খালেদাকে প্রধান ‘মহিলা রাজাকার’ বললেন চুমকি


278 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
খালেদাকে প্রধান ‘মহিলা রাজাকার’ বললেন চুমকি
জানুয়ারি ১১, ২০১৬ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকম ডেস্ক :
মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তোলায় বিএনপিপ্রধান খালেদা জিয়াকে দেশের প্রধান ‘মহিলা রাজাকার’ অ্যাখ্যা দেওয়ার পাশাপাশি বিশেষ ট্রাইব্যুনালে তার বিচার দাবি করেছেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি।

ঢাকায় ইডেন মহিলা কলেজে রোববার এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধ নিয়ে তিনি (খালেদা জিয়া) কটাক্ষ করেছেন। তিনি বাংলাদেশের যুদ্ধাপরাধীদের প্রশ্রয় দিয়েছেন; তাদের বিচার বাধাগ্রস্ত করতে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন। এজন্য বিশেষ ট্রাইব্যুনালে তার বিচার হওয়া দরকার।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, অনুষ্ঠানে জিয়াউর রহমান বীর উত্তম খেতাব পেলেও খালেদা জিয়া স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রধান পৃষ্ঠপোষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন অভিযোগ করে প্রতিমন্ত্রী চুমকি বলেন, এজন্য খালেদা জিয়াকে বাংলাদেশের প্রধান মহিলা রাজাকার হিসেবে উপাধি দেওয়া যেতে পারে।

“যুদ্ধাপরাধীদের সমর্থনে ষড়যন্ত্র করায় কূটনৈতিকদের ফেরত পাঠানো হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধের শহীদদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তোলায় দেশের প্রধান মহিলা রাজাকার খালেদা জিয়াকেও পাশ্ববর্তী কোনো দেশে পাঠিয়ে দেওয়া উচিৎ।”

গত ২১ ডিসেম্বর এক আলোচনা সভায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা বলেন, “আজকে বলা হয়, এতো লক্ষ লোক শহীদ হয়েছেন। এটা নিয়েও অনেক বিতর্ক আছে যে আসলে কত লক্ষ লোক মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছেন। নানা বই-কিতাবে নানারকম তথ্য আছে।”

তার এই বক্তব্যের পর তীব্র প্রতিক্রিয়া হয়। বক্তব্য প্রত্যাহার করে খালেদাকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানায় একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি। খালেদার নামে আদালতে একাধিক মামলাও দায়ের করা হয়।

অধ্যক্ষ হোসনে আরার সভাপতিত্বে কলেজের বাৎসরিক সাহিত্য সংস্কৃতি প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিচ্ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে নারী সমাজকে গৃহে অবরুদ্ধ রেখে বাংলাদেশের কাঙ্ক্ষিত সাফল্য অর্জন সম্ভব নয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।