চিকিৎসার অভাবে তালার সাংবাদিক আব্দুস সালাম’র মৃত্যু : করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ


283 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
চিকিৎসার অভাবে তালার সাংবাদিক আব্দুস সালাম’র মৃত্যু : করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ
মে ৩, ২০২০ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বি. এম. জুলফিকার রায়হান ::

আমার ছেলের জন্ডিস হয়েছিল, রাতে দু-তিনবার বমি করে, সর্দি-কাশি তো মোটেও হয়নি, তাহলে কেন ডাক্তার আমার ছেলেকে দেখল না, কেন হাসপাতালের বেডে ঠাই হলোনা। ৮/৯ ঘন্টা হাসপাতালের মেঝেতে পড়ে থাকলেও কোনও ডাক্তার আমার ছেলেকে দেখতে আসেনি। হাসপাতালের নার্সরা অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করে আমার ছেলেকে তাড়িয়ে দেয়। আমরা আসতে না চাওয়ায় নার্সরা আমাকে মারতে আসে- কথা গুলো বলেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে তালার তরুন সাংবাদিক আব্দুস সালামের বৃদ্ধা মা নবীজান বেগম। রোববার ৩ মে বিকালে তালার কর্মরত কয়েকজন সাংবাদিক প্রয়াত তরুণ সাংবাদিক আব্দুস সালাম (২৬)এর বাড়ীতে গেলে ছালামের মা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

এসময় সালামের পিতা লতিফ মোড়ল আক্ষেপ করে বলেন, ছেলের মৃত্যুর পর লোকজনকে জানাযা নামাজের জন্য আমাদের বাড়ীতে আসতে বাধা দিয়েছে এলাকার একটি মহল। তারা গত ৪ দিন আমাদের বাড়ী থেকে বের হতে দিচ্ছে না। দোকান-পাটে গেলে কেউ আমাদের কাছে কিছু বেচতেও চাচ্ছেনা লোকজন আমাদের তাড়িয়ে দিচ্ছে। কি অপরাধ আমাদের! গত ৪ দিন না খেয়ে গ্যাছে, এখন রিপোর্ট এ আমার ছেলের তো করোনা ধরা পড়েনি, আজ ফ্লাগ তুলে নিয়ে গেলো। একদিন কেউ আসেনি, তোমাদের সাথেই তো ছালাম থাকতো, আমি কি ওকে জন্ম দিয়ে পাপ করেছিলাম? খুব কষ্ট করে শ্রমখেটে ছেলেটাকে বি.এ পাশ করিয়েছিলাম। আশা ছিল চাকুরী করবে, সংসারের হাল ধরবে, আমাদের কষ্ট ঘুচবে। কিন্তু আজ ছেলেও গেল বিনা চিকিৎসায়, আর সমাজে আমরা এক ঘরে হয়ে গেলাম। যারা করোনা হয়েছে বলছিল, তাদের এখন তোমরা কি করবা? এসময় সাংবাদিকরা তাদের শান্তনা দেন এবং কিছু খাদ্য সহায়তা ছালোমের পিতার হাতে তুলে দেন।
উল্লেখ্য, গত ২৯ এপ্রিল বিকাল সাড়ে ৫ টায় লিভার সিরোসিস (জন্ডিস) রোগে আক্রান্ত হয়ে এক প্রকার বিনা চিকিৎসায় মারা যান তালা উপজেলার বারুইহাটি গ্রামের সিরাজ মোড়লের পুত্র আব্দুস সালাম (২৬)। সে তালা রিপোর্টার্স ক্লাবের সহযোগী সদস্য ছিল এবং দৈনিক আমার প্রাণের বাংলাদেশ পত্রিকায় তালা উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত ছিল।
তালা হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার রাজীব সরদার জানান, করোনা সন্দেহে তালা হাসপাতালের ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি টিম তার নমুনা সংগ্রহ করে। এরপর তা ঢাকায় প্রেরণ করা হলে শনিবার রাতে সালামের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।
এদিকে, সালাম’র অসুস্থ্যতা এবং মৃত্যু পরবর্তীতে তালার সাংবাদিকরা সহ পরিবারের পক্ষ থেকে সালামের লিভার সিরোসিস সহ অন্যান্য অসুখের কথা বলা হলেও তালা হাসপাতালের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. রাজিব সরদার’র বরাত দিয়ে সাতক্ষীরার কতিপয় সাংবাদিক করোনা উপসর্গ রয়েছে- এমন অপপ্রচার চালায়। এরসাথে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের ডাক্তাররা সাংবাদিক সালাম’র চিকিৎসা সেবা না দেয়ায় বিনা চিকিৎসা এবং গ্লানি ও অবহেলার মাঝে তার মৃত্যু সহ দাফন হয়। এঘটনার পর থেকে তালার সাংবাদিক সমাজ ও এলাকার সাধারন মানুষের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

#