জীবনের প্রথম বিজয়ে তোকে অভিনন্দন


794 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
জীবনের প্রথম বিজয়ে তোকে অভিনন্দন
মার্চ ৩১, ২০১৭ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

শাহিদুর রহমান ::
প্রত্যেক বাবা-মা তার সন্তানকে ভালোবাসেন। কামনা করেন তার সফলতার। মৃত্যু পর্যন্ত বাবা-মায়ের এই কামনা শেষ হয় না। সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জল ও ছেলে মুশফিক-উর-রহমান। বাবা-ছেলের এক ভালোবাসার গল্প। তৃতীয় শ্রেণিতে পড়া ছেলের প্রথম ভোটে দাঁড়িয়ে জয়ী হওয়ার পর আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন বাবা। সেই ঘটনাটির অনুভূতি ফেসবুকে সকলকে জানিয়েছেন। পাঠকদের সামনে তুলে ধরা হলো সেই ফেসবুক লেখাটি।

১৯৭১ এ বীর মুক্তিযোদ্ধা আমার দাদা শহীদ সরদার ঘাতকের বুলেটে শহীদ হন । তখন তিনি কুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ছিলেন। একই ইউনিয়নে আমার ছোট চাচা ২১ বছর নির্বাচিত সদস্য ছিলেন। আড়াই বছর ছিলেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। আমার আর ইউনিয়ন পরিষদে যাওয়া হয়নি। ভোট করেছি প্রেসক্লাবসহ সামাজিক প্রতিষ্ঠানে। মানুষের ভালবাসায় সবখানে জিতেছি।
এখন হাসবো না কাঁদবো জানিনা। বুধবার বাড়িতে গিয়ে শুনি সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্র আমার প্রথম সন্তান মুশফিক-উর-রহমান স্কুলের শ্রেণি ক্যাপ্টেন নিবার্চনে ভোটে দাড়িয়েছে। ওর মাকে বললাম এসব কি দরকার? ওর মায়ের উত্তর রক্ত কখনও বেঈমানী করেনা। আজ বৃহস্পতিবার ভোট গণনা শেষ হলে ওর স্কুলের শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান ও আব্দুর রউফ স্যার ফোনে জানালো আপনার ছেলে নির্বাচনে যৌথভাবে প্রথম হয়েছে।
খবরটি জানার সাথে সাথে সত্যিই আপ্লুত হয়ে পড়েছিলাম। জীবনের প্রথম বিজয়ে তোকে অভিনন্দন বাবা। যতটুকু দায়িত্ব তোর তা পালন করিস নিষ্ঠার সাথে। ভালোবাসিস বন্ধুদের যারা তোকে জীবনের প্রথম বিজয়ের স্বাধ দিয়েছে। শিক্ষকদের সাথে কখনও আদবের বরখেলাপ করিসনা। আর সর্বোপরি লেখাপড়া করিস মন দিয়ে। মানুষের মত মানুষ হোস। মুখ উজ্জ্বল করিস দেশের, বাবা মা’র আর পরিবারের। অনেক দোয়া আর শুভ কামনা তোর জন্য।