ছেলেদের চুলের যত্নের বৃত্তান্ত


156 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ছেলেদের চুলের যত্নের বৃত্তান্ত
নভেম্বর ১, ২০২২ ফটো গ্যালারি স্বাস্থ্য
Print Friendly, PDF & Email

অনেকেই ভাবেন ছেলেদের চুলের যত্নের তেমন দরকার নেই। তবে কথাটি আর সত্য নয়। সুন্দর চুলের অধিকারী হওয়ার জন্য পুরুষদেরও খানিকটা কষ্ট করতে হয়। চুলে নিয়মিত তেল দেওয়া, চুল শ্যাম্পু করা, কন্ডিশনিং করা খুবই জরুরি কাজ।

ছেলেদের চুলের যত্নে শ্যাম্পুই শেষ কথা নয়। সুন্দর ও মসৃণ চুল পেতে চুলের পুষ্টি এবং চাহিদা পূরণ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে সঠিক পরামর্শ দিয়ে থাকেন বিউটি স্যালনের এক্সপার্টরা। আবার স্যালনের চেয়ে উন্নত ট্রিটমেন্ট পেতে চাইলে যেতে হবে বিউটি ক্লিনিকে। কেননা, বিউটি ক্লিনিকের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এক্সপার্ট আপনার সমস্যা বুঝে সঠিক সমাধান দেবেন। এখন বিউটি স্যালনগুলো চুল পড়া, খুশকি, স্ক্যাল্প অ্যালার্জি, অতিরিক্ত তৈলাক্ততা সব ধরনের সমস্যার সমাধান দিয়ে থাকে। এ ছাড়া যারা হেয়ার কালার এবং হেয়ার স্ট্রেইট করিয়েছেন তাদের জন্যও বিউটি ক্লিনিকের এক্সপার্টরা নানা ট্রিটমেন্ট দিয়ে থাকেন। এমনকি শুষ্ক, রুক্ষ এবং ভেঙে পড়া সমস্যার সমাধানও দিয়ে থাকে এসব বিউটি স্যালন ও বিউটি ক্লিনিকগুলোয়। চুলের স্বাস্থ্য কিন্তু অনেকাংশেই নির্ভর করে শারীরিক সুস্থতার ওপর। তাই খেয়াল রাখুন আপনার শরীরের দিকেও। নিয়মিত ব্যায়াম, ডায়েট, পর্যাপ্ত ঘুম, প্রচুর পানি পান পরোক্ষভাবে চুলের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি মাসে একবার হেয়ার স্পা করাতে পারেন। চুলের স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। চুলে কোনো সমস্যা হলে দ্রুত সমাধান করিয়ে নেওয়া উচিত। বিশেষজ্ঞদের মতে, সমস্যার সমাধান না করলে একটি থেকে আরেকটি সমস্যা সৃষ্টি হয়ে থাকে। ট্রিটমেন্ট চলাকালীন বিউটি এক্সপার্টরা যে নিয়ম বেঁধে দেন তাই মেনে চলা উচিত। এসব ট্রিটমেন্টকে বলা হয় হোম কেয়ার বা হোম ট্রিটমেন্ট।
► মাথায় তেল লাগানোর সময় বা শ্যাম্পু করার সময় আঙ্গুল দিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ম্যাসাজ করতে হবে। এতে মাথার ত্বকের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে। এ ছাড়া মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়াবেন।

► ছোট চুলে বেশি ময়লা হয় না আর সপ্তাহে এক দিন শ্যাম্পু করলেই যথেষ্ট বা ছেলেদের চুলে কন্ডিশনারের প্রয়োজন নেই এমন ধারণা পাল্টে ফেলুন। একদিন পর পর শ্যাম্পু করা ভালো। যারা ধুলোবালিতে যাতায়াত করেন তারা প্রতিদিন শ্যাম্পু করুন। কন্ডিশনার যেন চুলের গোড়া ও মাথার ত্বকে না লেগে থাকে সেটাও খেয়াল রাখবেন। তবে শ্যাম্পু, কন্ডিশনার ইত্যাদি চুলের ধরন অনুযায়ী বাছুন।

► শ্যাম্পু করার আগে নারিকেল তেল দিয়ে মাথার স্ক্যাল্প ভালোভাবে ম্যাসাজ করে নিতে পারেন। এতে মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বাড়বে এবং খুশকি দূর হবে। এমনকি মাথার স্ক্যাল্প থেকে জমে থাকা ধুলোবালিও বেরিয়ে আসবে।

► অনেকেই গোসলের পর তোয়ালে দিয়ে ঘষে ঘষে চুল মুছে থাকেন। এতে চুলের ক্ষতি হয়। তোয়ালে দিয়ে মাথা মুছুন। কিন্তু জোরে না। আলতো হাতে চুলের গ্রোথ যেদিকে সেদিকে মুছুন।

► যাদের মাথায় খুব বেশি অ্যালার্জির সমস্যা তারা ঘরোয়া প্যাক ট্রাই করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে নিমপাতা ভালোভাবে পেস্ট করে টকদইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে মাথার স্ক্যাল্পে লাগিয়ে আধা ঘণ্টা রেখে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে নিন।

লিখেছেন : শোভন সাহা [কসমোলজিস্ট]