ঠাকুর ও সুন্দরের লড়াকু ব্যাটিংয়ে গাব্বায় ম্যাচে ফিরল ভারত


153 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ঠাকুর ও সুন্দরের লড়াকু ব্যাটিংয়ে গাব্বায় ম্যাচে ফিরল ভারত
জানুয়ারি ১৭, ২০২১ খেলা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

ওয়াশিংটন সুন্দর। অভিষেক টেস্টে বল হাতে সফল হওয়ার পর ব্যাটে হাতেও দলের হয়ে অবদান রাখলেন তিনি। অফ-স্পিনার ওয়াশিংটন সুন্দর ও পেসার শার্দুল ঠাকুরের ব্যাটে অনবদ্য সেঞ্চুরি পার্টনারশিপে গাব্বায় ম্যাচে ফিরল ভারত। দুইজনের লড়াকু হাফ-সেঞ্চুরিতে ১৮৬ থেকে ৩৩৬ রানে শেষ হয় ভারতের প্রথম ইনিংস।

এভাবেও ফিরে আসা যায়। লড়াই করারা মনোভাব নিয়ে খেললে সাফল্য অবধারিত যা বুঝিয়ে দিলেন টিম ইন্ডিয়ার দুই বোলার ঠাকুর ও সুন্দর৷। দলের প্রথম ছয় ব্যাটসম্যান ১৮৬ রানে প্যাভিলিয়নে ফিরে যাওয়ার পরও ভারতকে সাড়ে তিনশ রানের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেন এই দু’জনে। সপ্তম উইকেটে ১২৩ রান যোগ করে ভারতে ম্যাচে ফেরান ঠাকুর ও সুন্দর
অভিষেক টেস্টে সুন্দরের অনবদ্য ৬২ এবং কামব্যাক টেস্টে ঠাকুরের ৬৭ রানের লড়াই স্মরণীয় হয়ে থাকবে ক্রিকেটপ্রেমীদের। ব্যক্তিগত ২৩ রানে ঋষভ পন্ত আউট হওয়ার পর মনে হয়েছিল ভারতের ইনিংস ২০০ রানের গণ্ডিও পার হবে না। কিন্তু সেখান থেকে টিম ইন্ডিয়াকে সহজেই তিনশে রানের গণ্ডি টপকাতে সাহায্য করেন দলের সাত ও আট নম্বর ব্যাটসম্যান।

আক্রমণাত্মক ইনিংস খেলেন শার্দুল। ১১৫ বলের ইনিংসে ৯টি বাউন্ডারি ও ২টি ওভার বাউন্ডারি মারেন তিনি। এদিন টেস্টে ক্রিকেটে তার প্রথম হাফ-সেঞ্চুরিটি করেন শার্দুল। এর আগে একটি মাত্র টেস্ট খেলেছিলেন তিনি। ২০১৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে টেস্ট অভিষেকের পর ক্যারিয়ারে দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে নামেন ঠাকুর। কামব্যাক টেস্টে বল হাতে তিন উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি ব্যাট হাতে চমৎকার হাফ-সেঞ্চুরি করলেন তিনি।

সুন্দরের লড়াই আরও চমৎকার। অভিষেক টেস্টে গাব্বায় বল হাতে তিন উইকেট এবং ব্যাটে দুরন্ত হাফ-সেঞ্চুরি করে নজির গড়লেন তিনি। দ্বিতীয় ভারতীয় এবং বিশ্বের দশম ক্রিকেটার হিসেবে অভিষেক টেস্টে হাফ-সেঞ্চুরি এবং বল হাতে তিন বা তার বেশি উইকেট নিয়ে দাত্তু ফাদকরকে ছুঁয়ে ফেললেন সুন্দর। ১৯৪৭-৪৮ মৌসুমে ভারতের প্রথম অস্ট্রেলিয়া সফরে সিডনিতে বল হাতে ১৪ রানে তিন উইকেট এবং ব্যাটে ৫১ রান করেছিলেন ফাদকর।

আজ রবিবার গাব্বায় তৃতীয় দিনের শুরুটা মন্দ হয়নি ভারতের। দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান চেতেশ্বর পূজারা ও ক্যাপ্টেন আজিংকা রাহানের ব্যাটে প্রথম ঘণ্টা ভালো ব্যাটিং করলেও লাঞ্চে এই দু’জনের উইকেট হারিয়ে চার উইকেটে ১৬১ রান তুলেছিল ভারত। পূজারা ২৫ এবং ক্যাপ্টেন রাহানে ৩৭ রান করে আউট হন। তবে লাঞ্চের পর ময়াঙ্ক আগরওয়াল ও ঋষভ পন্ত দলের রান বেশি দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেননি।

প্রথম দু’টি টেস্টে ইনিংসের সূচনা করলেও এদিন পাঁচ নম্বরে ব্যাট করে নামা আগরওয়াল ৩৮ রান করে জোস হ্যাজেলউডের শিকার হন। পন্তও হ্যাজেলউডের শিকার৷ মাত্র ২৩ রান করে আপার-কাট মারতে গিয়ে আউট হন সিডনিতে দ্বিতীয় ইনিংসে ৯৭ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলা ভারতীয় এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। তারপর দলকে টানেন শার্দুল ও ওয়াশিংটন। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ৫৭ রান দিয়ে পাঁচটি উইকেট নেন হ্যাজেলউড।

তৃতীয় দিন শেষে অস্ট্রেলিয়া তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে কোনও উইকেট না হারিয়ে ২১ রান সংগ্রহ করেছে। ভারতের চেয়ে তার এখন ৫৪ রানে এগিয়ে। ক্রিজে আছেন ডেভিড ওয়ার্নার (২০) ও মার্কাস হ্যারিস (১)। ৪ টেস্টের সিরিজে এখন ১-১ সমতা।