কেমন আছেন ক্রিকেটার সৌম্য সরকারের গ্রামবাসী ?


1139 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কেমন আছেন ক্রিকেটার সৌম্য সরকারের গ্রামবাসী ?
জানুয়ারি ২২, ২০১৬ আশাশুনি খেলা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

আব্দুর রহমান :
সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার ৩নং ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড মহিষাডাংগা। যেখানে বাংলাদেশ জাতীয় দলের খ্যাতিমান অলরাউন্ডার ক্রিকেট বিস্ময় সৌম্য সরকারের পৈত্রিক আবাস স্থান। সৌম্য সরকারের গ্রামের মানুষ কেমন আছেন, কি অবস্থায় তাদের দিন কাটে এসব বিষয় নিয়ে গ্রামের মানুষের সাথে একান্তে কথা বলেন আমাদের প্রতিনিধি শেখ বাদশা।
সৌম্য সরকারের গ্রামের বাড়িতে থাকেন তার ছোট কাকা নেপাল সরকার। তার সাথে একান্ত সাংক্ষাৎ কালে সৌম্য সরকারের পারিবারিক বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তরুন অলরাউন্ডার সৌম্য সরকারের বাবার নাম কিশোরী মোহন সরকার ও মাতা নমিতা রানী সরকার। তিন ছেলের মধ্যে বড় ছেলে প্রণব সরকার, মেঝ ছেলে পুষ্পেণ সরকার ও ছোট ছেলে সৌম্য শান্ত। তিনি বলেন, খ্যাতিমান ক্রিকেটার সৌম্য সরকারের মেঝ ভাইও একজন ভালো ক্রিকেটার। তিনি খেলেছেন সাতক্ষীরা গণমুখী সংঘসহ ঢাকার অনেক ক্লাবে। বড় ছেলে প্রণব সরকার সরকারী চাকুরীজিবি, তিনিও ক্রিকেট খুব ভালো বোঝেন। সৌম্য সরকারের খেলার দিন তার ‘মা’ নমিতা রাণী সরকার উপোষ থেকে খেলা শেষ না হওয়া পর্যন্ত পূজা অর্চনা করতে থাকেন। প্রার্থনা করেন তার ছেলে প্রতিপক্ষের বোলারদের বলে বলে চার-ছয় মারুক আর দেশের জন্য বয়ে আনে সুনাম। তাদের গ্রামের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, এই গ্রামটি খুবই অবহেলিত, মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই। গ্রামের অধিকাংশ রাস্তা ইটের কার্পেটিং তো দুরের কথা এখনো কাঁচা।

৯নং ওয়ার্ডে ৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে উঃ দাঁদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালটির অবস্থা নাজুক এবং যাতয়াতের রাস্তাটিও কাঁচা। গ্রামের মানুষের জন্য নেই শুপেয় খাবার পানি। দুর্যোগ মোকাবেলায় নেই সাইক্লোন শেল্ডার। বর্ষার মৌসুমে বার বার জলাবদ্ধতায় কৃষি ফসলেও ফলন কম। এলাকায় সম্প্রতি আনুষ্ঠানিক ভাবে বিদ্যুতের উদ্বোধন হলেও বিদ্যুতের আলো পৌঁছায়নি অধিকাংশ গ্রাহকের বাড়ি। তাদের ঘরে এখনো জ্বলে সেই আদিম যুগের প্রদ্বীপ। গ্রামবাসিরা জানায় বৃদ্ধ ও বাচ্চাদের নিয়ে শীতে হিমশিম খাচ্ছি। তবুও কোন সরকারী বা বে-সরকারী ভাবে শীতবস্ত্র পায়নি। সকালে মিষ্টি রৌদ্র, রাতে আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করছে গ্রামবাসী।  উপজেলা শহর থেকে অনেকটা দূর মহিষাডাংগা গ্রাম। যাতায়াতের জন্য কুল্যার মোড় হয়ে যেতে হয়। কুল্যার মোড় থেকে মহিষাডাংগা পর্যন্ত রাস্তা চরম বেহাল অবস্থা। পিচের কার্পেটিং উঠে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে এবং ইটের খোয়া ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে সমস্ত রাস্তা জুড়ে। মোটরসাইকেল, পা-ভ্যান, ইঞ্জিন ভ্যান, ইজিবাইক একমাত্র যানবাহন। এতে চলাচলে দুর্ঘটনার শিকার হতে হয় প্রতিনিয়ত। রাস্তা এতোটাই নষ্ট যে অধিকাংশ পথচারী ও স্কুলের শিক্ষার্থীরা পায়ে হেঁটেই যাতয়াত করে খাকে। স্থানীয় মেম্বর বিশ্বনাথ সরকারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে। ক্রিকেটার সৌম্য সরকারের গ্রামবাসি অতি দ্রুত রাস্তাঘাট সহ মহিষাডাংগা তথা কুল্যা ইউনিয়নের উন্নয়ন দাবী করছেন উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে।