খুলনায় এসিড মেরে এক গৃহবধুর শরীর ঝলসে দিয়েছে পাষান্ড স্বামী


372 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
খুলনায় এসিড মেরে এক গৃহবধুর শরীর ঝলসে দিয়েছে পাষান্ড স্বামী
সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ওয়াহেদ-উজ-জামান, খুলনা প্রতিনিধি :
বিয়ের ৫ মাস যেতে না যেতে যৌতুকের শিকার হতে হলো রেনু বেগম ওরফে আসমা (২৩) নামে এক গৃহ বধুকে। স্বামী ও শাশুড়ির যৌতুকের চাহিদা পুরন করতে না পারায় শাররিক নির্যাতনের পর আসমার সারা শরির এসিড মেরে ঝলসিয়ে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী ও তার পরিবার। বর্তমানে এসিড দগ্ধ আসমা খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জ লড়ছে।

রবিবার বেলা ১১ টায় বাগেরহাট জেলার কচুয়া থানার বিশরখালি গ্রামে মোঃ আবুল শেখের বাড়িতে এ লৌহমর্ষক এসিড নিক্ষেপেরে ঘটনা ঘটে। পোড়া শরির নিয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটের বারান্দায় নিজের জীবনের ভিক্ষা চেয়ে বার বার প্রলপ বকছে আসমা বেগম। অসহ্য জ্বালা যন্ত্রনা নিয়ে তিনি গতকাল সাংবাদিকদের জানান, একই থানার সোনা কান্দি গ্রামের মৃত আশরাফ আলীর মেয়ে রেনু বেগম জীবন জীবিকার তাগিদে ঢাকায় একটি গার্মেন্টসে চাকরি করতো। ছুটির অবসরে বাড়িতে এলে পাশ্ববর্তি বিশর খালি গ্রামের আবুল শেখের ছেলে মাসুম শেখের সাতে তার পরিচয় হয়।

পরিচয়ের সুত্র ধরে গত ৫ মাস আগে তাদের ইসলামি শরিয়ত মোতাবেক আসমা ও মাসুম শেখের বিয়ে হয়। বিয়ের পর গার্মেন্টসে চাকারী করা কালীন গচ্ছিত প্রায় ৭৫ হাজার টাকা আসমার কাছ থেকে নিয়ে নেয় মাসুম ও তার মা আয়না বিবি। এরপর থেকে যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে মাসুম ও তার পরিবার। ব্যবসা করার জন্য আসমার কাছে ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে মাসুমের পরিবার।

আসমা সে টাকা দিতে না পারায় শুরু হয় আসমার উপর নানা শাররিক ও মানষিক অত্যচার। সর্বশেষ গত রবিবার যৌতুকের টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে আসমা ও মাসুমের সাথে ঝগড়া হয়। ঝগড়ার একপর্যায়ে মাসুম ঘর থেকে বেরিয়ে যায়। এসময় আসমা নিজ শয়ন কক্ষে অসুস্থ্য অবস্থায় ঘুমিয়ে পড়ে। এই ফাকেঁ আসমার শরিরে এসিড নিক্ষেপ করে। সাথে সাথে আসমার শারা শরির  ঝলসে যেয়ে জ্বালা যন্ত্রা শুরু হয়। আসমাকে এসিড নিক্ষেপ করে মাসুমের পরিবার শান্ত হয়নি। আসমার শাশুড়ি আয়না বিবি আসমাকে খুমেক হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে যায় বলে আসামা জানায়। বর্তমানে বিনা চিকিৎসায় অনাহারে অর্ধ্বহারে খুমেক হাসপাতালে মৃত্যুর সাতে পাঞ্জা লড়ছে আসমা।

এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন ১নং গজারিয়া ইউপির চেয়ারম্যান শেখ মোঃ নাসির। এ ব্যাপারে কচুয়া থানার ওসি শেখ সমসের আলী জানান, যৌতুকের কারনে এ ধরনরে একটি ঘটনা ঘটেছে মৌখিক ভাবে শুনেছি। তবে ভিকটিমের লিখিত অভিযোগ পেলে দ্রুত আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান ।
###

খুলনায় রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল  শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ ও লাঠি মিছিল

শিল্পাঞ্চাল প্রতিনিধি :
কোরবানি ঈদের আগে শ্রমিকদের  বকেয়া মজুরী প্রদান ও পাট কেনার অর্থবরাদ্ধসহ ৫ দফা বাস্তবায়নের দাবী এবং বিজেএমসির চেয়ারম্যানের বক্তব্যর প্রতিবাদে খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল গুলিতে আন্দোলন শুরু হয়েছে। ৫ দিনের আন্দোলন কর্মসুচির প্রধম দিনে শিল্পাঞ্চল খালিশপুর আটরা ও নওয়াপাড় শিল্পাঞ্চলের পাটকল শ্রমিকরা খুলনা যশোর মহাসড়কের উপর মাথায় লাল কাপড় বেঁধে লাটি মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে।

রবিবার সকাল ১০ টা থেকে খুলনা-যশোর অঞ্চলের প্রায় অর্ধ্বলক্ষ শ্রমিক-কর্মচারী মাথায় লাল ফিতা ধারণ করে লাটি মিছিল নিয়ে খুলনা যশোর মহাসড়কের নতুন রাস্তা, আটরা শিল্প এলাকা ও জেজেআই জুট মিলের সামনে সড়কের উপর বিক্ষোভ প্রদশ করে। খালিশপুরের ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, অটরার আলিম, ইর্ষ্টান ও নওয়াপাড়া শিল্প এলা এলাকার কার্পেটিং, জেজেআই জুট মিলের কয়েক হাজার শ্রমিক-কর্মচারী বৃষ্টিতে ভিজেও স্বর্তঃস্ফুর্ত ভাবে এ আন্দোলনে অংশ নেয়। বাংলাদেশ পাটকল সিবিএ-নন সিবিএ ঐক্য পরিষদের ডাকা ৫ দিনের কর্মসুচির অংশ হিসেবে বাংলাদেশ পাটকল সিবিএ-নন সিবিএ ঐক্য পরিষদের আহবায়ক ও ক্রিসেন্ট জুট মিলস সিবিএর সাধারণ সম্পাদক মোঃ সোহরাব হোসেন ও সিবিএর সভাপতি দ্বীন ইসলামে নের্তৃত্বে, প্লটিনাম জুট মিলস সিবিএর সভাপতি কাওসার আলী মৃধা, সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান নের্তৃত্বে  দুই মিলের কয়েক হাজার শ্রমিক মিছিল নিয়ে বিআইডিসি সড়ক হয়ে নতুন রাস্তা মোড়ে অবস্থান নেয়। সেখানে ৫ দফা দাবী বাস্তবায়ন ও বিজেএমসির চেয়াম্যান মেজর হুমায়ুন খালেদের বিভ্রান্তমুলক বক্ত্যব্যর প্রতিবাদে শ্রমিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ক্রিসেন্ট জুট মিলের সিবিএর সাধারণ সম্পাদক ও পরিষদের আহবায়ক মোঃ সোহরাব হোসেন। বক্তৃতা করেন কাওসার আলী মৃধা, খলিলুর রহমান, জাহিদ হোসেন জাহাঙ্গীর, জোনাব আলী, বেল্লাল হোসেন, আব্দুর রশিদ মোল্যা ,ইউনুস হাওলাদার, রুহুল কুদ্দুস, রিপন, চান মিয়া সেলিম, মোঃ বাচ্চু মিয়া, জাহাঙ্গীর হোসেন, হামিদ ফরুক, ইসমাইল হোসেন, বিপ্লবুর রহমান কুদ্দুস, আবুল কালাম জিয়া। শ্রমিক সমাবেশে নেতৃবৃন্দ পাট শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখার স্বার্থে মিলগুলোকে পূর্নাঙ্গ উৎপাদনমুখী করার জন্য পাটখাতে প্রয়োজনীয় অর্থ ছাড়, পাটপন্যের দেশীয় বাজার সুরক্ষা ও সম্প্রসারন করার জন্য প্রনীত আইন ২০০২ ও ম্যান্ডেটরী প্যাকেজিং  এ্যাক্ট ২০১০ অবিলম্বে বাস্তবায়ন, পে-কমিশনের ন্যায় অবিলম্বে রাষ্ট্রায়ত্ব শিল্পে শ্রমিকদের জন্য মজুরী কমিশন বোর্ড গঠন, ১লা জুলাই ২০১৩ ঘোষিত ২০% মহার্ঘ্য ভাতা প্রদান ও খালিশপুর, দৌলতপুর, জাতীয়, কর্নফুলী জুট মিলের শ্রমিকদের স্থায়ী করনের দাবিতে অবিলম্বে ৫দফা বাস্তবায়নের জন্য সরকারে প্রতি জোর আহবান জানান। পরে মিছিলটি দৌলতুপর মোড় ঘুরে বিএল কলেজ সড়ক হয়ে স্ব-স্ব মিল গেটে এসে প্রথম দিনের কর্মসুচি শেষ হয়। এদিকে সড়কের উপর বিক্ষোভ সমাবেশ চলাকালে খুলনা যশোর মহাসড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। অন্যদিকে অটরার ইর্ষ্টান জুটমিলে পরিষদের সদস্য সচিব এস,এম জাকির হোসেন ও সিবিএর সভাপতি মোঃ আলাউদ্দিনের নের্তৃত্বে, আলিম জুট মিল মজদুর ইউনিয়নের সভাপতি আঃ সালাম আঃ রশিদের নের্তৃত্বে, জেজেআই জুট মিলের সিবিএর সভাপতি মোঃ আহসান উল্লার নের্তৃত্বে এবং জাহিদুল ইসলাম ও আব্দুল ওহাবের নের্তৃত্বে কার্পেটিং জুট মিলের শ্রমিক-কর্মচারীরা অনুরুপ কর্মসুচি পালন করে ।
##