টিকটকে ডিভোর্স নিয়ে ভিডিও, ১১শ’ কিমি পাড়ি দিয়ে সাবেক স্ত্রীকে খুনের পর আত্মহত্যা !


211 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
টিকটকে ডিভোর্স নিয়ে ভিডিও, ১১শ’ কিমি পাড়ি দিয়ে সাবেক স্ত্রীকে খুনের পর আত্মহত্যা !
আগস্ট ১০, ২০২২ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

ঘটনাটি আমেরিকার। গত মাসে দেশটির শিকাগো অঙ্গরাজ্যের লিওনিসে ঘটেছে এই ঘটনা। সাবেক স্ত্রীর টিকটক ভিডিও দেখে মেনে নিতে পারেননি প্রাক্তন স্বামী। তাই দীর্ঘ ১১শ’ কিলোমিটার গাড়ি চালিয়ে এসে তাকে গুলি করে খুন করলেন আমেরিকার বাসিন্দা ওই পাকিস্তানি ব্যক্তি। এরপর আত্মঘাতী হন রাহিল আহমদ (৩৬) নামের যুবক। নিহত ওই নারীর নাম সানিয়া খান (২৯)।

মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ‘ফক্স নিউজ’ এর বরাত দিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যম ‘এনডিটিভি’ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। তার আগে ‘শিকাগো সান টাইমস’-সহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এই নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।
‘শিকাগো সান টাইমস’-এর প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, রাহিল যখন সানিয়ার বাড়িতে উপস্থিত হন, তখন সানিয়ার বাড়ির কাছেই পুলিশ ছিল। হঠাৎই ঘরের ভিতর থেকে দু’টি গুলির শব্দ শুনতে পায় পুলিশ। প্রথমে সানিয়াকে লক্ষ্য করে গুলি চালান রাহিল। এর পর অন্য ঘরে গিয়ে একই পিস্তলের গুলিতে আত্মঘাতী হন তিনি নিজেও।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সানিয়া নিয়মিত টিকটক করার পাশাপাশি একজন পেশাদার চিত্রগ্রাহকও ছিলেন। গত বছরই রাহিল আহমদ নামে ওই ব্যবসায়ীর সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তবে তাদের বিয়ে এক বছরও টেকেনি। চলতি বছরের মে মাসে তাদের বিবাহবিচ্ছেদ হয়ে যায়। এরপর থেকেই সাবেক স্ত্রীর উপর ক্ষোভ জমতে থাকে রাহিলের। স্ত্রী কেতাদুরস্ত জামাকাপড় পরে, টিকটক করে— এ সবই না-পছন্দ ছিল রাহিলের।

এর আগেও তিনি সানিয়াকে খুন করতে চেয়েছিলেন। একবার সানিয়ার উপর গুলিও চালিয়েছিলেন রাহিল। তবে সেবার তিনি সফল হননি। সাহিলের ধারণা ছিল, সানিয়া আধুনিকভাবে জীবনযাপন করার জন্যই তাদের বিচ্ছেদ হয়েছে।

ফক্স নিউজ জানায়, সাবেক স্ত্রী সানিয়া বিবাহ ও ডিভোর্স নিয়ে টিকটকে ভিডিও আপলোড করার পর রাহেল জর্জিয়া থেকে শিকাগোতে আসেন। স্থানীয় পুলিশের উদ্ধৃতি দিয়ে ফক্স নিউজ আরও জানায়, গত ১৮ জুলাই বিকাল সাড়ে চারটার দিকে সানিয়া খান ও রাহেল আহমেদের গুলিবিদ্ধ মরদেহ দেখতে পায় পুলিশ।

বিবিসি জানায়, সানিয়া বিবাহিত জীবনের ট্রমা এবং বিবাহবিচ্ছেদ নিয়ে মহিলাদের পক্ষের কণ্ঠস্বর হিসেবে বিভিন্ন ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করতেন। তার মৃত্যুতে তার বন্ধুরা শোকে মূহ্যমান হয়ে পড়েছেন।

একটি টিকটক ভিডিওতে সানিয়া বলেছিলেন, কীভাবে তিনি তার সম্প্রদায় ও পরিবার দ্বারা পুশব্যাকের শিকার হয়েছিলেন। নিজেকে তিনি তার সম্প্রদায়ের ‘কুলাঙ্গার’ তথা ব্ল্যাক শিপ হিসাবে বর্ণনা করেছিলেন। টিকটকে তার ২০ হাজার অনুসারী ছিল।

ইনস্ট্রাগ্রামে বেশ সক্রিয় ছিলেন সানিয়া। নিজের কাজের মাধ্যমে বেশ ফ্যান-ফলোয়ার তৈরি করে ফেলেছিলেন তিনি। বিয়ের ফটোগ্রাফি, মাতৃত্বের শুটিং, বেবি শাওয়ারসহ বেশ কিছু কাজ করতেন তিনি।

সূত্র: শিকাগো টাইমস, নিউ ইয়র্ক পোস্ট, বিজনেস ইনসাইডার, এইউ নিউজ, নিউজ ডটকম ডটএইউ, এনডিটিভি, ফক্সনিউজ