টাইগার স্পিনারদের দাপটে স্বস্তিতে নেই ইংল্যান্ড


325 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
টাইগার স্পিনারদের দাপটে স্বস্তিতে নেই ইংল্যান্ড
অক্টোবর ২৮, ২০১৬ খেলা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক :
সিরিজ বাঁচানোর ম্যাচে প্রথম ইনিংসে মাত্র ২২০ রান করে অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। তামিম ইকবাল ১০৪ ও মমিনুল ইসলাম করেন ৬৬ রান। বাকি ব্যাটসম্যানরা কেবল যাওয়া আসা শুরু করলে মাত্র ২২০ রানে গুটিয়ে যায় টাইগারদের ইনিংস। ইংল্যান্ডের মঈন আলী নেন ৫ উইকেট।

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি ইংল্যান্ডেরও। দলীয় ১০ রানে বেন ডাকেটকে ফিরিয়ে দেন সাকিব। উইকেটে পেছনে দারুণ ক্যাচ নেন মুশফিক। আউট হবার আগে ৫ বলে এক ছয়ে ৭ রান করেন ইংলিশ ওপেনার ডাকেট।

দ্বিতীয় উইকেট হিসেবে ইংলিশ অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুককে ফেরত পাঠান মেহেদী হাসান মিরাজ। ১৪ রান করেন কুক।

এরপর গ্যারি ব্যালেন্সকেও ফিরিয়ে দেন মিরাজ। ইংল্যান্ডের রান তখন মাত্র ৪২। ইংল্যান্ডের রান যখন ৫০ তখনই বৃষ্টি শুরু হলে প্রথম দিনের খেলা সমাপ্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। এর আগে প্রথম ইনিংসে মাত্র ২২০ রান করে অলআউট হয় বাংলাদেশ।

আজ মিরপুরে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। তবে শুরুটা ভালো হয়নি টাইগারদের। তৃতীয় ওভারে ক্রিস ওকসের বলে পয়েন্টে বেন ডাকেটকে ক্যাচ দেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশের স্কোর তখন মাত্র ১ রান।

এরপর মমিনুল হককে নিয়ে ওয়ানডে স্টাইলে খেলতে থাকেন তামিম ইকবাল। ১৫ ওভারেই ৭২ রান তুলে নেয় বাংলাদেশ। ৬০ বলে ৭টি চারে হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন তামিম। এটি ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তার ষষ্ঠ হাফ সেঞ্চুরি।

ইমরুল কায়েস ফিরলেও অন্যপ্রান্তে তার অভাবটা বুঝতে দেননি মমিনুল ইসলাম। ইংল্যান্ডের বোলারদের বিপক্ষে পাল্টা আক্রমণ চালান এই ব্যাটসম্যান। ১৩৯ বলে ১২টি চারে ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরিতে পৌঁছান তামিম।

তবে শতক পূর্ণ করার পরেই মঈন আলীর বলে লেগ বিফারের ফাঁদে পড়েন তামিম। আউট হবার আগে ১৪৭ বলে ১০৪ রানের দুর্দান্ত একটি ইনিংস খেলেন তামিম। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এটি তার তৃতীয় শতক। অন্যপ্রান্তে কম যাননি মমিনুল।

মঈন-রশীদদের পিটিয়ে হাফ সেঞ্চুরি করেন তিনিও। তবে দলীয় ১৯০ রানে তামিমের দেখানো পথে ফিরে আসেন মমিনুল হক। হন্তারক এবারো মঈন আলী। ১১১ বলে ৬৬ রান করেন মমিনুল। স্কোরবোর্ডে আর মাত্র ৬ রান যোগ হতেই ফিরে যান মাহমুউল্লাহ রিয়াদ।

বেন স্টোকসের বলে স্লিপে অ্যালিস্টার কুককে সহজ ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। ২৬ বলে ১৩ রান করেন রিয়াদ। দলীয় ২০১ রানে পঞ্চম উইকেট হারায় টাইগাররা। মঈন আলীর বলে শর্ট লেগে কুকের দারুণ ক্যাচ হয়ে বিদায় নেন মুশফিকুর রহিম। আউট হবার আগে মাত্র ৪ রান করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

মুশফিকের পর টাইগার ভক্তরা তাকিয়ে ছিল সাব্বির রহমানের দিকে। আজ হতাশ করেন তিনিও। স্টোকসের বলে কোনো রান করার আগেই বেয়ারস্টোকে ক্যাচ দেন সাব্বির। অন্যপ্রান্তে অনেকক্ষণ ধরেই সতীর্থদের যাওয়া আসা দেখছিলেন সাকিব। ধৈর্য্য হারিয়ে তিনিও উইকেটরক্ষককে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন।

এর আগে মাত্র ১০ রান করেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। এরপর কামরুল উসলাম রাব্বিরে রুটের ক্যাচ বানিয়ে নিজের পঞ্চম উইকেট পূর্ণ করেন মঈন।