ছাত্রলীগের জাতীয় সম্মেলন শুরু


482 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ছাত্রলীগের জাতীয় সম্মেলন শুরু
মে ১১, ২০১৮ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

 

অনলাইন ডেস্ক :

শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে ছাত্রলীগের সম্মেলনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা— ফোকাস বাংলা

স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধসহ সব গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামের ইতিহাসের সঙ্গে অবিচ্ছেদ্য এক সংগঠনের নাম ছাত্রলীগ। শুক্রবার বিকেল ৪ টার দিকে দেশের সর্ববৃহৎ ও ঐতিহ্যবাহী এই ছাত্র সংগঠনের ২৯তম জাতীয় সম্মেলন শুরু হয়েছে।

রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে দু’দিনের এই সম্মেলনের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

সংগঠনের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করছেন সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন।

জাতীয় সম্মেলনের মধ্য দিয়ে নির্বাচিত হবে সংগঠনের আগামীর নেতৃত্ব। তবে বরাবরের মতো এবার প্রত্যক্ষ ভোটে নেতৃত্ব নির্বাচন না করার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণার পর দৃশ্যপট অনেকটাই পাল্টে গেছে। ভোটপর্ব না থাকায় সম্মেলন কার্যক্রম কাউন্সিল অধিবেশন পর্যন্ত না-ও গড়াতে পারে।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী জাতীয় সম্মেলন শেষ হওয়ার পর যোগ্যতার ভিত্তিতে পারিবারিক ব্যাকগ্রাউন্ড ও মেধা বিবেচনায় নিয়ে সিলেকশন পদ্ধতিতে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হবে। কেন্দ্রীয় কমিটির পাশাপাশি সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ তিন ইউনিট ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা কমিটিও একই নিয়মে ও একসঙ্গে হবে বলেও জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে ছাত্রলীগের সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০১৫ সালের ২৬ ও ২৭ জুলাই। সম্মেলনে প্রত্যক্ষ ভোটে ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসেন সাইফুর রহমান সোহাগ ও এস এম জাকির হোসাইন। দুই বছর মেয়াদি এই কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার কয়েক মাস পর প্রধানমন্ত্রীসহ দলের কেন্দ্রীয় নীতিনির্ধারকদের নির্দেশে চলতি বছরের ৩১ মার্চ পরবর্তী জাতীয় সম্মেলনের তারিখ নির্ধারিত হয়েছিল। তবে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সেই দফায় সম্মেলন স্থগিত করা হয়। পরে ৩১ মার্চ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী রমজানের আগেই ছাত্রলীগের সম্মেলন করে ফেলার নির্দেশ দিলে ১১ ও ১২ মে তারিখ নির্ধারণ করা হয়। সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটি ৫ এপ্রিল সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সম্মেলনের তারিখ ঘোষণার পাশাপাশি সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি, নির্বাচন কমিশন ও ১৫টি উপকমিটি গঠন করে।