খুলনায় খান এ সবুরের নাম বাদ দিয়ে যশোর রোডের নাম বহাল রাখার দাবী ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির


342 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
খুলনায় খান এ সবুরের নাম বাদ দিয়ে যশোর রোডের নাম বহাল রাখার দাবী ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির
আগস্ট ৩০, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ওয়াহেদ-উজ-জামান, খুলনা : ১৯৮৩ সালে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের এক সভায় খুলনাবাসীর মতামত এর দিক চিন্তা না করে কেসিসি’র সাধারণ সভার মধ্যে দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহ্যবাহী যশোর রোডের নামের পরিবর্তে ‘৭১-এর মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর শীর্ষস্থানীয় দালাল ও যুদ্ধাপরাধী খান এ সবুর এর নামে সড়কটির নামকরন করা হয়। বিষয়টি মুক্তিযুদ্ধ ও খুলনাবাসীর প্রতি অবমাননাকর। নেতৃবৃন্দ বলেন , দ্বিতীয় দফা হাইকোর্টের আদেশে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়রকে কার্যকর করে মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক যশোর রোডকে তার স্বনামে বহাল করার আদেশ দিয়েছেন। সেই নির্দেশ পালন করতে হবে। নতুবা যে কোন পরিস্থিতির জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও খুলনা সিটি কর্পোরেশন দায়ী থাকবেন।-এভাবে বললেন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আয়োজনে মেয়রের সাথে মতবিনিময়কালে নেতৃবৃন্দ।

রোববার একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি খুলনার উদ্যোগে দ্বিতীয় দফা হাইকোর্টের আদেশ কার্যকর করে মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক যশোর রোডকে তার স্বনামে বহাল করার দাবিতে সকাল ১১টায় খুলনা সিটি কর্পোরেশন কার্যালয়ে  মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান নিকট মহামান্য হাইকোর্টের দ্বিতীয় দফা আদেশের অনুলিপি নেতৃবৃন্দ হস্তান্তর করেন। সংগঠনের সভাপতি শেখ বাহারুল আলম ও সাধারণ সম্পাদক মহেন্দ্র নাথ সেনের স্বাক্ষরিত আর একটি অবহিতকরণ অনুলিপিতে বলেন, ২০১২ সালের ১৩ মে বরেণ্য লেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক মুনতাসির মামুন বাদী হয়ে হাইকোর্টে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীদের নামে সড়ক, প্রতিষ্ঠানের নামকরণ করা কেন নিষিদ্ধ হবে না এই মর্মে রিটপিটিশন দাখিল করলে মহামন্য আদালত ২০১২ সালের ১৪ মে এক রুল নিশি জারী করে ।

আবার দ্বিতীয় দফায় বাদীর ২৫ আগষ্ট মহামান্য হাইকোর্ট এর নিকট আর একটি আবেদনের ভিত্তিতে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়রকে খানএসবুরের নাম পরিবর্তন কওে যশোর রোড রাখার আদেশ জারি করেন। যাতে উল্লেখ আছে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীদের নামে কোন সড়ক ও স্থাপনায় এদের নামকরন করা হয়েছে তা বাতিল করতে হবে । মতবিনিময়কালে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন মিন্টু, সাংবাদিক গৌরাঙ্গ নন্দী, কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য শ্যামল সিংহ রায়, জাসদের মহানগর কমিটির সভাপতি রফিকুল হক, সাধারণ সম্পাদক খালিদ হোসেন, সিপিবি’র জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক এসএ রশীদ, ওয়ার্কার্স পাটির সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য শেখ মফিদুল ইসলাম, সিপিবির নগর সভাপতি এইচ এম শাহাদৎ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আহবায়ক হুমায়ন কবির ববি, স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মল্লিক সরোয়ার, সঞ্চালন  পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সেলিম বুলবুল, সাংস্কৃতিক কর্মি আনোয়ার কবির সহ ছাত্রনেতৃবৃন্দ।