খুলনার খালিশপুরে ১১ মাস বয়সের এক শিশুকন্যাকে গলা টিপে হত্যা করেছে ঘতক মা


549 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
খুলনার খালিশপুরে ১১ মাস বয়সের এক শিশুকন্যাকে গলা টিপে হত্যা করেছে ঘতক মা
আগস্ট ২৫, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ওয়াহেদ-উজ-জামান, খুলনা :
খুলনার খালিশপুরে সুমাইয়া নামে ১১ মাসের এক শিশুকন্যাকে গলা টিপে হত্যা করেছে তার মা। মঙ্গলবার সকাল ৯ টায় খালিশপুর পিপলস পাঁচতলা শ্রমিক কলোনীর ডি-৩ নং বিল্ডিং’র ১১১ নম্বর ঘরে এ ঘটনা ঘটে। কলেনানীবাসী ঘাতক মা শারমিন (২০) ও শারমিনের সৎ পিতা মিজানুর রহমান মিজানকে আটক করে খালিশপুর থানার পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে।

পুলিশ ও কলোনীবাসী জানায়, পিপলস পাঁচতলা শ্রমিক কলোনীর জামালের ডি-৩ নং বিল্ডিং’র ১১১ নম্বর ঘরের ভাড়াটিয় রিক্সচালক সমুনের স্ত্রী শারমিন নিজের শিশুকন্যকে গলায় ওড়না পেচিয়ে হত্যা করার পর ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে দেয়। এ ঘটনা পাশ্ববর্তি ঘরের মহিলারা দেখে ফেলে চিৎকার শুরুকরে। পরে কলোনীবাসীর সহয়তায় ঘরের দরজা ভেঙ্গে সুমাইয়ার ঝুলান্ত লাশ উদ্ধার করা হয়।

হত্যা করার  কিছুক্ষন আগে শারমিনের সৎ পিতা খালিশপুর জুট মিলের শ্রমিক মিজান শারমিনের কাছে আসে। এরপর মিজান শারমিনের সাথে গোপনে কথা বলে পাশ্ববর্তি একটি ক্লাবে তাশ খেলতে বসে বলে কলোনীর প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়। এদিকে শিশু সুমাইয়া হত্যার সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। কলোনীবাসী ঘাতক মা শারমিন এবং ওই ক্লাব থেকে মিজানকে আকট করে গণ ধোলাই দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে।

এ বিষয়ে খালিশপুর থানার ওসি এস,এম আনোয়ার হোসেন জানান, শারমিনের সৎ পিতা শারমিনকে অন্যত্রে বিয়ে দেয়ার জন্য বেশ কিছ দিন থেকে পরামর্শ দিয়ে আসছে। কিন্তু শারমিনের মেয়ে সুমাইয়ার জন্য তাদের সকল পরিকল্পনা ভেস্তেযায়। গতকাল মিজান ও ঘাতক মা মিলে পরামর্শ করে এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে বলে ওসি জানায়।