ছাগলের চামড়া ফ্রি !


222 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ছাগলের চামড়া ফ্রি !
আগস্ট ১, ২০২০ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক
এবার এক কোটি পশু জবাই হলে এর প্রায় অর্ধেক ছাগল। তবে এই ছাগলের চামড়ার দর মেলেনি। এ অবস্থায় অনেক বিক্রেতা আড়তে ও ট্যানারি মালিকদের চামড়া ফ্রি দিয়ে এসেছেন। আবার কোনো কোনো আড়তদার চায়ের পয়সা দিয়ে চামড়া নিয়েছেন। এবারও গরুর চামড়ার দর বিপর্যয়ের কারণে ছাগলের চামড়ার করুণ পরিণতি হয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

মিরপুরের টোলারবাগের বাসিন্দা নাসির উদ্দিন শনিবার ঈদের দিন বিকেলে তিনটি খাসি জবাই করেন। কোনো ক্রেতা না আসায় শেষ পর্যন্ত খাসিগুলোর চামড়া মাদ্রাসার ছাত্রদের দিতে চান। তখন ছাত্ররা তাকে জানান, চামড়া নিলে উল্টো পকেটের টাকা খরচ করে গাড়িভাড়া দিয়ে আড়তে ফ্রি দিয়ে আসতে হবে।

বাস্তবেও সে অবস্থা দেখা গেল শনিবার বিকেলে ধানমন্ডিতে চামড়া কেনাবেচাকালে। সেখানে চামড়া কিনছেন ট্যানারির প্রতিনিধি মো. আপন মিয়া। তিনি বলেন, ছোট গরুর চামড়া কিনেছেন দেড়শ’ টাকায়। আর ছাগলের চামড়া কিনে কী করবেন। গরুর চামড়ার সঙ্গে অনেকে ছাগলের চামড়া যারা নিয়ে এসেছেন, তারা ফ্রি দিয়ে গেছেন।

প্রায় একই অবস্থা দেখা গেল লালবাগের পোস্তার আড়তে ঢোকার পথে। রাস্তার পাশে চামড়া কিনছেন আড়তদাররা। সেখানে বেশিরভাগ গরুর চামড়া। ছাগলের চামড়া নেই বললেই চলে। দু’একজন আড়তদারের কাছে গরুর চামড়ার সঙ্গে অল্প কিছু ছাগলের চামড়া দেখা গেছে।

পোস্তার আড়তদার শফিকুর রহমান বলেন, একজন গরুর চামড়ার সঙ্গে ৪ পিস ছাগলের চামড়া নিয়ে এসেছে। তারা ওই বিক্রেতার কাছ থেকে ছাগলের চামড়া কিনতে অপারগতা জানান। তারপরও তিনি চামড়া রেখে যেতে চাইলে ৪টি চামড়ায় ১০ টাকা দেওয়ার কথা বলেন। পরে ১০ টাকা নিয়েই চামড়া রেখে যান ওই ব্যক্তি। এর ফলে ছাগলের চামড়া বিক্রিতে খরচ ওঠা দূরের কথা চায়ের দামও হয়নি। ফুটপাতে এখন এক কাপ চা খেতে ৫ টাকা লাগে। আর একটি চামড়ার দাম পড়েছে মাত্র আড়াই টাকা। ছাগলের চামড়ার এমন করুণ পরিণতি গত দুই বছর ধরেই চলছে।

তবে শনিবার সকাল ১০টার পরে প্রতিটি ছাগলের চামড়া ১০ থেকে ৪০ টাকা পর্যন্ত দামে বেচাকেনা হয়। কিন্তু দুপুরের পরে দামে এমন করুণ পরিণতি দেখা গেছে। অথচ আন্তর্জাতিক বাজারে দর পতন এবং করোনা ও বন্যা দুর্যোগের কারণে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা করে এবার কমিয়ে দর নির্ধারণ করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। প্রতি বর্গফুট খাসির চামড়ার দর নির্ধারণ করা হয়েছিল ১৩ থেকে ১৫ টাকা ও বকরির চামড়া ১০ থেকে ১২ টাকা। এ হিসেবে প্রতিটি ছাগলের চামড়া গড়ে ৪ বর্গফুট হলেও ৪০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হওয়ার কথা।

ছাগলের চামড়ার মতো একই অবস্থা গরুর মাথার চামড়ার। নির্ধারিত দর হিসেবে ঢাকায় প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। একটি মাথার চামড়ায় ৪ বর্গফুট হিসাবে ন্যূনতম দরে ১৪০ টাকায় বিক্রি হওয়ার কথা। কিন্তু মাথার চামড়ার কোনো দর মেলেনি। লালবাগের পোস্তার আড়তে মাথার চামড়া ফেলে রেখে গেছেন অনেক বিক্রেতা। মাথার চামড়ার কদর এতটাই কম যে ফেলে রেখে যাওয়া চামড়া নিয়ে লবণ পর্যন্ত দেয়নি আড়তদাররা। পোস্তায় কর্মরত শ্রমিকরা বলেন, চামড়ার এমন করুণ পরিণতি ঘটানোর খেসারত দিতে হবে ট্যানারি মালিকদের।