কাল তৃতীয়বারের মতো মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিচ্ছেন মমতা


134 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কাল তৃতীয়বারের মতো মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিচ্ছেন মমতা
মে ৪, ২০২১ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে ঐতিহাসিক জয়ের পর আগামীকাল বুধবার মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিতে যাচ্ছেন তৃণমূল কংগ্রেস মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তৃতীয়বারের মতো মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেবেন তিনি। সোমবার নবনির্বাচিত বিধায়কদের নিয়ে দলীয় কার্যালয়ে বৈঠকের পর এ সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে।

এছাড়া বিধায়করা শপথ নেবেন বৃহস্পতি ও শুক্রবার। পশ্চিমবঙ্গে বাংলা সংবাদপত্র আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

সোমবার কলকাতার কালীঘাটে সাংবাদিক সম্মেলনের পর তৃণমূল কার্যালয়ে পরিষদীয় দলের সঙ্গে আলোচনায় বসেন মমতা। পরে সাংবাদিকদের বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানান দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি জানান, পরিষদীয় দলের নেত্রী নির্বাচিত হয়েছেন মমতাই।

পার্থ আরও জানান, বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, ৫ তারিখ শপথ নেবেন মমতা। এরপর ৬ ও ৭ মে শপথ নেবেন বাকি বিধায়করা। এছাড়া বিধানসভার স্পিকার হবেন বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ই। স্পিকার নির্বাচনের দিন দায়িত্ব পালন করবেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। কারা মন্ত্রী হবেন সেই বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। এ বিষয়টি ঠিক করবেন মমতা।

সোমবারের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জয়ী বিধায়করাও। সূত্র জানিয়েছে, বৈঠকে তাদের মমতা বলেন, ‘বিধায়ক হয়ে যাওয়ার পরে অহংকার করলে চলবে না। জিতে যাওয়ায় দায়িত্ব আরও বেড়েছে। আপনার যোগ্য জবাব দিয়ে জিতেছেন। আমাদের জয়ে সারাদেশের মানুষ খুশি হয়েছেন। দেশের সব বিরোধীরা খুশি হয়ে অভিনন্দন জানিয়েছেন।’

এর আগে কালীঘাটে মমতা বলেন, মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার পর তার সরকারের প্রধান কাজ হবে রাজ্যে করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলা করা। তারপরেই বিজয় উৎসব করবেন তারা।

রোববার ভারতীয় সময় সকাল ৮টা থেকে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের ভোটগণনা শুরু হয়। বিধানসভার মোট আসন ২৯৪টি থাকলেও নির্বাচনের মধ্যে দুই প্রার্থীর মৃত্যু হওয়ায় দুটি আসনের নির্বাচন স্থগিত হয়। ফলে ২৯২টি আসনের মধ্যে ২১৩ আসনে জয়ী হয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস।

নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) জয়ী হয়েছে ৭৭ আসনে। কংগ্রেস-বাম দল ও আইএসএফের গড়া সংযুক্ত মোর্চা পেয়েছে মাত্র একটি আসন। আরেকটি আসন পেয়েছে অন্যরা।