মথুরেশপুর ইউনিয়ন, ১০ নং ধলবাড়িয়া ইউনিয়ন, ১১নং রতনপুর ইউনিয়ন ও ১২নং মৌতলা ইউনিয়ন কাবিখা প্রকল্পের গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন সরকারী বরাদ্দকৃত প্রকল্প কাজের প্রায় ৪০টন গম সাতক্ষীরা ডিবি পুলিশ আলীপুর চেক পোষ্ট এলাকা থেকে ৩২৬ বস্তা ১৯ মেট্রিক টন ৫৬০ কেজি গম ও পাটকেল ঘাটা মুকুন্দ ফ্লোয়ার এন্ড ডাল মিল থেকে ৩২৯ বস্তা ১৯ মেট্রিক টন ৭৪০ কেজি গম উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত গমের মুল্য ১২ লাখ ১৮ হাজার ৩০০ টাকা বলে জানা যায়। এ ঘটনায় পুলিশ তারালী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের সদ্য শহিদুল ইসলাম, চাম্পাফুল ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুল গণি, ট্রাক চালক লিয়াকত সরদার, নলতা শরীফ এলাকার মৃত কামরুল হুদার ছেলে আব্দুল খালেক ঘোরামী, ৪ জন কে গ্রেপ্তার করে ৫৪ ধারায় কারাগারে প্রেরণ করেছে। অন্য আসামীরা পালিয়ে রয়েছে। আটকের পর খুলনা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে দুদক খুলনা কার্যালয়ের উপ সহকারী পরিচালক নীল কমল পাল বাদী হয়ে ৬জন কে আসামী করে গত শনিবার একটি মামলা দায়ের করেন মামলা নং-১৪, তারিখ-২৭-০৬-২০২০। ইতিপূর্বে ঐ মামলার ৪জন কে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। মামলার প্রাথমিক ভাবে প্রকল্প কর্মকর্তা জনপ্রতিনিধি ব্যবসায়ী ও ক্রেতা সহ ৬জন কে অন্তর্ভূক্ত করে মামলা করেছে। আটকের পর থেকে জেলা প্রশাসকের আগে উক্ত প্রকল্প এলাকায় কাজ সঠিক ভাবে হয়েছে কি না তা পরিদর্শন করেন সাতক্ষীরা জেলা ত্রান পূর্নবাসন কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল বাশেদ, কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মোজাম্মেল হক রাসেল, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি সিফাত উদ্দীন, সাতক্ষীরা ডিবি পুলিশ সহ কালিগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ এর পক্ষে পুলিশ অফিসার প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেন।

#