চরামুখার রিংবাঁধ ভেঙ্গে ৩ গ্রাম প্লাবিত


163 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
চরামুখার রিংবাঁধ ভেঙ্গে ৩ গ্রাম প্লাবিত
আগস্ট ১৪, ২০২২ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

শেখ মনিরুজ্জামান মনু ::

খুলনার কয়রা উপজেলার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের চরামুখা গ্রামের রিংবাধ ভেঙ্গেই গেল। নদীতে অস্বাভিক পানি বৃদ্ধি পাওয়াতে গত ১৪ আগস্ট বেলা ২ টার দিকে ১৫০ মিটার এলাকা ভেঙ্গে গেছে। অনেক চেষ্টা করেও শেষ রক্ষা হলোনা। এতে ৩ টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। জানা গেছে,কপোতাক্ষ নদের বেড়িবাঁধ গত ১৭ জুলাই ভোর রাতে ভাটার টানে ভেঙে যায়। ১৮ জুলাই হাজার হাজার মানুষ স্বেচ্ছাশ্রমে রিংবাঁধ দিয়ে পানি আটকাতে সক্ষম হন। কিন্তু এক মাস অতিবাহিত হলেও পানি উন্নয়ন বোর্ড ওই স্থানে তেমন কোন কাজ না করায় জোয়ারের পানির চাপে গত ১৩ আগস্ট(শনিবার) দুপুরে রিংবাঁধ ভেঙে পুনরায় প্লাবিত হয় বিস্তীর্ণ জনপদ। এলাকবাসী স্বেচ্ছাশ্রমে ফের পানি আটকাতে সক্ষম হলেও পরের দিন ১৪ জুলাই রিংবাধ ভেঙ্গে তিনটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। দক্ষিণ বেদকাশী স্বাধীন সমাজকল্যাণ সংস্থার সভাপতি মোঃ আবু সাঈদ খান বলেন,পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) গাফিলতির কারণে এ রিংবাঁধ আবারও ভেঙেগেছে। তিনি আরও বলেন, দক্ষিণ বেদকাশীর চরামুখা এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৫০ মিটার রিংবাঁধ শনিবার (দুপুরের জোয়ারে ভেঙে যায়। পরে স্বোচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে রিংবাধটি আটকানো হলেও ১৪ আগস্ট দুপুরে আবারও ভেঙ্গে ৩টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। তিনি ইউনিয়নের মানুষকে লোনাপানির হাত থেকে মুক্ত করার জন্য পাউবোসহ সংশ্লিষ্ট সবার দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেন। দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ওসমান গনি বলেন, রবিবার(১৪) আগস্ট দুপুরের দিকে জোয়ারের সময় আবারও বেড়িবাঁধ ভেঙে ওই এলাকায় লবণ পানি প্রবেশ করেছে। তিনি জানান, গত ১৭ জুলাই পানিউন্নয়ন বোর্ডের যে বেড়িবাঁধ ভেঙে ছিল তার পাশ থেকেই এবার ভেঙেছে। দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আছের আলী মোড়ল বলেন,গত কয়েক দিনের বৃষ্টি ফলে রিংবাঁধ দুর্বল হয়ে পড়ে। যার ফলে জোয়ারের চাপে রিংবাঁধটি ভেঙে যায়।এলাকাবাসী পানি উন্নয়ন বোর্ডের দিকে না তাকিয়ে নিজেদের রক্ষার্থে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দুই ঘন্টার স্বেচ্ছাশ্রমে পানি আটকাতে সক্ষম হয়েছে। সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ শাহনেওয়াজ তালুকদার বলেন,রিংবাঁধ পুনরায় মাটি দিয়ে নির্মানের জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিকে বলা হয়েছে।গত কয়েক দিন ধরে বৃষ্টি হওয়ার কারণে রিংবাঁধটি দুর্বল হয়ে পড়ে।

#