জাতিসংঘ কমিটিতে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে বাংলাদেশের প্রার্থী জয়ী


353 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
জাতিসংঘ কমিটিতে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে বাংলাদেশের প্রার্থী জয়ী
জুন ২৯, ২০১৭ জাতীয় প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::
বাংলাদেশের প্রার্থী পররাষ্ট্র সচিব মো. শহিদুল হক নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে গতকাল বুধবার অনুষ্ঠিত ‘কমিটি অন দ্য রাইটস্ অব অল মাইগ্র্যান্ট ওয়াকার্স এ্যান্ড মেম্বারস্ অব দেয়ার ফ্যামিলিজ্’ (সিএমডব্লিউ)-এর ২০১৮-২০২১ মেয়াদের নির্বাচনে ৫১ ভোটের মধ্যে ৪৬ ভোট পেয়ে সদস্য হিসেবে পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। একইসাথে এই কমিটিতে আলবেনিয়া, শ্রীলংকা, কলম্বিয়া, আজারবাইজান,  সেনেগাল ও নাইজারের ৬ প্রার্থীও নির্বাচিত হয়েছেন ১৪ সদস্যের কমিটিতে।

সিএমডব্লিউ’র এই নির্বাচনে কোনো প্রার্থীর এটাই সর্বাধিক ভোট। এই বিজয় বাংলাদেশের বলিষ্ঠ পররাষ্ট্রনীতির প্রতি বিশ্ববাসীর আস্থার প্রতিফলন বলে কূটনীতিকরা মনে করছেন। পররাষ্ট্র সচিব চার বছর মেয়াদি এই কমিটিতে একজন স্বাধীন বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করবেন।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই প্রথমবারের মতো অভিবাসীদের অবৈধ পাচার রোধকল্পে একটি নিরাপদ, সুশৃঙ্খল ও নিয়মিত ‘গ্লোবাল মাইগ্রেশন কমপ্যাক্ট’ প্রণয়নের জন্য জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে প্রস্তাব দিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর এই প্রস্তাব ২০১৬ সালে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়। গ্লোবাল কম্প্যাক্ট তৈরির বিষয়ে জাতিসংঘে এখন আনুষ্ঠানিক আলোচনা চলছে।

আরও উল্লেখ্য, নিউইয়র্ক ও জেনেভায় জাতিসংঘের ‘গ্রপ অফ ফ্রেন্ডস্ অব মাইগ্রেশন’ এর নেতৃত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ এবং অত্যন্ত সক্রিয় সদস্য হিসেবে জাতিসংঘে অভিবাসন বিতর্কে অংশগ্রহণ করছে।

বাংলাদেশের কূটনীতিকরা মনে করছেন, ‘বাংলাদেশ এই নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো সিএমডব্লিউ’র সদস্য হল, যা আমাদের ৯০ লাখ অভিবাসীকর্মী ও তাদের পরিবারের সদস্যসহ বিশ্বব্যাপী অভিবাসী কর্মীদের সুরক্ষা ও উন্নয়নে একটি নতুন মাত্রা যোগ করল। এটি নিঃসন্দেহে মাইগ্রেশন ইস্যুতে জাতিসংঘ ও এর বাইরে বাংলাদেশের অগ্রণী ভূমিকার সুস্পষ্ট স্বীকৃতি। ’

‘ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন অব দ্যা রাইটস্ অব অল মাইগ্রান্ট ওয়াকার্স এ্যান্ড মেম্বারস্ অব দেয়ার ফ্যামিলিজ্’ (আইসিআরএমডব্লিউ)-এর ৫১টি দেশ সিএমডব্লিউ’র পরবর্তী ৪ বছর মেয়াদের জন্য নতুন ৭ জন বিশেষজ্ঞকে নির্বাচিত করল, যারা জানুয়ারি ২০১৮ থেকে কাজ শুরু করবে। সিএমডব্লিউ’র ১৪ সদস্যের পরিষদ আইসিআরএমডব্লিউ-এর দেশসমূহের অভিবাসী কর্মীদের মানবাধিকার রক্ষা এবং সিএমডব্লিউ’র সদস্য নয় এমন দেশগুলোর সাথে প্রয়োজনীয় চুক্তিস্বাক্ষরসহ সংশ্লিষ্ট নানা বিষয় নিয়ে কাজ করে। বাংলাদেশ ২৪ আগস্ট ২০১১ সিএমডব্লিউ’র চুক্তি অনুস্বাক্ষর করে।

মাইগ্রেশনের একজন খ্যাতনামা আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ হিসেবে পরিচিত মো. শহীদুল হক, ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আইওএম) এর সদর দফতরে পরিচালক, ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এন্ড পার্টনারশিপ হিসেবে দীর্ঘদিন কাজ করেছেন। তিনি ২০১৬ মেয়াদে গ্লোবাল ফোরাম অন মাইগ্রেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (জিএফএমডি)-এর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন এবং ‘গ্লোবাল কম্প্যাক্ট’ ধারণাটি এগিয়ে নিতেও তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রেখেছেন।