তরুণ সমাজকে সঠিক ভাবে পরিচর্যা করা গেলে গণতন্ত্র ও মানবাধিকার সুদৃঢ় হবে : সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক


333 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তরুণ সমাজকে সঠিক ভাবে পরিচর্যা করা গেলে গণতন্ত্র ও মানবাধিকার সুদৃঢ় হবে : সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক
সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় ও মানবাধিকার সদৃঢ়করণে তরুণদের ভূমিকা অনেক। দেশের তরুণ সমাজকে যদি সঠিকভাবে পরিচর্যা করা যায়, প্রশিক্ষিত করে গড়ে তোলা যায় তাহলে গণতন্ত্রকে আরও বেশী কার্যকর করা সম্ভব। মানবাধিকার সুদৃঢ়করণেও সঠিক পথ খুঁজে পাওয়া যাবে। সমাজের সাধারণ মানুষও উপকৃত হবে।

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান বুধবার দুপুরে সাতক্ষীরা ও কলারোয়ার বাছাইকৃত তরুণদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। সেফার ওয়ার্ল্ডের সহযোগিতায় বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইন্সটিটিউটের আয়োজনে অনুষ্ঠিত তিনদিনের ‘অংশগ্রহনমূলক গবেষণা ও পরিবর্তনমূখী বিশ্লেষণ’ বিষয়ক তিনদিনের কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও আমেরিকায় নিযুক্ত বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির।

প্রধান আলোচক ছিলেন অষ্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত এম হুমায়ুন কবির। অনুষ্ঠান সঞ্চালক ছিলেন সংগঠনের সাতক্ষীরা সমন্বয়কারী আমিনা বিলকিস ময়না। অতিথি ছিলেন গবেষক আশীষ বণিক,  ইশতিয়াক  আলম রাসেল, দেশ টিভি’র সাতক্ষীরা প্রতিনিধি শরীফুল্লাহ কায়সার সুমন প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে সাবেক রাষ্ট্রদূত মোহম্মাদ হুমায়ুন কবির বলেন, গণতন্ত্র শক্তিশালীকরণে যুব সমাজের ভূমিকা এবং সে প্রেক্ষাপটে বিচার ব্যবস্থায় জনগণের অংশগ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি করা জরুরী। বিশেষত: বিকল্প বিচার ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করার ব্যাপারে যুব সমাজের সম্পৃক্ত করার গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতন করাও জরুরী কাজ। একাজে যুব সমাজের নিজের কার ও সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং সামাজিক শক্তিকে ব্যবহার করলে তাতে গণতন্ত্র সমাজের সকল মানুষের জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি করে গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করে তোলা সম্ভব। বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইন্সটিটিউট ও সেফার ওয়ার্ল্ড যৌথ উদ্যোগ গ্রহণ করবে এবং গবেষণা ও সৃজনশীল কর্মকান্ডের মাধ্যমে এ প্রক্রিয়াকে শক্তিশালী করা হচ্ছে।

কর্মশালার সমাপনি অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান আরও বলেন, ‘তরুণরা অনেক কিছু বদলে দিতে পারেন। বেতন কাঠামো নিয়ে আলোচনা করতে যেয়ে একজন বলেছেন এরফলে ঘুষও বাড়বে চারগুন। কিন্তু আমি বলবো মানুষ যদি অঙ্গীকারাবদ্ধ হয় ঘুষ দেবে না। তাহলে অফিস কাচারিতেও ঘুষের সংস্কৃতিও বন্ধ হবে।’ তিনি যুব সমাজকে পরিবেশের জন্যও ঘুরে দাঁড়াতে অনুরোধ করেন। তিনি সবাইকে একটি করে আমগাছ লাগানোর জন্য অনুরোধ জানান।