ডেঙ্গু নিয়ে আর ব্লেইম গেম নয় : স্বাস্থ্যমন্ত্রী


66 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ডেঙ্গু নিয়ে আর ব্লেইম গেম নয় : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
আগস্ট ৭, ২০১৯ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ডেঙ্গু নিয়ে আর ব্লেইম গেম নয়। ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। মশা জন্ম না নিলে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা কমে যাবে।

বুধবার রাজধানীর মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে এক বৈজ্ঞানিক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন এ সেমিনারের আয়োজন করে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সিটি করপোরেশন তো আর বাড়ির ভেতরে গিয়ে মশা মারার জন্য স্প্রে করতে পারবে না। কিন্তু যেখানে পানি জমে থাকে সেখানে স্প্রে করা প্রয়োজন। সিটি করপোরেশন স্প্রে করছে, আরও ভালো করে স্প্রে করা প্রয়োজন। যত স্প্রে করা হবে, ডেঙ্গুর বাহক এডিস মশা তত কমবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জাহিদ মালেক বলেন, বর্তমান ডেঙ্গু পরিস্থিতিকে স্বাভাবিকও বলছি না। আবার মহামারিও বলছি না। আমরা বলছি, ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, গত বছর ১০ হাজারের মতো মানুষ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছিল। এবার ৩০ হাজার ছাড়িয়েছে। মুগদা হাসপাতালে একটি ভালো চিত্র পেলাম। এখানে ৩৮৭ জন ডেঙ্গু রোগী এখনও চিকিৎসাধীন। ১ হাজার ২০০ জনের মতো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছেন। চিকিৎসকরা ভালো সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এ কারণে এ হাসপাতালে ডেঙ্গুতে একজনেরও মৃত্যু হয়নি।

তবে স্থানীয় এমপি সাবের হোসেন চৌধুরী চেয়ার ছেড়ে উঠে এসে একটি কাগজ হাতে দেওয়ার পর তা দেখে জাহিদ মালেক বলেন, তারা বলছেন এ হাসপাতালে ১১ জন মারা গেছেন। কিন্তু কতজন ডেঙ্গুর কারণে মারা গেছেন, তা নিশ্চিত করতে পারেননি।

ডেঙ্গু পরীক্ষা কিটের সংকট দূর হয়েছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, কিটের সংকট ছিল। তা আমদানি করার কারণে সেই সংকট দূর হয়েছে। প্রতিদিন ২ লাখ করে কিট দেশে আসছে। সুতরাং কিটের কোনো ঘাটতি নেই।

দেশে না থাকলেও এক দিন পর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার কথা হয়- এমন তথ্য জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, প্রধানমন্ত্রী প্রতিনিয়ত বিদেশ থেকে দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন। এক দিন পরপরই তার সঙ্গে কথা হয়। ওনার নির্দেশনায় ডেঙ্গু রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

চিকিৎসকদের সঠিকভাবে কাজ করতে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, চিকিৎসকদের নির্দেশনা দেবেন না। অসুস্থ হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। তারাই ভালো চিকিৎসা দেবেন। যার যার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করলে ডেঙ্গু সমস্যার সমাধান মিলবে।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের রিউমাটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. সৈয়দ আতিকুল হক।

বিএমএ সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থানীয় এমপি সাবের হোসেন চৌধুরী। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বিএমএ মহাসচিব ইহতেশামুল হক চৌধুরী, অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ, ডা. শাহ গোলাম নবী তুহিন প্রমুখ বক্তৃতা করেন।