টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা ডাকাত’ নিহত


157 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা ডাকাত’ নিহত
ফেব্রুয়ারি ২২, ২০১৯ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

কক্সবাজারের টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে এক রোহিঙ্গা ডাকাত’ নিহত হয়েছে। তার নাম নুরুল আলম (৩০)। শুক্রবার ভোরে উপজেলার দমদমিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

র‌্যাব জানায়, নিহত আলম নয়াপাড়া নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শিবিরের এইচ বল্কের মৃত মোহাম্মদ হোসেন ওরফে লাল পুইজার ছেলে। তিনি মিয়ানমার মংডু মেরুল্লা গ্রাম থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছিলেন। আলম নয়াপাড়া নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শিবিরের আনসার ক্যাম্পে লুট ও কমান্ডার হত্যার মূল পরিকল্পকারী। ঘটনাস্থল থেকে ২টি বিদেশি পিস্তল, ২টি ম্যাগাজিন ও ১৩ রাউন্ড তাজা গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে থানায় মাদক, হত্যাসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

র‌্যাব-১৫ টেকনাফ ক্যাম্পের ইনচার্জ লেফটেন্যান্ট মির্জা শাহেদ মাহতাব জানান, শুক্রবার ভোরে টেকনাফ র‌্যাবের একটি টহল দল দমদমিয়া এলাকায় একদল ডাকাতের সঙ্গে মুখোমুখি হয়ে পড়ে। এ সময় ডাকাতেরা অতর্কিতভাবে র‌্যাবের ওপর গুলি ছুড়তে শুরু করে। র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। আধাঘন্টা ধরে উভয় পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি হয়। পরে ডাকাত দলের সদস্যরা পাহাড়ের দিকে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে সে মারা যায়। পরে তার পরিচয় জানা যায়।

তিনি আরও জানান, নুরুল আলম দীর্ঘদিন পলাতক ছিল। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য টেকনাফ থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২০১৬ সালের ১২ মে রাতে রোহিঙ্গা সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শিবিরের দায়িত্বে নিয়োজিত আনসার ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে কমান্ডার আলী হোসেনকে হত্যা করে এবং ৬৭০ রাউন্ড গুলি ও ১১টি অস্ত্র লুঠ করে নিয়ে যায়। পরে মিয়ানমার সীমান্তের ঘুংধুম এলাকার গহীন অরণ্যে অভিযান চালিয়ে লুট হওয়া পাঁচটিসহ ১১টি অস্ত্র ও ৯৫ রাউন্ড গুলিসহ তিন রোহিঙ্গাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।