কালিগঞ্জে সড়ক দূর্ঘটনায় নিভে গেল মেধাবী ছাত্রী আঁখির জীবন প্রদীপ


954 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কালিগঞ্জে সড়ক দূর্ঘটনায় নিভে গেল মেধাবী ছাত্রী আঁখির জীবন প্রদীপ
অক্টোবর ৪, ২০১৬ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

সোহরাব হোসেন সবুজ, নলতা:
সুমাইয়া সুলতানা আঁখি (১৫) কালিগঞ্জের নলতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী। ট্যালেন্টপুলে বৃত্তিপ্রাপ্ত মেধাবী ছাত্রী সুমাইয়া পিতা-মাতার একমাত্র মেয়ে। পিতা আসাদুজ্জামান একজন পুলিশ কর্মকর্তা। খুলনার নৈলেন থানার এ.এসআই। নলতার সন্যাসিরচকের বাসীন্দা হলেও সুমাইয়া লেখাপড়ার সুবাদে জন্মথেকেই তাঁর নানা নলতার ঘোড়াপোতা রফিকুল ইসলামের বাড়ী থেকে মানুষ। মঙ্গলবার স্কুল শেষে সুমাইয়া, ফারিহা আহমেদসহ ৪ বান্ধবী ভাড়াশিমলার মার্কায় অসুস্থ আর এক বান্ধবীকে দেখতে যায়। মার্কার ডাঃ রফিকের মেয়ে সাহানা সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হয়ে অসুস্থতায় ভুগছে। সাহানাকে দেখে বেলা ৪টার দিকে নলতায় ফিরছিল সুমাইয়া, ফারিহা সহ ৪জন ইঞ্জিন ভ্যানে। ভাড়াশিমলা থেকে কিছু দুর আসতে না আসতেই কালিগঞ্জের দিক থেকে আসা মরণঘাতি ট্রাক পিছু থেকে ধাক্কা দেয় ঐ ভ্যানে। সুমাইয়া ও ফারিহা ছটকে পড়ে রাস্তার উপর। অন্য দুজন রাস্তার ধারে। রাস্তার উপর পড়ার পরপরই ভ্যানও উল্টে পড়ে তাদের উপর। আর সেখান থেকে দ্রুত তাদের নলতা হাসপাতালে নেওয়ার পথে করুন মৃত্যু হয় সুমাইয়া সুলতানা আঁখির। অপর বান্ধবী ফারিহা আহমেদ (১৪) শরীরে ও মাথায় মারাত্বকভাবে আঘাত পায়। তাঁর অবস্থা আশঙ্খাজনক দেখে দ্রুত খুলনা মেডিকেলে নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। ফারিহা আহমেদ অবসর প্রাপ্ত সেনা সদস্য ফারুক আহমেদের কন্যা এবং উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক সাঈদ মেমেদীর ভাইজি। কালিগঞ্জের পানিয়া গ্রামের ফারুক আহমেদ ও মেয়ের লেখাপড়ার জন্য নলতায় বাসা ভাড়া নিয়ে আছে দীর্ঘদিন।
কালিগঞ্জ থানা পুলিশের সিনিয়র দারগা অমলের নেতৃত্বে এস.আই হেকমত, এসআই সেকেন্দার, এ.এসআই বাবুলসহ সঙ্গীয় ফোর্স নলতা হাসপাতালের সামনে বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত  উৎসুক জনতাকে শান্ত রাখে। এসময় নিহত ছাত্রীকে দেখতে ও তার পরিবারকে সমবেদনা জানাতে ঘটনাস্থলে আসে নলতা ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, নবরাগ সাংস্কৃতিক একাডেমির পরিচালক সোহরাব হোসেন সবুজ, নলতা কেবি জুনিয়র হাই স্কুলের শিক্ষকবৃন্দ, নলতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীবৃন্দ। নিহত আঁখির পিতা এ.এসআই আসাদুজ্জামান সংবাদ পেয়ে খুলনা থেকে ফিরলে রাত ৮টার দিকে কালিগঞ্জ থানা পুলিশ আঁখির লাশ তাঁর পিতার কাছে হস্তান্তর করেন। এদিকে এমন অনাকাঙ্খিত ঘটনায় শোকে ভারী হয়ে উঠেছে ছাত্র-শিক্ষক সমাজ সহ এলাকাবাসী। নিহত মেধাবী ছাত্রী আঁখির জন্য দোয়া সহ বিভিন্ন কর্মসূচীর আয়োজন করেছে নলতা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো।
এদিকে মরণঘাতি ট্রাকটি সাতক্ষীরা থেকে আটকানো সম্ভব হয়েছে। ঢাকা মেট্রো ন ১৮-৮৬৯৩। ট্রাকটির চালক ছিল মাদারীপুর মিঠাপুকুর গ্রামের আতাহারের ছেলে বাবু বলে জানা গেছে।