ডুমুরিয়ায় ভুট্রা চাষে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বাম্পার ফলনের আশা


130 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ডুমুরিয়ায় ভুট্রা চাষে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বাম্পার ফলনের আশা
এপ্রিল ২৩, ২০২১ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

গাজী আব্দুল কুদ্দুস, চুকনগর :
খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার খর্নিয়া ইউনিয়নে ভুট্টা চাষের আবাদ মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ভুট্টা চাষে এবার বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের বলিষ্ঠ ভূমিকা পালনের জন্য গত বছরের তুলনায় এ বছর অধিক জমিতে ভুট্টা আবাদ হচ্ছে এ অবস্থা থাকলে আগামী অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রা অধিক জমিতে ভুট্টা আবার হবে বলে কৃষিবিদরা মনে করেন । উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে ,চলতি মৌসুমে ডুমুরিয়া উপজেলার খর্নিয়া ইউনিয়নের প্রায় পাঁচ হেক্টর জমিতে ভুট্টা চাষ করা হয়েছে। স্থানীয় কৃষক টিপনা গ্রামের শেখ মুনজুর রহমান তিন বিঘা জমিতে ভুট্টা চাষ করে আগের তুলনায় ভালো ফলন পাবে বলে আশা করছেন। খর্নিয়া ইউনিয়নের কৃষক রহমাত খান, দিদার শেখ ,আলতাফ গাজী ,শেখ আনিসুর রহমান ,শেখ মহসিন সহ একাধিক কৃষক বলেন, চলতি মৌসুমের ভূট্টা কাটা শুরু হয়েছে, বাকিটা ৫/৬ দিনের মধ্যে কাটা শেষ হয়ে যাবে।ভুট্টা চাষের কৃষকরা এই প্রতিনিধিকে আরো বলেন, উপজেলা কৃষি অফিস সময় মতো আমাদের সকল কৃষকদের নানা প্রকার প্রশিক্ষণ ও জমিতে যেয়ে তদারকির কারণে এবার আমাদের আগের তুলনায় বাম্পার ফলন হয়েছে। তারপর মাঝে মধ্যে বৈরী আবহাওয়া না হলে ভুট্টার ফলন আরো ভালো হতো।
ডুমুরিয়া উপজেলা উপসহকারী কৃষি অফিসার মোঃ ইকবাল হোসেন মোল্লা ও উপজেলা উপ সহকারী কৃষি অফিসার মোঃ রবিউল বিশ্বাস বলেন ,আমাদের এই উপজেলায় কৃষক কৃষাণীর আগের তুলনায় অনেক সচেতন তারা তাদের জমিতে রোপণ কৃত কোন ফসলের কোন একটু সমস্যা দেখা দিলে সঙ্গে সঙ্গে আমাদের কাছে ছুটে আসে আর আসার পর আমরা তাদেরকে নানা প্রকার পরামর্শ দিয়ে থাকি এছাড়া কৃষকদের সমস্যা সমূহ চিহ্নিত করার জন্য জমিতে গিয়ে সেই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করি শুধু তাই নয় কৃষকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে রোগ নিরাময় করা হয়ে থাকে । সে কারণে তারা উৎসাহী হয়ে অনেক পতিত জমিতে ভুট্টার আবাদ করেছেন আগামীতেও করবেন।ডুমুরিয়া উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ মোছাদ্দেক হোসেন বলেন,ডুমুরিয়া উপজেলার কৃষকরা অনেক সচেতন, এভাবে চলতে থাকলে এলাকার কৃষকরা দূরূত্ব স্বাবলম্বী হয়ে উঠবেন।

ডুমুরিয়ার মাগুরখালী ইউনিয়নে ১ কিলোমিটার রাস্তা চলাচলে অনুপযোগী।
গাজী আব্দুল কুদ্দুস চুকনগর।
খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার মাগুরখালী ইউনিয়নের শেখেরটেক নামক স্থানের ঘন জনবসতি গ্রামের মধ্য হতে চলে যাওয়া প্রায় এক কিলোমিটার মাটির কাঁচা রাস্তাটি সংস্কারের অভাবে গ্রামের হাজার হাজার সাধারণ মানুষ ও স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীদের চলাচলে দারুণভাবে অসুবিধা হচ্ছে। জানা যায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অবহেলা ও গাফিলতির কারণে উপজেলার শেখেরটেক মাটির কাঁচা রাস্তাটি চার যুগ ধরেও চলার উপযোগী হয়নি রাস্তাটি আঁকাবাঁকা কোথাও দুই হাত চওড়া কোথাও ৫/৭ হাত একটি মোটরসাইকেল চলতে পারলেও একখানা মালবাহী সবজি বা ধানের ভ্যান গাড়ি চলতে পারে না রাস্তাটি এত ঝুঁকিপূর্ণ প্রতিনিয়ত সাধারণের রাস্তা চলতে ছোট-বড় দুর্ঘটনার শিকার হতে হচ্ছে রাস্তার দুই ধার দিয়ে মাছের ঘের থাকার কারণে চলাচলের এই সমস্যাটি হচ্ছে বলে এলাকাবাসীর মতামত। নাম বলতে অনিচ্ছুক শেখেরটেক গ্রামের একাধিক ব্যক্তি জানান মাগুখালী ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিদের বারবার রাস্তাটি সংস্কারের কথা বলার সত্বেও অদৃশ্য কারণে কেন যে হচ্ছে না এলাকাবাসীর বোধগম্য নয় শুধুমাত্র নির্বাচনের সময় এলে প্রতিজ্ঞা করেন এবার নির্বাচনে জয়লাভ করলে ইটের সলিঃ দ্বারা রাস্তাটি করে দেব।শুধু মাত্র নির্বাচনের আগে সামান্য মাটি দ্বারা দায়সারা কাজ কাজ করে চলে রায়,তার পর এলাকাবাসীর চলাচলের সুবিধার জন্য মাটি দিয়ে পায়ে হেঁটে চলার মত ব্যবস্হা করেছে।এ বিষয় কথা হয় ডুমুরিয়া উপজেলার মাগুরখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিমল কৃস্ন সানার সাথে, তিনি বলেন,এবার বাজেট এলে অতি দূরুত্ব রাস্তাটি সমস্কার করে দেব।