জেএসসি-জেডিসিতে বসেছে সাড়ে ২৬ লাখ শিক্ষার্থী


113 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
জেএসসি-জেডিসিতে বসেছে সাড়ে ২৬ লাখ শিক্ষার্থী
নভেম্বর ২, ২০১৯ ফটো গ্যালারি শিক্ষা
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা শনিবার সকাল ১০টায় শুরু হয়েছে। প্রথম দিন জেএসসির বাংলা এবং জেডিসির কোরআন মাজিদ ও তাজভিদ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, দুই পরীক্ষায় সারাদেশে ২ হাজার ৯৮২ কেন্দ্রে অংশ নিচ্ছে ২৬ লাখ ৬১ হাজার ৬৮২ শিক্ষার্থী। এবার জেএসসি পরীক্ষার্থী ২২ লাখ ৬০ হাজার ৭১৬ জন। জেডিসি পরীক্ষার্থী ৪ লাখ ৯৬৬ জন। ছাত্র ১২ লাখ ২১ হাজার ৬৯৫ জন এবং ছাত্রী ১৪ লাখ ৩৯ হাজার ৯৮৭ জন। ছাত্রের তুলনায় ছাত্রীর সংখ্যা ২ লাখ ১৮ হাজার ২৯২ জন বেশি।

প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার কথা জানিয়ে গত ২৯ অক্টোবর নিজ মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা.দীপু মনি জানান, জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা উপলক্ষে গত ২৫ অক্টোবর থেকে আগামী ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত দেশে সব ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি প্রশ্নপত্র ফাঁসের গুজবের ফাঁদে না পড়তে অভিভাবকদের প্রতি আহ্‌বান জানান।

শিক্ষা বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, এবার পরীক্ষার্থীদের ৭টি বিষয়ে ৬৫০ নম্বরের পরীক্ষা হবে। ইংরেজি ছাড়া সকল বিষয়ে সৃজনশীল প্রশ্নে পরীক্ষা দিতে হবে। শারীরিক শিক্ষা ও স্বাস্থ্য, কর্ম ও জীবনমূখী শিক্ষা, চারু ও কারুকলা, কৃষি শিক্ষা, গার্হস্থ্য বিজ্ঞান, আরবি, সংস্কৃত, পালি বিষয়গুলো এনসিটিবির নির্দেশনা অনুসারে ধারাবাহিক মূল্যায়ন করা হয়েছে।

পরীক্ষা শুরুর কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদেরকে অবশ্যই পরীক্ষা কক্ষে প্রবেশ করতে হবে। তবে অনিবার্য কারণে কোনো পরীক্ষার্থীকে এ সময়ের পরে হলে প্রবেশ করতে দিলে তাদের নাম, রোল নম্বর, প্রবেশের সময়, দেরি হওয়ার কারণ ইত্যাদি একটি রেজিস্ট্রারে লিপিবদ্ধ করে ঐদিনই সংশ্নিষ্ট শিক্ষা বোর্ডে প্রতিবেদন দিতে হবে।

পরীক্ষা চলাকালে পরীক্ষা কেন্দ্রের ২০০ মিটারের মধ্যে শিক্ষক, ছাত্র ও কর্মচারীদের মোবাইল, মোবাইল ফোনের সুবিধাসহ ঘড়ি, কলম এবং পরীক্ষা কেন্দ্রে ব্যবহারের অনুমতিবিহীন যে কোন ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস ব্যবহার নিষিদ্ধ।