খালেদা জিয়াকে দেখে এলেন মির্জা ফখরুল


91 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
খালেদা জিয়াকে দেখে এলেন মির্জা ফখরুল
অক্টোবর ১৭, ২০২১ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দেখে এসেছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শনিবার রাত ১১টার দিকে তিনি রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে যান। প্রায় ৪০ মিনিট দলীয় চেয়ারপারসনের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। রবিবার সকালে দলের দায়িত্বশীল সূত্র গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানায়।

সূত্র মতে, বিএনপির মহাসচিব শনিবার চট্টগ্রামে কর্মীসভা শেষ করে ঢাকায় ফেরেন। এরপর রাতে তিনি বেগম জিয়াকে দেখতে যান। সেখানে তিনি চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেন। খালেদা জিয়ার শারীরিক পরিস্থিতির খোঁজ খবর নেন। এসময় প্রায় ৪০ মিনিট বিএনপি চেয়ারপারসনের কেবিনে অবস্থান করেন মির্জা ফখরুল।
সূত্র জানায়, সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার কথা তুলে ধরতে পারেন মির্জা ফখরুল। ইতোমধ্যে তিনি বেশ কয়েকবার দলীয় চেয়ারপারসনের উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার কথা জানিয়েছেন।

গত মঙ্গলবার বিকালে শারীরিক অবস্থার ফলোআপ করাতে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। পরদিন থেকে তার শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু হয়।

প্রায় প্রতিদিন ওষুধ পরিবর্তন করে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জ্বর কমানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। তবুও জ্বর কমছে না। ঘন ঘন জ্বরই ভোগাচ্ছে বেগম জিয়াকে। গতকালও তার শরীরে তাপমাত্রা ছিল ১০১ ডিগ্রি। বারবার জ্বর আসার কারণ খুঁজছে মেডিকেল বোর্ড। সে জন্য নতুন করে স্বাস্থ্যের বেশকিছু পরীক্ষা করা হচ্ছে।

রিপোর্টের উদ্ধৃতি দিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের একজন চিকিৎসক জানান, রক্তে প্রদাহের মাত্রা বেশি। অর্থাৎ রক্তে সংক্রমণ আছে। এটি অস্বাভাবিক। রক্তে হিমোগ্লোবিনেরও ঘাটতি রয়েছে। ডায়াবেটিসও নিয়ন্ত্রণে নেই।

বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের একজন সদস্য জানান, খালেদা জিয়াকে আরও অন্তত ১০ দিন এভারকেয়ার হাসপাতালে থাকতে হবে। গতকালও বোর্ড পর্যালোচনা বৈঠক করেছে। মূলত জ্বরই এখন খালেদা জিয়াকে ভোগাচ্ছে। এ কারণে খাবারে তার রুচি নেই। শরীরও দুর্বল। সেই সঙ্গে কিডনির ক্রিয়েটিনিন বর্ডার লাইন ক্রস করেছে। শরীরের থরো চেকআপ করা হচ্ছে।’

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, খালেদা জিয়াকে দেখতে গিয়েছিলেন তার ভাইয়ের ছেলে ও ছেলের স্ত্রীসহ তিনজন। এ ছাড়া বিএনপির নেতারা তাদের নেত্রীকে দেখতে হাসপাতালে ভিড় করেন।