ছয় মাসে ৪৯৬ শিশু ধর্ষণ


113 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ছয় মাসে ৪৯৬ শিশু ধর্ষণ
জুলাই ৮, ২০১৯ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

গণধর্ষণ ৫৩, ধর্ষণের পর হত্যা ২৩, যৌন হয়রানি ১২০

অনলাইন ডেস্ক ::

চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ধর্ষণ ও ধর্ষণচেষ্টার শিকার হয়েছে ৩৯৯টি শিশু। ছয়টি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত ৪০৮টি সংবাদ বিশ্নেষণ করে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন (এমজেএফ) এ তথ্য তুলে ধরেছে। অন্যদিকে, একই সময়ে সারাদেশে ৪৯৬টি শিশু ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরাম (বিএসএএফ)। ১৫টি গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে সম্প্রতি ‘শিশু অধিকার লঙ্ঘন’ শীর্ষক এ উপাত্ত প্রকাশ করে সংস্থাটি।

অব্যাহতভাবে শিশু ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনা বৃদ্ধির বিষয়ে শিশু অধিকার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সালমা আলী বলেন, শিশুরা হলো ফুলের মতো। তাদের সুরক্ষার মধ্য দিয়ে লালন-পালন করতে হয়। অথচ বাবা-মা সে দায়িত্ব ঠিকভাবে পালন করছেন না। পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলার তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে যৌন নিপীড়নবিরোধী নীতিমালা সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে হবে। সর্বত্র শিশুবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। আইনের কঠোর প্রয়োগের কোনো বিকল্প নেই।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানের অধ্যাপক ড. নেহাল করিম বলেন, নৈতিকতা ও মূল্যবোধের অবক্ষয়, মাদকাসক্তি এবং বৈধভাবে জৈবিক চাহিদা পূরণের সুযোগ না থাকায় দেশে এ ধরনের ঘটনা বাড়ছে। এটা এখন বিকৃতির পর্যায়ে পৌঁছেছে।

পর্নোগ্রাফির অবাধ প্রবাহকে শিশু ধর্ষণের প্রধানতম কারণ উল্লেখ করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ কামরুল আহসান বলেন, মনস্তাত্ত্বিকভাবে মানুষ ভোগবাদী। নৈতিকতা, ধর্ম ও আইন এই ভোগবাদকে নিয়ন্ত্রণ করে। কিন্তু দেশে নৈতিকতার অধঃপতনের পাশাপাশি আইনেরও কোনো প্রয়োগ নেই। বিচারহীনতার এমন সংস্কৃতি অপরাধপ্রবণতা বাড়িয়ে দিয়েছে। পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বলেন তিনি।

গ্রিন ইউনিভার্সিটির ‘সমাজবিজ্ঞান ও নৃবিজ্ঞান’ বিভাগের শিক্ষক আহসান হাবীব সমকালকে বলেন, ‘গত এক বছরের চিত্র লক্ষ্য করলে দেখা যায়, নির্বাচনের সময়টাতে শিশু ধর্ষণ তুলনামূলক কম ছিল। এ থেকে অনুমিত হয়, রাজনৈতিক কর্মীরা ব্যস্ত থাকায় তখন এ ধরনের অপরাধ কম সংঘটিত হয়। অর্থাৎ রাজনৈতিক দলের একচেটিয়া ক্ষমতা ও বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণে বর্তমানে শিশু ধর্ষণ উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে। তবে শুধু রাজনীতিকে একচেটিয়াভাবে দায়ী করা যাবে না উল্লেখ করে সমাজবিজ্ঞানের এই গবেষক আরও বলেন, বিগত দুই দশকে দেশের মূল্যবোধ ও সংস্কৃতিতে ব্যাপক ভিত্তিতে পরিবর্তন হয়েছে। এমন বাস্তবতায় শুধু আইন করে ধর্ষণের মতো অপরাধ কমানো যাবে না। এ জন্য প্রাথমিক শিক্ষাস্তরে নৈতিকতা ও মূল্যবোধের চর্চা আরও জোরদার করা জরুরি।

শিশু অধিকার ফোরামের পরিচালক আবদুছ সহীদ মাহমুদ বলেন, আগে শিশুরা শুধু ধর্ষণের শিকার হতো। এখন ধর্ষণের পর মেরেও ফেলা হচ্ছে। এটা হিংস্রতা ও বর্বরতা বৃদ্ধির ইঙ্গিত বহন করে। এ পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে শিশুদের রক্ষায় প্রচলিত আইনে সংশোধন আনার কথা বলেন তিনি। যে ধরনের শিশু নির্যাতন হোক না কেন, এ ক্ষেত্রে রায় কার্যকরের সময়সীমা বেঁধে দিতে হবে। তাহলে বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব।

এমজেএফের প্রতিবেদন : গতকাল রোববার এক বিবৃতিতে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন জানায়, গত ছয় মাসে ধর্ষণ ও ধর্ষণচেষ্টার শিকার হওয়া ৩৯৯ শিশুর মধ্যে ছেলেশিশু ছিল আটটি। ধর্ষণ-পরবর্তী সময়ে এক ছেলেশিশুসহ মারা গেছে ১৬ শিশু। তাদের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ৩৯৯ শিশুর মধ্যে ধর্ষণের চেষ্টা চালানো হয়েছিল ৪৪ শিশুর ওপর। এ ছাড়া যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে ৪৯ শিশু। যৌন হয়রানির ঘটনায় আহত হয়েছে ৪৭ মেয়েশিশু ও দুই ছেলেশিশু। এর আগে ২০১৮ সালে ৩৫৬টি শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছিল বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। এর মধ্যে মারা গিয়েছিল ২২ জন এবং আহত হয়েছিল ৩৩৪ জন।

সম্প্রতি দেশে শিশু ধর্ষণের ঘটনা আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতিতে সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম বলেন, বিচারহীনতার কারণে নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা অসহনীয় অবস্থায় উপনীত হয়েছে। শিশু ধর্ষণের ঘটনায় শিশুর শারীরিক, মানসিক ও সামাজিক জীবনে স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। তিনি সবাইকে পাড়ায় পাড়ায় কমিটি গঠন করে এই ধর্ষণ প্রতিরোধ করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘অভিভাবক, শিশু সংগঠন, মানবাধিকার সংস্থা, স্কুল-কলেজ এবং পাড়ার তরুণদের সম্মিলিতভাবে এই অপরাধ ঠেকাতে এগিয়ে আসতে হবে।’

বিএসএএফের প্রতিবেদন : ছয় মাসে ৪৯৬ শিশু ধর্ষিত হয়েছে। এর মধ্যে গণধর্ষণ হয়েছে ৫৩টি। ২৭ প্রতিবন্ধী শিশুও ধর্ষিত হয়েছে। আর ধর্ষণের পর ২৩ শিশুকে হত্যা করা হয়েছে। মোট শিশু হত্যা হয়েছে ২০৫ জন। যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে ১২০ শিশু। প্রতিবেদনে দেখা যায়, গত জানুয়ারি থেকে জুনের মধ্যে সর্বাধিক এপ্রিল মাসে ১২২টি শিশু ধর্ষিত হয়। জুন মাসে হয় ১১৯টি। ছয় মাসে শিশু হত্যার চেষ্টা হয়েছে ২৮টি। ৯৩টি আত্মহত্যার ঘটনা হয়েছে। এর মধ্যে ধর্ষণের পর আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে ১০টি। চুরি হয়েছে ১২০ শিশু। হারিয়ে গেছে ৭২ শিশু। এর মধ্যে ২৪ জনকে মৃত ও ২২ জনকে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। অপরিচিত নবজাতক শিশুর মৃতদেহ পাওয়া গেছে ১৬টি। অপরিচিত নবজাতক পাওয়া গেছে ১২টি। ২৮৬ শিশু সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে। অগ্নিদগ্ধ হয়ে ৩৫, চিকিৎসার অবহেলায় ১১, বর্বর পিতামাতার হাতে ১৮ এবং অন্যান্য দুর্ঘটনায় মারা গেছে ৫৪ জন। এ ছাড়া এসিড সহিংসতার শিকার ২, বাল্যবিয়ের শিকার ৮ এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়ে আহত হয়েছে ২৭ শিশু। গত ছয় মাসে ৯টি শিশু হত্যা, আটটি ধর্ষণ ও চারটি যৌন হয়রানি মামলার রায় হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে প্রতিবেদনে।