খুলনায় ক্ষতিকর জীবাণু সংক্রমণ ও বিস্তার রোধে জৈবনিরাপত্তার ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ


331 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
খুলনায় ক্ষতিকর জীবাণু সংক্রমণ ও বিস্তার রোধে জৈবনিরাপত্তার ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ
আগস্ট ৩, ২০১৫ খুলনা বিভাগ
Print Friendly, PDF & Email

ওয়াহেদ-উজ-জামান, খুলনা :
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান  দেশে যেখান থেকে রোগব্যধি নিরাময় হয়, চিহ্নিত হয় বা গবেষণা হয় এমন হাসপাতাল, ক্লিনিক, ডায়গনস্টিক সেন্টার, বা গবেষণাগার থেকে যাতে ক্ষতিকর জীবাণু সংক্রমিত না হয় বা বিস্তার লাভ না করতে পারে সেজন্য এসব স্থানে জৈবনিরাপত্তার বিষয়ে সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করার আহাবন জানিয়েছেন। তিনি আজ বেলা সাড়ে ১১টায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত প্রমোটিং বায়োসেফটি এন্ড বায়োসিকিউরিটি ইন বাংলাদেশ: সেনসিটাইজেশন এন্ড ট্রেনিং অন বায়োসেফটি শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখছিলেন। তিনি বলেন সচেতনতার অভাবে, ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃত অথবা দায়িত্বশীলতা ও জবাবদিহিতার অভাবে কিংবা ভুলক্রমে কলেরা, টাইফয়েড, যক্ষা, হেপাটাইটিস-বিসহ মারাত্মক সব রোগের জীবাণু কিংবা গবেষণাগারে সৃষ্ট অন্যান্য ক্ষতিকর জীবাণু ছড়িয়ে বা সংক্রমিত হয়ে সুস্থ্য মানুষকেও অসুস্থ করে তুলতে পারে এবং তা জীবনের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। এমন অনেক  প্রাণঘাতি রোগের হাত থেকে আমাদের পারিপার্শি¦ক পরিবেশ রক্ষা বা আমাদের সচেতন হওয়া প্রয়োজন। তাই যে সমস্ত স্থানে এগুলো নিয়ে কাজ করা হয় বা যারা কাজ করেন সেখানে যাতে জৈবনিরাপত্তার বিষয়ে যথাযথ গুরুত্বারোপ করা হয় সেজন্য ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরী। মাইক্রোঅর্গানিজম অতিসংবেদনশীল ও স্পর্শকাতর তাই এ ব্যাপারে আমাদেরকে সচেতন হতে হবে। কেবল হাসপাতাল বা ক্লিনিক নয় বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণাগারেও নানা ক্ষতিকর জীবাণু জন্মাতে পারে। বর্তমান সময়ে আমাদের দেশে সরকারী বেসরকারী পর্যায় অনেক হাসপাতাল, প্যাথলজি, ল্যাবরেটরি গড়ে উঠেছে। এসব স্থানে বায়োসেফটি তথা জৈবনিরাপত্তা নিশ্চিত না করা গেলে ভবিষ্যত পরিবেশ আরও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়তে পারে বলে তিনি আশংকা ব্যক্ত করেন। তিনি আয়োজিত এ কর্মশালা ও প্রশিক্ষণকে অত্যন্ত সময়োপযোগী বলে আখ্যায়িত করেন।
আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র (আইসিডিডিআরবি) এবং স্বাস্থ্য অধিদপÍরের কমিউনিকেবল ডিজিজেস, যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টা ভিত্তিক সেন্টার ফর ডিজিজেস কন্ট্রোল, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং বাংলাদেশ বায়োসেফটি এন্ড বায়োসিকিউরিটি এসোসিয়েশন যৌথভাবে এই কর্মশালা ও প্রশিক্ষণের আয়োজন করে।
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজি এন্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং ডিসিপ্লিনের প্রধান প্রফেসর ড. এস এম মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. শরীফ আকতারুজ্জামান, খুলনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আব্দুল্লাহ আল মাহবুব, যশোর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. এএইচএম মাহবুব উল মওলা চৌধুরী । স্বাগত বক্তব্য রাখেন আইসিডিডিআরবি’র সংশ্লিষ্ট বায়োসেফটি বিভাগের প্রতিনিধি ড. আসাদুল গণি। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন খুবির বিজিই ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. মোঃ মুরসালীন বিল্লাহ। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক গবেষকসহ চিকিৎসক ও সংশ্লিষ্ট বিভাগের অর্ধশত প্রতিনিধি এ   কর্মশালা ও প্রশিক্ষণে অংশ নিচ্ছেন। উদ্বোধন পর্বের পর প্রথমদিনে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে তিনটি নিবন্ধ উপস্থাপন এবং এর ওপর আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।