খুলনা বিএনপির সভাপতি মঞ্জু’র আত্মসমর্পন : কারাগারে প্রেরণ


283 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
খুলনা বিএনপির সভাপতি মঞ্জু’র আত্মসমর্পন : কারাগারে প্রেরণ
নভেম্বর ২৩, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ওয়াহেদ-উজ-জামান, খুলনা :
পুলিশের ওপর হামলা-মামলায় খুলনা মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু আত্মসমর্পন করেছেন। সোমবার সকাল সোয়া ১১টার দিকে তিনি খুলনা মহানগর হাকিমের আদালতে আত্মসমর্পন করে জামিনের আবেদন করেন। কিন্তু আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

এদিকে, বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম মঞ্জু আত্মসমর্পনকে কেন্দ্র করে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী আদালত এলাকায় জড়ো হন। পুলিশও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করে।

আদালতের সূত্র জানান, ২০১৩ সালের ২৬ নভেম্বর নগরীর পাওয়ার হাউজ মোড়ে বিএনপি’র কর্মসূচি চলাকালে পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এসআই অনুকুল চন্দ্র ঘোষ বাদী হয়ে দন্ডবিধি ও বিস্ফোরক আইনের ৩/৫ ধারা একটি মামলা দায়ের করেন।

তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আশরাফুল আলম নগর বিএনপি  সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু এবং সাধারণ সম্পাদক ও কেসিসি’র বরখাস্তকৃত মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনিসহ  ৫২ জনের বিরুদ্ধে  গত ৩০ এপ্রিল আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

রোববার আদালত এ মামলায় নজরুল ইসলাম মঞ্জুসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেন। এর আগে নগরীর পিটিআই মোড়ে ইজি বাইক ভাংচুর মামলায় গত ১৬ নভেম্বরও আদালত নজরুল ইসলাম মঞ্জু ও মনিরুজ্জামান মনিসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেন। এ নিয়ে দু’টি মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা মাথায় নিয়ে ফেরারী হন নগর বিএনপি’র এ দু’ শীর্ষ নেতা।

আসামি পক্ষের আইনজীবী এ্যাড. গোলাম মাওলা জানান, দু’টি মামলায় জামিনের জন্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু সোমবার সকাল সোয়া ১১টার দিকে খুলনা মহানগর হাকিমের আদালতে (১) আত্মসমর্পন  করেন। কিন্তু আদালতের বিচারক মো. আমিরুল ইসলাম ইজি বাইক ভাংচুর মামলায় জামিন দিলেও পুলিশের ওপর হামলার মামলায় জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

মঞ্জুর পক্ষে জামিন শুনানীকালে সিনিয়র আইনজীবী এ্যাড. আব্দুল মালেক, মঞ্জুর আহমেদ, গোলাম মাওলা, সরদার ইউনুস, মোমরেজুল ইসলাম, মোল্লা মাসুম রশিদ, মাসুদ হোসেন রনি, আব্দুস সবুর, নূরুল হাসান রুবাসহ শতাধিক আইনজীবী আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম মঞ্জু আত্মসমর্পনকে কেন্দ্র করে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী আদালত এলাকায় জড়ো হন। পুলিশও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করে।