চাঁপাইনবাবগঞ্জে গণপিটুনিতে ৪ ডাকাত নিহতের ঘটনায় মামলা


275 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
চাঁপাইনবাবগঞ্জে গণপিটুনিতে ৪ ডাকাত নিহতের ঘটনায় মামলা
আগস্ট ২০, ২০১৫ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকম ডেস্ক :
চাঁপাই নবাবগঞ্জ: চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের নামোকাঞ্চনতলায় বুধবার সন্ধ্যায় গণপিটুনিতে ডাকাত সর্দার রাব্বানীসহ চারজন নিহতের ঘটনায় তিনটি মামলা হয়েছে।

বুধবার (১৯ আগস্ট) রাতেই পুলিশ বাদী হয়ে মামলাগুলো দায়ের করে।

নিহতরা হলেন-শিবগঞ্জ উপজেলার মির্জাপুর কর্ণখালি গ্রামের মো. বজলুর ছেলে ডাকাত সর্দার রাব্বানী (৩৫), ভোলাহাট আদমপুর এলাকার শফিকুল ইসলামের ছেলে টুটুল, শিবগঞ্জ উপজেলার কর্ণখালি মির্জাপুর গ্রামের আতাবুল ইসলাম। তবে নিহত অন্য একজনের পরিচয় পাওয়া যায়নি। নিহতরা সবাই শিবগঞ্জ ও ভোলাহাট উপজেলার বাসিন্দা বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

এদিকে ঘটনার পর এলাকায় আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ করেছে এলাকাবাসী।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুলিশ সুপার বশির আহমেদ  জানান, নিহত রাব্বানীর বিরুদ্ধে চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী ও নওগাঁ জেলায় নয়টি ডাকাতির মামলা ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে আরো দু’টি হত্যা মামলা রয়েছে।

তিনি আরো জানান, জেলার বিভিন্ন সড়কে মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনার হোতা ছিলেন এই রাব্বানী।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল মামুন রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এলাকাবাসীকে অভয় দিয়েছেন এবং ওই এলাকায় পুলিশের টহল জোরদার করেছেন।

গোমস্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ আহম্মেদ জানান, গোমস্তাপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সাইদুল ইসলামসহ আরো দুই এসআই বাদী হয়ে ডাকাতি, অবৈধ অস্ত্র ও অপরাধজনিত ঘটনায় বুধবার রাতেই তিনটি মামলা দায়ের করেছেন। এতে অজ্ঞাত ১০/১২ জনকে আসামি করা হয়েছে। নিহতদের মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য বৃহস্পতিবার সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার মর্গে পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, বুধবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে গোমস্তাপুর-ভোলাহাট সড়কের নামোকাঞ্চনতলায় মকরমপুর ব্রিজের কাছে ধারালো অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে ডাকাতির প্রস্তুতির সময় এলাকাবাসী চার ডাকাতকে ধরে ফেলে। এ সময় তারা ওই চারজনকে গণপিটুনি দেয়। এতে রাব্বানী নামের একজন ঘটনাস্থলেই মারা যায়। খবর পেয়ে আহত তিনজনকে উদ্ধার করে গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে পুলিশ। সেখানে এই তিনজনকে মৃত ঘোষণো করেন চিকিৎসকরা।

ওসি ফিরোজ আহম্মেদ জানান, নিহত চারজনই ডাকাত দলের সদস্য। তাদের কাছ থেকে ধারালো অস্ত্র, রশিসহ ডাকাতির বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।—সুত্র বাংলানিউজ।