ঝাউডাঙ্গা কলেজে ক্রিড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ, সাংস্কৃতিক ও আলোচনা সভা


312 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ঝাউডাঙ্গা কলেজে ক্রিড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ, সাংস্কৃতিক ও আলোচনা সভা
মার্চ ২৮, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

রাশেদ রেজা তরুণ:
“ছাত্র-ছাত্রীদের মেধা বিকাশের জন্য লেখাপড়ার পাশাপশি ক্রিড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের বিকল্প নেই। তাই লেখাপড়ার পাশাপশি তাদেরকে বিভিন্ন ধরনের ক্রিড়া, বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহনের উংসাহ যোগাতে বলেছেন শিক্ষকদের। আমাদের আর পিছিয়ে থাকার সময় নেই,দেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাচ্ছে শিক্ষা, উন্নত হচ্ছে শিক্ষার পরিবেশ। সেই জন্য নিজেকে এবং দেশকে উন্নতির চরম শিখরে নিতে হলে উন্নত মানের শিক্ষা উপহার দিতে হবে। তিনি কলেজের শিক্ষকদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ছাত্ররা আপনাদের সন্তানতুল্য, তাদেরকে উন্নত শিক্ষা উপহারই হবে আপনাদের একমাত্র  ব্রত। ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ ঘটিয়ে সৃজনশীল শিক্ষা ও কাজের মাধ্যমে দেশের উন্নয়নের অগ্রণী ভ’মিকা পালন করবে”। এসব কথাগুলো বলেছেন প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাতক্ষীরা সদর উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও ঝাউডাঙ্গা কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি এস এম শওকত হোসেন।
সোমবার সকাল ১১ ঘটিকায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝাউডাঙ্গা কলেজ প্রাঙ্গনে কলেজের অধ্যক্ষ খলিলুর রহমানের সভাপতিত্বে  তিন দিন ব্যাপী বার্ষিক ক্রিড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ, সাংস্কুতিক ও আলোচনা সভার আযোজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি আরো বলেন “ ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষনার মধ্য দিয়ে দীর্ঘ নয় মাস যুদ্ধ করে স্বাধীন বাংলাদেশকে পেয়েছি। আর এই স্বাধীন দেশকে যারা নাশকতা ও নৈরাজ্যে সৃষ্টির মাধ্যমে অস্থিতিশীল করে তুলবে তাদেরকে কঠোর হাতে দমন করা হবে। তিনি বলেন, অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রাজনৈতিক কারনে কলেজের স্বাভাবিক লেখা পড়ার মান নষ্ট হচ্ছে। লেখা পড়ার মান উন্নত করতে হলে কলেজ ক্যাম্পাসে রাজনীতি নয়। তিনি আরো বলেন, তোমরা যদি আমাকে ভাল বাসো। বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে ভালোবাসো তাহলে ক্যাম্পাসের বাইরে রাজনীতি করতে পারো। কোন ভাবেই কলেজের ক্যাম্পাসে নয়।”
ঝাউডাঙ্গা কলেজের অধ্যক্ষ খলিলুর রহমান বলেন “ ঝাউডাঙ্গা কলেজের লেখাপড়ার মান ভালো হওয়ায় দ্রুত কলেজের সুনাম ছড়িয়ে পড়েছেসর্বস্তরে। আরো বেশি উন্নয়ন ও লেখাপড়ার মান ্এবং সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলতে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে বিভিন্ন দিক নির্দেশনাও তিনি দিয়েছেন”।
এসময় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রখেন সদর উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি মাষ্টার আনিস উদ্দীন, দপ্তর সম্পাদক প্রভাষক হাসান মাহমুদ রানা, ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, হঠাৎগঞ্জ হাইস্কুলের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আমের আলী, তুজলপুর জিসি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক এহছাক আলী।
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রাণ হচ্ছে ছাত্র-ছাত্রীরা। তাদেরকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে ও কলেজের কাঠামোগত উন্নয়নের সার্বিক সহযোগিতা করার আশ্বাসও দিয়েছেন বক্তারা। এসময় উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরা সদর থানার এসআই অহিদুজ্জামান, বল্লী ইউপি চেয়ারম্যান বজলুর রহমান, ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি রমজান আলী বিশ্বাস, মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ আবুল হোসেন, সুনিল কুমার ঘোষ, ইউপি সদস্য রুলামিন সরদার, সাবেক ইউপি সদস্য আয়জউদ্দীন সহ কলেজের গভর্ণিং বডির সদস্যবৃন্দ, শিক্ষক মন্ডলী, কর্মকর্তা-কর্মচারী, এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ ও বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। আলোচনা সভার শেষে প্রধান অতিথি ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় অংশ কারী কৃতি ছাত্র/ছাত্রীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন। সমগ্র অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন  প্রভাষক হাসান মাহমুদ রানা।