গুজরাটের গুলবার্গ গণহত্যায় ২৪ জন দোষী, বেকসুর খালাস ৩৬


358 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
গুজরাটের গুলবার্গ গণহত্যায় ২৪ জন দোষী, বেকসুর খালাস ৩৬
জুন ২, ২০১৬ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

আনলাইন ডেস্ক :
গুজরাটের গুলবার্গ গণহত্যা মামলায় ২৪ জনকে দোষী সাব্যস্ত করলেন আমেদাবাদের একটি বিশেষ আদালত। এরমধ্যে গণহত্যায় প্রত্যক্ষভাবে মদদ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে ১১ জনের বিরুদ্ধে, বাকি ১৩ জনের বিরুদ্ধে অপরাধের মাত্রা কিছুটা কম। অন্যদিকে ৩৬ জনকে এই মামলা থেকে রেহাই দেওয়া হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছেন এই মামলার অন্যতম অভিযুক্ত অসরভা আসনের চারবারের বিজেপি কর্পোরেটর বিপিন পাল এবং পুলিশ ইন্সপেক্টর কে জি এর্দা।

বৃহস্পতিবার আমেদাবাদের বিশেষ আদালতের বিচারক পি বি দেশাই এই রায় দেন। আগামী ৬ জুন দোষীদের সাজা ঘোষণা করবেন আদালত।

প্রসঙ্গত, ২০০২ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি গুজরাট দাঙ্গার পরবর্তী সময় আমেদাবাদের গুলবার্গ হাউসিং সোসাইটিতে হামলা চালায় একদল উন্মত্ত জনতা। হামলা চালানো হয় ওই হাউজিং-এ বসবাসকারী ২০ হাজার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের ওপর। অগ্নিসংযোগ ঘটানো হয় ওই আবাসনের বেশিরভাগ বাসাতেই। গণহত্যায় নিহত হন সাবেক কংগ্রেস সংসদ সদস্য এহসান জাফরি সহ ৬৯ জন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষ। তাঁদের জীবন্ত পুড়িয়ে মারা হয় বলে অভিযোগ। ওই ঘটনায় গুজরাটের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন এহসান জাফরির স্ত্রী জাকিয়া জাফরি। আমেদাবাদের বেশ কয়েকজন বিজেপি নেতা, পুলিস অফিসার ও সচিবের বিরুদ্ধেও সেসময় অভিযোগ দায়ের করেন তিনি। জাকিয়ার আবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তদন্তে নামে গুজরাট দাঙ্গার বিশেষ তদন্তকারী দল (সিট)। তদন্তে নেমে ৬৬ জনকে অভিযুক্ত করে সিট। এদের মধ্যে ৯ জন গত ১৪ বছর ধরে কারাগারে বন্দি রয়েছেন। বাকিরা জামিনে মুক্ত।

অবশেষে ১৪ বছর পর বহু আলোচিত গুলবার্গ সোসাইটি গণহত্যা মামলার রায় দিল আদালত। ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে এই মামলার শুনানি শেষ হলেও কোন বিশেষ কারণে মামলার রায় স্থগিত রাখা হয়।