কালিগঞ্জে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে প্রথমদিনে বর্নাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভা


283 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে প্রথমদিনে বর্নাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভা
নভেম্বর ২৫, ২০২০ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::

“নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে ১৬ দিনব্যাপী কর্মসূচী” হচ্ছে নারীর প্রতি সকল প্রকার সহিংসতা দূরীকরনের একটি বাৎসরিক আন্তর্জাতিক প্রচারাভিযান, যা প্রতিবছর ২৫ নভেম্বর “আন্তর্জাতিক নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ দিবস” থেকে ১০ ডিসেম্বর “আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস” পর্যন্ত পালন করা হয়।নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে এ বছরও ২৫ নভেম্বর থেকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৬ দিনব্যাপী কর্মসূচী জাতিসংঘের বৈশি^ক প্রতিপাদ্য ”Orange the World: Fund, Respond, Prevent, Collect” এর সাথে সামঞ্জস্য রেখে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক নির্ধারিত প্রতিপাদ্যকে কেন্দ্র করে অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশ আগামী ২৫ নভেম্বর থেকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৬দিনব্যাপী পরিচালিত আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ-২০২০ এর জন্য নিম্মের প্রতিপাদ্যটি নির্ধারণ করেছে-

                      ‘‘কমলা রঙের বিশ্বে নারী
                        বাধার পথ দেবেই পারি”

আজ ২৫ নভেম্বর ২০২০ ইং তারিখ রোজ বুধবার সকাল ১০:০০ টা থেকে নবযাত্রা প্রকল্প কালিগঞ্জ অফিস থেকে বর্নিল সাজে সজ্জিত র‌্যালি শুরু হয়ে, ফুলতলা মোড় হয়ে কালিগঞ্জ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় হয়ে র‌্যালিটি শেষ হয়। এতে তারলী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামিলীগের সাধারণ সম্পাদক মো: এনামুল হক ছোট, কালিগঞ্জ সদর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: আলামিন ও সহকারী শিক্ষকবৃন্দ, কালিগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি শেখ সাইফুল বারী সফু, সাধারণ সম্পাদক সুকুমার দাস বাচ্চু, বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতির কালিগঞ্জ শাখার সভাপতি আনোয়ার হোসেন, দৃষ্টিপাত প্রতিনিধি মাসুদ পারভেজ, আহম্মদ উল্লাহ বাচ্চু, যুব সাংবাদিক মো: আতিকুর রহমান ও নবযাত্রা প্রকল্পের কর্মকর্তাবৃন্দ। র্যালি শেষে প্রকল্প অফিসে পক্ষকালব্যাপি কার্যক্রমের গুরুত্ব তুলে ধরা হয়। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, সম্প্রতি এক জরিপে দেখা যায়, করোনাজনিত লকডাউনের সময় বিশ্বব্যাপী নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়েছে ২০ শতাংশের মতো। COVID-১৯ এর সময় নারীদের প্রতি সহিংসতায় বিশ^ব্যাপী তিনজন নারীর মধ্যে একজন শারীরিক বা যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে; যার বেশির ভাগই স্বামী অথবা ঘনিষ্ট বন্ধুবান্ধব দ্বারা। করোনা সংকটের কারণে চলমান অবরুদ্ধ অবস্থায় যেখানে নারী ও শিশুরা অধিক সহমর্মিতা ও সহানুভূতি দাবি করে, সেখানে তাদের প্রতি সহিংসতার হার বেড়ে যাওয়া অত্যন্ত উদ্বেগজনক। এর মধ্যে রয়েছে ধর্ষণ, যৌন হয়রানি, শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন, খাদ্য ও অর্থসহায়তা থেকে বঞ্চিত রাখা। জাতিসংঘ মহাসচিব এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে সহিংসতা বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সদস্যদেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে বিশ^জুড়ে পরিচালিত ১৬ দিনব্যাপী পরিচালিত কর্মসূচীটি নারী ও কন্যাশিশুর সুরক্ষার পাশাপাশি নারীর প্রতি সহিংসতা মুক্ত সমাজ গড়তে অবদান রাখবে। কোভিড-১৯ মহামারিতে বিশ^জুড়ে ২৪৩ মিলিয়ন নারী ও কন্যাশিশু (১৫-৪৯ বছর বয়সী) তাদের স্বামী অথবা বন্ধুবান্ধবের মাধ্যমে শারীরিক বা যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে। অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও কোভিড-১৯ মহামারীর সময়ে দিন দিন নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়ে যাচ্ছে। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী জানুয়ারী-২০২০ থেকে জুন-২০২০ এর মধ্যে ৬০১ টি ধর্ষনের ঘটনা ঘটেছে (এপ্রিল মাসে-৭৬, মে মাসে-৯৪ এবং জুন মাসে-১৭৪) এবং পারিবারিক সহিংসতায় ১০৭ জন নারীর মৃত্য হয়েছে। অপর দিকে প্রথম আলোর ছাপা সংষ্করণে প্রকাশিত ধর্ষনের ঘটনা বিশ্লেষনে দেখা গিয়েছে ১৪ অক্টোবর-২০২০ থেকে ১৩ নভেম্বর-২০২০ এর মধ্যে ১৮৩ জন ধর্ষনের শিকার হয়েছে যা বিগত এক মাসের চেয়ে ৫৮ শতাংশ বেশি। উপরোক্ত তথ্য পর্যালোচনার প্রেক্ষিতে দেখা যাচ্ছে কোভিড-১৯ সংকটের মধ্যে নারী নির্যাতন একটি নতুন মহামারী আকার ধারন করেছে যা বন্ধ করার জন্য আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টা দরকার।নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে ১৬ দিনব্যাপী এ প্রচারাভিযানের প্রতিপাদ্যকে কেন্দ্রে রেখে নবযাত্রা প্রকল্প নি¤œলিখিত কর্মসূচী পালন করবে-প্রকল্পের কর্মীদের মধ্যে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে ১৬ দিনব্যাপী কর্মসূচীর উদ্দেশ্য আলোচনা করা, জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তাদের সাথে নবযাত্রার মেল এনগেজমেন্ট কার্যক্রম মূল্যায়নের ফলাফল শেয়ার, ডিজিটাল এসবিসি প্লাটফর্ম, কমিউনিটি রেডিও এবং কেবল টেলিভিশনের মাধ্যমে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধের বিভিন্ন বার্তা প্রদান, বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ইয়ূথ ক্লাব ও গ্রাম উন্নয়ন কমিটির আয়োজনে কমিউনিটি পর্যায়ে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে প্রচারাভিযান, ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা ও জাতীয় পর্যায়ে সরকারে গৃহিত বিভিন্ন কার্যক্রমে অংশগ্রহন।
“আমেরিকান সরকারের আন্তজার্তিক উন্নয়ন সংস্থা (ইউএসএআইডি) এর ফুড ফর পিস (টাইটেল-২) খাদ্য সহায়তা কার্যক্রমের অর্থায়নে ‘নবযাত্রা’ একটি প্রকল্প যা ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে শুরু হয়েছে এবং ২০২২ সালে শেষ হবে। ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর নেতৃত্বে নবযাত্রা প্রকল্প অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম, উইনরক ইন্টারন্যাশনাল এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পটি বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকূলীয় খুলনা জেলার দাকোপ ও কয়রা এবং সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর উপজেলার ৮,৫৬,১১৬ জন উপকারভোগীর জন্য বাস্তবায়িত হচ্ছে।