ঢাকা থেকে সাতক্ষীরায় পালিয়ে আসা মহিলা করোনা রোগি আশাশুনি থেকে উদ্ধার !


828 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ঢাকা থেকে সাতক্ষীরায় পালিয়ে আসা মহিলা করোনা রোগি আশাশুনি থেকে উদ্ধার !
মে ১৩, ২০২০ আশাশুনি ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর স্বাস্থ্য
Print Friendly, PDF & Email

সুমন মুখার্জ্জী :
ঢাকা থেকে পালিয়ে আসা এক মহিলা করোনা রোগিকে সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার মহাজনপুর বিলের ভিতর থেকে আজ বুধবার রাত সাড়ে ১০ টার দিকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওই মহিলা করোনা রোগির নাম নিলুফার ইয়াসমিন (২৫)। তিনি সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়নের বেউলা গ্রামের জামাল মোড়লের মেয়ে।

ঢাকার সাভারের একটি গার্মেসে চাকরি করেন। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন নিলুফার ইয়াসমিন। সেখান থেকে কৌশলে তার স্বামী সোহেল রানাকে সাথে নিয়ে সাতক্ষীরার আশাশুনিতে তার বাবার বাড়িতে পালিয়ে আসেন।

বেউলা গ্রামের একাধিক ব্যক্তি জানায়, বুধবার ভোরে গ্রামবাসী জানতে পারে করোনা আক্রান্ত হয়ে নিলুফার ইয়াসমিন ঢাকা থেকে পালিয়ে তার বাবার বাড়িতে এসে আশ্রয় নিয়েছে। বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়। এরই মধ্যে আজ সকালে নিলুফার ইয়াসমিন তার স্বামী ও বাবা-মাকে নিয়ে সেখান থেকে পালিয়ে যায়। স্থানীয় ইউপি সদস্য শেখ মো: জেরীর সহযোগিতায় আজ দুপুরে জামাল মোড়লের বাড়িতে লাল পতাকা টানিয়ে দেয়া হয়। পরে বাড়িটি লকডাউন ঘোষণা করে স্থানীয় প্রশাসন।

এদিকে, মহিলা করোনা রোগি পালিয়ে আসার খবর জানতে পেরে পুলিশ দিনভর তাদের উদ্ধারের চেষ্টা করতে থাকে। অবশেষে প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তাদেরকে খুঁজে পায় ।

বুধবার রাত সাড়ে ১০ টার দিকে আশাশুনি উপজেলার মহাজনপুর বিলের ভিতর থেকে তাদেরকে উদ্ধার করা হয়।

আশাশুনি থানার ওসি (ভারপ্রাপ্ত ) মাহফুজুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান ‘মহাজনপুর বিলের ভিতর তারা পালিয়ে ছিল। পুলিশ ওই মহিলা করোনা রোগিসহ তাদেরকে আজ রাত সাড়ে ১০ টার দিকে উদ্ধার করে। সাতক্ষীরা থেকে মেডিকেল টিম রওনা হয়েছে। ওই মেডিকেল টিমের কাছে তাদেরকে হস্তান্তর করা হবে’।

সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডা: জয়ন্ত সরকার ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান ‘ তাদের উদ্ধারের জন্য মেডিকেল টিম আশাশুনিতে গিয়েছে। ওই মহিলা করোনা রোগিসহ তাদেরকে উদ্ধার করে রাতেই সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করার প্রক্রিয়া চলছে’।