কেরির সঙ্গে সব বিষয়ে কথা হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী


252 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
কেরির সঙ্গে সব বিষয়ে কথা হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
আগস্ট ২৪, ২০১৬ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক :
যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির আসন্ন বাংলাদেশ সফরে সব বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী।ঢাকা আসছেন কেরি

বুধবার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে শেষে সাংবাদিকরা মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফর নিশ্চিত কি না- জানতে চাইলে মাহমুদ আলী বলেন, “হ‌্যাঁ। তিনি আসছেন ২৯ অগাস্ট। অনেক দিন ধরে তার আসার কথা ছিল। তিনি আসছেন; আমরা আনন্দিত।”পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জন কেরির এই সফরে সম্পর্কের সব দিক নিয়ে, বিশেষ করে বর্তমান আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট নিয়ে আলোচনা হবে।

এর আগে মঙ্গলবার রাতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ২৯ অগাস্ট বাংলাদেশে সংক্ষিপ্ত সফরে আসার কথা নিশ্চিত করেছিলেন।তিনি বলেন, ২৯ অগাস্ট ঢাকা এসে ওই দিনই নয়া দিল্লির উদ্দেশ্যে যাত্রা করবেন কেরি।

সাড়ে তিন বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়ার পর এবারই প্রথম বাংলাদেশে আসছেন জন কেরি।গত ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় ১৭ বিদেশিসহ ২০ জিম্মি নিহত হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে সব ধরনের সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত বলে প্রেসিডেন্ট ওবামার পক্ষ থেকে শেখ হাসিনাকে বলেছিলেন তিনি।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী গত বছর কেরিকে ঢাকা আসার আমন্ত্রণ জানান। তিনি ‘শিগগির’ আসবেন বলে সে সময় লেছিলেন মন্ত্রী।

তবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা বলেন, কেরির এই সফর হচ্ছে হঠাৎ করেই। গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাটের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে এ বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।সংক্ষিপ্ত সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন জন কেরি।সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গেও তিনি বৈঠক করবেন।

গুলশান হামলার পর যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিশা দেশাই বিসওয়াল বাংলাদেশ ঘুরে যান। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্রের ‘বিশেষায়িত জ্ঞান’ দিয়ে বাংলাদেশকে সহযোগিতার প্রস্তাব দেন তিনি।

গত জুনে ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের ‘অংশীদারিত্ব সংলাপে’ আইএস ও আল-কায়েদার মতো জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে একযোগে কাজ করতে সম্মত হয় দুই দেশ।পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের কাউন্টারটেররিজম পার্টনারশিপস ফান্ডেও (সিটিপিএফ) বাংলাদেশের যোগ দেওয়ার ঘোষণা আসে।