ট্রাম্প এখনও ঝুঁকিমুক্ত নন : চিকিৎসক


112 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ট্রাম্প এখনও ঝুঁকিমুক্ত নন : চিকিৎসক
অক্টোবর ৪, ২০২০ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এখনও ঝুঁকিমুক্ত নন বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউসের মেডিকেল দল। তবে ট্রাম্প নিজে জানিয়েছেন তিনি বেশ ভালো অনুভব করছেন। খবর এএফপির।

শনিবার হাসপাতাল থেকেই টুইটারে পোস্ট করা চার মিনিটের এক ভিডিও ক্লিপে নিজের স্বাস্থ্যের অবস্থা সম্পর্কে ট্রাম্প বলেন, ‘অসুস্থ বোধ করায় আমি এখানে (হাসপাতালে) এসেছি। তবে এখন অনেক বেশি ভালো অনুভব করছি এবং পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ওঠার জন্য আমরা সবাই কঠোর পরিশ্রম করছি। খুব শিগগিরই ফিরে আসব বলে আমি মনে করি।’

‘আমি নির্বাচনী প্রচারণা শেষ করার অপেক্ষায় রয়েছি, যেভাবে এটি শুরু হয়েছিল এবং যেভাবে আমরা এটি করছিলাম,’ বলেন ট্রাম্প।

ভিডিওতে ট্রাম্পকে নীল জ্যাকেট এবং সাদা শার্ট পরে একটি ডেস্কের পেছনে বসে থাকতে দেখা গেছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমার মনে হয় পরবর্তী কয়েক দিনই আমার আসল পরীক্ষা, সুতরাং পরবর্তী কয়েক দিনের মধ্যে কী ঘটে তা আমরা দেখব।’

করোনা আক্রান্ত হওয়া তার স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্প হোয়াইট হাউসে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন এবং ‘সুস্থ রয়েছেন’ বলেও জানান ট্রাম্প।

তবে হোয়াইট হাউসের এক কর্মকর্তা শনিবার সাংবাদিকদের জানান, ট্রাম্প সুস্থ আছেন, তবে আগামী ৪৮ ঘণ্টা তার জন্য জটিল হবে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

ট্রাম্পের প্রধান চিকিৎসকের বরাতে হোয়াইট হাউসের মেডিকেল দল জানিয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ‘এখনও ঝুঁকি মুক্ত নন।’

এর আগে স্থানীয় সময় শুক্রবার রাতে কোভিড-১৯ আক্রান্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মাত্র এক মাস আগে নিজের সব প্রচার প্রচারণা বাতিল করতে বাধ্য হয়েছেন ট্রাম্প।

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত ২ লাখের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে।

হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, সতর্কতা হিসেবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ‘কিছু দিন’ ওয়াল্টার রিড ন্যাশনাল মিলিটারি মেডিকেল সেন্টারে থাকবেন এবং সেখানকার প্রেসিডেন্ট স্যুট থেকে তিনি দাপ্তরিক কাজ চালিয়ে যাবেন।

এর আগে, শুক্রবার সন্ধ্যায় ট্রাম্প হোয়াইট হাউস থেকে মাস্ক পরে বের হন এবং সাংবাদিকদের উদ্দেশে হাত নাড়েন। তবে মেরিন ওয়ান হেলিকপ্টারে ওঠার আগে তিনি কারও সাথে কথা বলেননি।

এ সময় মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বহনকারী হেলিকপ্টারের কর্মী এবং তার সঙ্গে থাকা নিরাপত্তা কর্মী ও হোয়াইট হাউসের কর্মকর্তাদেরও মাস্ক পরে থাকতে দেখা যায়।

ওয়াল্টার রিডে যাওয়ার আগে টুইটারে রেকর্ড করা সংক্ষিপ্ত এক ভিডিও বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘আমি মনে করি আমি খুব ভালো আছি।’

হোয়াইট হাউসের চিকিৎসক সিন কুনলে জানান, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে রেজনারনের অ্যান্টিবডি ককটেলের একটি ডোজ দেয়া হয়েছে। এ চিকিৎসা পদ্ধতি এখনও ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের মধ্যে রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের একটি দল ট্রাম্পের চিকিৎসা করছেন।

শুক্রবার ট্রাম্প এবং ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। টুইটে নিজেই এ তথ্য জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

চলতি সপ্তাহে প্রেসিডেন্টের সাথে বেশ কয়েকটি সফরে যাওয়া হোয়াইট হাউজের সিনিয়র কর্মকর্তা হোপ হিকসের করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পরই ট্রাম্পের নমুনা পরীক্ষায় এ ফলাফল পাওয়া যায়।

ট্রাম্প টুইটারে লেখেন, ‘আজ রাতে মেলানিয়া ও আমি কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছি। আমরা অবিলম্বে আমাদের কোয়ারেন্টাইন ও সেরে ওঠা প্রক্রিয়া শুরু করব। আমরা একসাথে তা মোকাবিলা করব।’

ভাইরাসের আক্রমণে শারীরিক পরিস্থিতি জটিল হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন ৭৪ বছর বয়সী ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্র মহামারির সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি পেছনে ফেলে এসেছে বলে মন্তব্য করা ট্রাম্প এবার নিজেই আক্রান্ত হলেন করোনায়।