খুলনায় শিশু রাকিব হত্যা । আসামি বিউটি বেগমের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান


999 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
খুলনায় শিশু রাকিব হত্যা । আসামি বিউটি বেগমের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান
আগস্ট ৭, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

খুলনা ব্যুরো ঃ
খুলনায় পৈশাচিক নির্যাতনের শিকার শিশু রাকিব হত্যা মামলার অন্যতম আসামি বিউটি বেগম হত্যাকান্ডের সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে। শুক্রবার বিকেল সোয়া ৩টায় সে মহানগর হাকিম আয়শা আক্তার মৌসুমির আদালতে এ জবানবন্দি প্রদান করে। এতে সে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে বলে জানা গেছে।
এর আগে বৃহস্পতিবার আদালত থেকে খুলনা সদর থানায় আনার পর তাকে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়। শুক্রবার পর্যন্ত বেশ কয়েক দফা মামলার তদন্তে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের মুখোমুখি হন বিউটি বেগম। তদন্ত কর্মকর্তা ছাড়াও খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তারাও তাকে  পৃথক পৃথকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।
পুলিশের একটি সূত্র জানায়, রিমান্ডের প্রথম দিন বৃহস্পতিবার জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকান্ডে নিজের সম্পৃক্ত থাকার কথা এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন ঘাতক মোটরসাইকেল গ্যারেজ মালিক শরীফের মা বিউটি বেগম। ঘটনার সময় তিনি সেখানে উপস্থিত ছিলেন না বলেও বার বার দাবি করেন। পরে ঘটনাস্থলে গিয়েও তিনি কিছু দেখতে পাননি বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানান। তবে রিমান্ডের দ্বিতীয় দিন শুক্রবার জিজ্ঞাসাবাদে মুখ খোলেন তিনি। এ সময় তিনি হত্যাকান্ড সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ অনেক তথ্য দিয়েছেন। তবে তদন্তের স্বার্থে পুলিশের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা তা জানাতে অপরাগতা প্রকাশ করেন।
খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের ডেপুটি কমিশনার (দক্ষিণ) ও এ মামলা মনিটরিং কমিটির সুপার ভিশন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, শুক্রবার দ্বিতীয় দিনের জিজ্ঞাসাবাদে বিউটি বেগম হত্যাকান্ডে নিজের স¤পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। হত্যাকান্ড সম্পর্কেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ অনেক তথ্য দিয়েছেন। এছাড়া তিনি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদানে রাজি হলে বিকেল ৩টারদিকে তাকে মহানগর হাকিম আয়শা আক্তার মৌসুমির আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় তিনি হত্যাকান্ডের সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন- মর্মে স্বীকার করে জবানবন্দি প্রদান করে। স্বীকারোক্তি শেষে রিমান্ড শেষ হওয়ার একদিন আগেই তাকে খুলনা জেলা কারাগারে পাঠিয়ে দেয়া হয়। তবে মামলার তদন্তের স্বার্থে তিনি বিস্তারিত তথ্য জানাতে অপরাগতা প্রকাশ করেন।
এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে খুলনা মহানগর হাকিম ফারুক ইকবালের আদালতে বিউটি বেগমের রিমান্ড শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা খুলনা সদর থানার এসআই কাজী মোস্তাক আহমেদ আসামিকে ১০ দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন জানান। আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে তাকে সতর্কতার সঙ্গে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন। এ সময় বিউটি বেগমের পক্ষে কোনো আইনজীবী আদালতে দাঁড়াননি। মামলার অপর দুই আসামি গ্যারেজ মালিক শরীফ ও তার সহযোগী মিন্টু খান খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের প্রিজন সেলে চিকিৎসাধীন রয়েছে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই কাজী মোস্তাক আহমেদ জানান, তারা সুস্থ্য হলে তাদেরকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানানো হবে।
উল্লেখ্য, গত ৩ আগস্ট বিকালে মোটরসাইকেলের হাওয়া দেয়া কমপ্রেসার মেশিনের পাইপ শিশু রাকিবের পায়ুপথে ঢুকিয়ে তার পেটে হাওয়া দিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। এ হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে নগরীর টুটপাড়া সেন্ট্রাল রোডের মোটর সাইকেল গ্যারেজ শরীফ  মোটর্সের মালিক শরীফ, তার মা বিউটি বেগম এবং সহযোগী মিন্টু মিয়াকে ক্ষুব্ধ জনতা গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। এরমধ্যে বিউটি বেগমকে গত বৃহস্পতিবার থেকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। পৈশাচিকভাবে শিশু রাকিব হত্যায় বিক্ষোভে ফুঁসে উঠেছে খুলনার মানুষ। এ ঘটনায় জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে।