জাল সনদে শিক্ষকতা : অবশেষে ফেঁসে গেলেন তালার শিবপদ সানা


522 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
জাল সনদে শিক্ষকতা : অবশেষে ফেঁসে গেলেন তালার শিবপদ সানা
এপ্রিল ২৭, ২০২১ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বি. এম. জুলফিকার রায়হান ::

শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার জাল সনদ নিয়ে চাকরি করার দায়ে অবশেষে ফেঁসে গেলেন কলেজ শিক্ষক শিবপদ সানা। বেসরকারি শিক্ষক ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) এর সহকারী পরিচলক (পমূপ্র-৩) তাজুল ইসলাম’র নির্দেশে অবশেষে তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। এরআগে কলেজের গভর্নিং বডির সভায় জাল সনদধারী শিক্ষক শিবপদ সানার বেতন ভাতা স্থগিত করা হয়। অভিযুক্ত শিক্ষক শিবপদ সানা তালা উপজেলার মেশারডাঙ্গা গ্রামের মৃত. করুনাময় সানার ছেলে। তিনি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার দু’টি জাল সনদ দিয়ে দীর্ঘ বছর ধরে পাশ্ববর্তী আশাশুনি থানার বড়দল আফতাবউদ্দীন কলেজিয়েট স্কুলে ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রভাষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
সূত্রে জানাগেছে, এনটিআরসিএ এর দুটি সনদ জাল করে শিবপদ সানা ২০১০ সালে বড়দল আফতাবউদ্দীন কলেজিয়েট স্কুলে ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। এরপর থেকে তার জাল সনদের বিষয়টি নিয়ে এলাকায় সমালোচনা শুরু হয়। অবশেষে এক অভিযোগের প্রেক্ষিতে এনটিআরসিএ কর্তৃপক্ষ শিক্ষক শিবপদ সানার দাখিলকৃত ২টি নিবন্ধন সনদ যাচাই করেন। যাচাইঅন্তে এনটিআরসিএ’র সহকারী পরিচালক (পমূপ্র-৩) তাজুল ইসলাম গত ১১ মার্চ’ ৩৭.০৫.০০০০.০১০.০৫.০০২.২০.২৭৯ নং স্মারকে সংশ্লিষ্ট কলেজে পত্র প্রেরন করেন। ওই পত্রে শিক্ষক শিবপদ সানা’র জমা দেয়া দু’টি শিক্ষক নিবন্ধন সনদ জাল ও ভূয়া বলে উল্লেখ করে তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করার নির্দেশনা দেন।
এনটিআরসিএ’র পত্র সূত্রে জানাগেছে, শিক্ষক শিবপদ সানার শিক্ষন নিবন্ধন পরীক্ষা পাশের প্রথম সনদটি ৪র্থ শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা- ২০০৮ এর রোল নং ২০১১০৪৫১ এবং রেজিষ্ট্রেশন নং ৮০০১৯৮৩০। কিন্তু এই সনদটির প্রকৃত শিক্ষার্থী এমডি জিয়াউর রহমান, পিতা- এমডি আয়ুব আলী, বিষয় বাংলা। অনুরুপ দাখিলকৃত দ্বিতীয় সনদটি ১ম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা- ২০০৫ এর রোল নং- ৬৫৭০৩৫২ এবং রেজিঃ নং ০৫১০৭৯৫৩। কিন্তু এই সনদটিও জাল ও ভুয়া এবং প্রকৃত সনদধারীর নাম তানমীম ইয়াসমীন, পিতা- মো. শাহজাহান আলী, এবং সঠিক রেজিঃ নং ০৫৪১১৩৪০।
এব্যপারে সংশ্লিষ্ট বড়দল আফতাবউদ্দীন কলেজিয়েট স্কুল’র অধ্যক্ষ ড. মো. শিহাবউদ্দীন জানান, এনটিআরসিএ এর পত্রের প্রেক্ষিতে
গত ৭ এপ্রিল গভর্নিং বডির সভা এডহক কমিটির আহবায়ক উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল হুসেইন খাঁন’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সর্ব সম্মতভাবে জাল ও ভূয়া সনদধারী প্রভাষক শিবপদ সানার বেতন-ভাতা স্থগিত রাখা সহ তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
এদিকে, কলেজ’র অধ্যক্ষ বাদী হয়ে ৮এপ্রিল আশাশুনি থানায় এজাহার জমা দিলেও পুলিশ এজাহার হিসেবে রেকর্ড না করায় নানান অভিযোগ উঠতে থাকে। প্রতারক শিক্ষক শিবপদ সানা ও তার ভাই প্রভাবশালী নেতা ও অফিসারদের ম্যানেজ করে মামলাটি বন্ধ করার জন্য জোর তদ্বির চালায় বলে অভিযোগ ওঠে।
তবে সেই অভিযোগ অস্বীকার করে আশাশুনি থানার ওসি মো. গোলাম কবীর জানান, এজাহারটি পাওয়ার পর গত ২০ এপ্রিল থানায় মামলা (১৭/২০) হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে এই মামলার তদন্ত পূর্বক যথাযথ আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

#