কালিগঞ্জে সাংবাদিক হাফিজের ওপর হামলা !


562 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জে সাংবাদিক হাফিজের ওপর হামলা !
ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৭ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::
কালিগঞ্জের কুশোলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের নির্দেশে সাংবাদিক হাফিজুর রহমান ওপর হামলা হয়েছে। হামলাকারীরা তাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে। শুক্রবার দুপুরে কালিগঞ্জ উপজেলা সদরের ফুলতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত সাংবাদিক হাফিজুর রহমানকে কালিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি সাতক্ষীরার দৈনিক সাতনদী পত্রিকার কালিগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধি।
হাফিজুর রহমান জানান, তিনি ফুলতলায় প্রধান সড়কের একপাশে আজমিরের চা দোকানের সামনে  দাঁড়িয়ে কথাবার্তা বলছিলেন। সড়কের ওপারে দাঁড়িয়ে ছিলেন কালিগঞ্জের কুশোলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেহেদি হাসান সুমন। এ সময় চেয়ারম্যান সুমনের মোবাইল ফোন পেয়ে দ্রুত উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক তানভির আহমেদ উজ্জ্বল ও কয়েকজন যুবক এসেই তার ওপর হামলা করে। উজ্জ্বল তাকে হাতুড়ি দিয়ে তার মাথায়, ঘাড়ে ও হাতে দফায় দফায় আঘাত করে। তার অপর সঙ্গীদের হাতে ছিল লোহার রড। তারা কোনো আঘাত না করেই শুধু তাকে ঘিরে দাঁড়িয়েছিল। উপস্থিত লোকজন বাধা দিলে হামলাকারীরা চলে যায়। কয়েকজন সাংবাদিক ও স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কালিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে দেন।
হাফিজুর রহমান আরো জানান, কালিগঞ্জে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান ও দলের সাধারণ সম্পাদকের মধ্যকার দ্বন্দ্ব নিয়ে তিনি সম্প্রতি দৈনিক সাতনদী পত্রিকায় একটি রিপোর্ট করেন। এই রিপোর্টের পর তিনি দলের সভাপতির তোপের মুখে পড়েন। তিনি জানান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুমন কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়াম্যান শেখ ওয়াহেদুজ্জানের ছেলে। তার বাবার বিরুদ্ধে রিপোর্টের প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য চেয়ারম্যান সুমনের নির্দেশে তার ওপর হামলা হয়েছে বলে জানান তিনি। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল।
এদিকে, তানভির আহমেদ উজ্জল ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান, তিনি নিজেও একজন গণমাধ্যম কর্মী। যশোর থেকে প্রকাশিত দৈনিক নওয়াপাড়া পত্রিকায় কাজ করেন। শুক্রবার বেলা ১২ টার দিকে সাংবাদিক হাফিজের সাথে শহীদ নামের এক কলেজ ছাত্রের নিউজ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে কলেজ ছাত্র শহীদ  হাফিজকে ধাক্কা দেয়। এতে তিনি পড়ে যান। মাথা ফ৭াটানোর কোন ঘটনায় সেখানে ঘটেনি।আমার  সামনেই ঘটনাটি ঘটেছে। সাংবাদিক হাফিজের অভিযোগ সঠিক নয়।