খড়িয়াডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ভারতে গেলেন ভোট দিতে !


262 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
খড়িয়াডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ভারতে গেলেন ভোট দিতে !
এপ্রিল ২৭, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

বিশেষ প্রতিনিধি :
সাতক্ষীরা সদর উপজেলার খড়িয়াডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দীপক কুমার রায় বাংলাদেশ এবং ভারতের যৌথ ভোটার হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২৫ এপ্রিল সোমবার থেকে তিনি তিন দিনের ছুটি নিয়ে বিভাগীয় অনুমতি ছাড়া পরিচয় গোপন করে ভারতে অবস্থান করে উত্তর চব্বিশ পরগোনার গাইগাটা থানার গোবরডাঙ্গা কেন্দ্রে ভোট প্রয়োগ করেছেন বলেন নিশ্চিত করেছে বিদ্যালয় পরিচালান কমিটির অনেকে।

খড়িয়াডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সরেজমিনে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের তিন জন শিক্ষকের মধ্যে একজন শিক্ষক উপস্থিত আছেন। প্রধান শিক্ষকসহ বাকি দুই জন বিভিন্ন মেয়াদে ছুটিতে আছেন। এর মধ্যে প্রধান শিক্ষক দীপক কুমার রায় ২৫ এপ্রিল থেকে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত তিন দিনের নৈমেত্তিক ছুটি মঞ্জুর করেছেন সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সন্দীপ কুমার। ২৫ এপ্রিল থেকে ছুটি মঞ্জুর করলেও প্রধান শিক্ষক দীপক কুমার রায় ২৪ এপ্রিল দুপুর পর ভোমরা বন্দর দিয়ে পরিচয় গোপন কৃত পাসপোর্টের মাধ্যমে ভারতে জান তার নিজ বাড়ি উত্তর চব্বিশ পরগোনার গাইগাটা থানার গোবরডাঙ্গায়। ২৫ এপ্রিল সোমবার উত্তর চব্বিশ পরগোনার গাইগাটা থানার গোবরডাঙ্গা কেন্দ্রে ভোট প্রয়োগ করেছেন। ২৭ এপ্রিল তিনি দেশে ফিরে এসেছেন।

এদিকে, একই সাথে তিনি সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ধুলিহর ইউনিয়েন মাটিয়াডাঙ্গা-খড়িয়াডাঙ্গা ওয়ার্ডের ভোটার।

এ বিষয়ে তার কন্যা রেশমা রায় বিদ্যালয়ের উপস্থিত অনেকের সামনে তারা বাবা ভারতে ভোট দিতে ২৪ এপ্রিল দুপুরে দেশ ত্যাগ করেছে বলেন জানান। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য সম্ভুনাথ মন্ডল ও এলাকার অন্যনা দের সাথে কথা বললে বিষয়টি নিশ্চিত করে তারা জানান, তিনি ছুটি নিয়ে ভারতে গেছেন এটা আমরা জানি। তিনি ভারতের ভোটার  সেটাও আমার জানি। তবে তিনি বিভাগীয় অনুমতি নিয়েছেন কিনা তা বলতে পারবো না।

এ বিষয়ে খড়িয়াডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দীপক কুমার রায়ের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি মোবাইল রিসিভ করে সাংবাদিক পরিচয় জানার পর মোবাইল কেটে দিয়ে বন্ধ করে রাখেন।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ক্লাস্টারের সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রাজু ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, দুই দেশে ভোটার থাকার কোন সুযোগ নেই। উক্ত শিক্ষকে বিভিন্ন বিষয়ে আগে কয়েকবার তাকে সতর্ক করা হয়েছে। যদি সে এবারও বিনা অনুমতিতে ভারতে যায় এবং দুই দেশের ভোটার হওয়ার সত্যতা পাওয়া যায় তাহলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।  ##