কালিগঞ্জে বাল্য বিবাহ রোধে উপজেলা প্রশাসনের ব্যাতিক্রমী উদ্যোগ


162 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জে বাল্য বিবাহ রোধে উপজেলা প্রশাসনের ব্যাতিক্রমী উদ্যোগ
জানুয়ারি ২০, ২০২০ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

“আমেরিকান সরকারের আন্তজার্তিক উন্নয়ন সংস্থা (ইউএসএআইডি) এর ফুড ফর পিস (টাইটেল-২) খাদ্য সহায়তা কার্যক্রমের অর্থায়নে ‘নবযাত্রা’ একটি প্রকল্প যা ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে শুরু হয়েছে এবং ২০২২ সালে শেষ হবে। ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর নেতৃত্বে নবযাত্রা প্রকল্প অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম, উইনরক ইন্টারন্যাশনাল এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পটি বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকূলীয় খুলনা জেলার দাকোপ ও কয়রা এবং সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর উপজেলার ৮,৫৬,১১৬ জন উপকারভোগীর জন্য বাস্তবায়িত হচ্ছে।

কালিগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ইউএসএআইডি’র খাদ্য সহায়তা প্রকল্প ‘নবযাত্রা’র অর্থায়নে ও স্থানীয় বাস্তবায়নকারী সংস্থা সুশীলনের সার্বিক সহায়তায় আজ ২০.০১.২০২০ ইং তারিখ সোমবার সকাল ১০:৩০ টা থেকে কালিগঞ্জের অফিসার্স ক্লাবে ইউএসএআইডি’র ‘নবযাত্রা’ জেন্ডার কম্পোনেন্টেরউদ্যোগে“আঠারোর আগে বিয়ে নয়; উপজেলা পর্যায়ে গণ সমাবেশ ও মুক্ত আলোচনা” অনুষ্ঠিত হয়। গন সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ও শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন মো: মোজাম্মেল হক রাসেল। প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্থানীয় সরকারের উপপরিচালক হাসাইন শওকত বলেন, কালিগঞ্জ উপজেলায় আজ হতে ০৬ বছর আগে সম্পূর্ন বাল্য বিবাহমুক্ত ঘোষনা করা হলেও এখনও নানা ভাবে বাল্য বিবাহ হয়ে থাকে এবং এ উপজেলায় ৭৪ শতাংশ বাল্য বিবাহ হয়ে থাকে যা আমাদের জন্য দূর্ভাগ্যজনক। নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে কোর্টে দেয়া বিয়ে বৈধ নয়।

ইতমধ্যে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন এসব বিষয়কে আইনের আওতায় এসে শাস্তি প্রদানের কাজ শুরু করেছে। আর এত বিশাল সংখ্যার এই বাল্য বিবাহ শুধু কোর্টের মাধ্যমেই হয় না বরং স্থানীয়ভাবে অনেকেই এর সাথে সম্পৃক্ত রয়েছেন যাদেরকে এসমস্ত কাজ থেকে দূরে থাকার অনুরোধ করেছেন। কালিগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব সাঈদ মেহেদী বলেন অপরাধীকে তার শাস্তি পেতেই হবে। উপজেলা প্রশাসন উপজেলা পরিষদ এ ব্যাপারে কাউকেই সহায়তা করবে না। মানুষের মদ্যে নৈতিকতার চর্চা বাড়াতে হবে। অংশগ্রহনকারী কিশোরী এবং তাদের অভিভাবকদেরকে প্রধান অতিথি হুসাইন শওকত, উপ পরিচালক, স্থানীয় সরকার বাল্য বিবাহ বন্ধে শপথ পাঠ করান এবং উপস্থিত সবাই বাল্য বিবাহ নিরোসনে কাজ করার ঘোষনা দেন।

নবযাত্রা প্রকল্পের সুবিধা ভোগীদের মধ্যে হত দরিদ্র্য পরিবার থেকে বাল্য বিবাহের ঝুঁকিতে থাকা ৭৫ জন কিশোরী যাদের বয়স আঠারোর নীচে এবং এই পচাঁত্তর জন কিশোরীর মা বাবা, উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয়, বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগন, পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত, উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তাবৃন্দ, সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বিবাহ নিবন্ধক, কাজী, ইমাম, পুরোহিত, গণমাধ্যম কর্মীবৃন্দ গন সমাবেশে মুক্ত আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন এবং বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরেন এবং পরামর্শ প্রদান করেন। সমাবেশে নবযাত্রার কার্যক্রম তুলে ধরেন ফিল্ড অফিস ম্যানেজার আশীষ কুমার হালদার। বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ এবং আমাদের করনীয় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা উস্থাপনের মাধ্যমে অংশগ্রহনকারীদের বাল্য বিবাহ বন্ধে একযোগে কাজ করতে অনুরোধ করেন ডি এফওএম আশিক বিল্লাহ।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি