চোখের সামনেই ট্রাকে পিষ্ট স্ত্রী-সন্তান !


503 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
চোখের সামনেই ট্রাকে পিষ্ট স্ত্রী-সন্তান !
নভেম্বর ২৪, ২০১৮ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন শেখ রাসেল ক্লাবের ফুটবলার সোহেল রানা। পরিবারের সঙ্গে সময় কাটিয়ে শখের মোটর সাইকেলে তিন বছরের ছেলে ও স্ত্রীকে চড়িয়ে বাসায় ফেরার পথে দুর্ঘনার কবলে পড়েন তারা। চোখের সামনেই স্ত্রী-সন্তানকে ট্রাকের নিচে পিষ্ট হতে দেখলেন তিনি!

শনিবার দুপুরে সাভারে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের নায়ার হাট এলাকায় কহিনুর গেটের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই মারা যান সোহেলের স্ত্রী তাসলিমা আফরিন ঝুমা। স্থানীয় লোকজন দ্রুত গুরুতর অবস্থায় তিন বছরের ছেলে আব্দুল্লাহ আফনান এবং তাকে গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশু আব্দুল্লাহকে মৃত ঘোষণ করেন।

চোখের সামনে স্ত্রী-সন্তানের এমন মৃত্যু সহ্য করতে না পেরে আবোল-তাবোল বকছেন সোহেল রানা। তিনি অনেকটাই মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলছেন বলে জানান তার চাচতো ভাই মুকুল হোসেন।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শনিবার সকালে দিকে মানিকগঞ্জের শিবালয় থেকে স্ত্রী ও তিন বছরের পুত্র সন্তানকে নিয়ে ঢাকায় যাচ্ছিলেন শেখ রাসেল ক্লাবের ফুটবলার সোহেল রানা। দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে মোটরসাইকেলে তারা ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের নয়ারহাট এলাকায় পৌঁছালে পেছন থেকে আসা দ্রুত গতির একটি ট্রাক তাদেরকে চাপা দেয়।

এসময় ঘটনাস্থলেই মারা যান মোটরসাইকেল আরোহী মা তাসলিমা আফরিন ঝুমা (২২); গুরুতর অবস্থায় তিন বছরের ছেলে আব্দুল্লাহ আফনান এবং বাবা সোহেল রানাকে গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশু আব্দুল্লাহকেও মৃত ঘোষণা করেন।

সোহেল রানা মানিকগঞ্জের শিবালয় থানার সাকরাইল গ্রামের আমির হোসেনের ছেলে।

এদিকে সড়ক দুর্ঘটনার খবর পেয়ে আশুলিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও ঘাতক ট্রাক কিংবা চালককে আটক করতে পারেনি।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) এমদাদ হোসেন জানান, মরদেহগুলো উদ্ধার করে থানায় আনা হলেও লিখিত আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিনা ময়না তদন্তে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আশুলিয়া থানায় একটি মামলা করে ঘাতক ট্রাক এবং চালককে আটকের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।