ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তা হিসেবে পাইকগাছার মোনালিসার সাফল্য


137 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তা হিসেবে পাইকগাছার মোনালিসার সাফল্য
ডিসেম্বর ১, ২০১৯ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ইউএনও জুলিয়া সুকায়নার কার্যক্রম পরিদর্শন

এস, এম, আলাউদ্দিন সোহাগ ::

জীবন সংগ্রামে হিসেবে সাফল্য দেখিয়েছেন পাইকগাছার ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তা ফ্যাশন ডিজাইনার মোনালিসা। তিনি নারীদের জন্য উপজেলা সদরে গড়ে তুলেছেন অপরাজিতা নামে একটি প্রতিষ্ঠান। যে প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে হাতের কাজ করা তৈরী পোশাক সরবরাহ করা হচ্ছে দেশের বিভিন্ন সনামধন্য ফ্যাশন হাউজ প্রতিষ্ঠানে। কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য প্রশিক্ষিত নারীদের। নারীদের আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে আগ্রহী নারীদের। মোনালিসার এ সাফল্য দেখে এ ধরণের কাজে এগিয়ে আসছেন এলাকার শিক্ষিত বেকার যুব নারীরা। রোববার মোনালিসার প্রতিষ্ঠানে কর্মরত নারীদের কার্যক্রম পরিদর্শন করে কোন দালালদের খপ্পরে পড়ে প্রতারিত না হয়ে নারীদেরকে এ ধরণের কাজে এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুলিয়া সুকায়না। ইউএনও জুলিয়া সুকায়না বলেন, নারীর ক্ষমতায়নে বিশ্বাসী বর্তমান সরকার নারীদের উন্নয়নে নানামূখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ফলে জাতীয়, আন্তর্জাতিক ও সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে নারীরা এখন অনেক এগিয়ে গেছে। তিনি বলেন, বিদেশ যেতে ইচ্ছুক অনেকেই দালালদের খপ্পরে পড়ে প্রতারিত, নির্যাতিত ও ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এখন দেশের নারীদের জন্য নানান সুযোগ ও কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। মোনালিসার মত তিনি এলাকার নারীদের এ ধরণের কাজে এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানান। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মোঃ রেজাউল করিম ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নাজমুল হাসান। উল্লেখ্য, মোনালিসা পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড বাতিখালী গ্রামের বাবুল ও মমতাজ হাসানের মেয়ে। দুই ভাই ও দুই বোনের মধ্যে সে সকলের বড়। চাকুরির পেছে না ছুটে নিজেই কিছু করার মাধ্যমে স্বাবলম্বী হওয়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে মোনালিসা উপজেলা যুব উন্নয়ন ও মহিলা বিষয়ক দপ্তর থেকে পোশাক শিল্পের ওপর উন্নত প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে। এরপর সে যুব উন্নয়ন দপ্তর থেকে ৪০ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে পৌর সদরে অপরাজিতা নামক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে। যে প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এ পর্যন্ত সে শতাধিক নারীকে প্রশিক্ষণ দিয়ে আত্মকর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছে। এ ছাড়াও তার প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছে অনেক নারী। উপজেলা পর্যায় থেকে তার প্রতিষ্ঠান থেকেই প্রথম বারের মত দেশের বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজে সরবরাহ করা হচ্ছে বিভিন্ন ডিজাইন করা পোশাক। তার প্রতিষ্ঠানে ব্লক বটিক্স, এ্যাপলিক, সেলাই, পুথি, লেডিস ব্যাগ ও পুরুষের পাঞ্জাবী সহ বিভিন্ন ধরণের পোশাকে ডিজাইনের কাজ করা হয়ে থাকে। এ প্রতিষ্ঠানে কাজ করে আত্মকর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান কর্মরত ঝুম্পা সানা ও নাহিদা সুলতানা।