তালার জালালপুর ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ বনমালীর বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ


144 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালার জালালপুর ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ বনমালীর বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ
ডিসেম্বর ৪, ২০২২ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বি. এম. জুলফিকার রায়হান ::

তালার জালালপুর ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ বনমালী দাশের বিরুদ্ধে নিরিহ মানুষদের কাছ থেকে সুবিধা আদায়ে ব্যর্থ হয়ে মিথ্যা মামলায় হয়রানী করা, জমি জোর দখল, হামলা চলানো ও হুমকি প্রদান সহ নানাবিধ অভিযোগ উঠেছে। একই সাথে বনমালী ২ ছেলের চুরি, হামলা ও স্কুল ছাত্রীকে উত্ত্যাক্ত করা সহ নানাবিধ অভিযোগ উঠেছে। পিতা ও ছেলের অত্যাচারে বর্তমানে এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ।
উপজেলার নেহালপুর গ্রামের মাধব দাশ সহ একাধিক ব্যক্তি জানান, একই গ্রামের বনমারী দাশ জালালপুর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ হিসেবে কর্মরত রয়েছে। একারনে প্রশাসনের সাথে তার সখ্যতা থাকায় সে এলাকার নিরিহ মানুষদের নানাভাবে হয়রানী করছে। রাস্তার পাশে নিজস্ব রেকর্ডীয় জমিতে ঘর করতে হলে বনমালীকে ঘুষ দিতে হয়। নাদিলে সে বিভিন্ন দপ্তরে হয়রানীমূলক অভিযোগ করে। তার অনৈতিক কাজে বাঁধা দিলে সে মিথ্যা অভিযোগ এবং মামলা করে গ্রামের মানুষদের অতিষ্ঠ করে তুলছে। বনমালীর মতো তার ছেলে চন্দ্রকান্ত এলাকার এক স্কল ছাত্রীকে দীর্ঘদিন ধরে উত্ত্যাক্ত করে। এনিয়ে সালিস বিচার হলে সে ভাল হয়ে যাবে বলে ওয়াদা করলেও এখনও ভাল হয়নি। বনামলীর অপর ছেলে সূর্য্যকান্ত’র বিরুদ্ধে মোবাইল চুরি সহ তুচ্ছ ঘটনায় এলাকার সিমন দাশ নামের এক যুবককে পিটিয়ে দাঁত ভেঙ্গে দেয়। এয়াড়া সূর্য্যকান্ত প্রতারনার মাধ্যমে এক মেয়েকে ফুসলিয়ে এনে বিয়ে করে পরে যৌতুক না পেয়ে ওই মেয়ের উপর নির্যাতন চালাতে থাকে। একপর্যায়ে এনজিও থেকে লোন ওাানোর কথা বলে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করিয়ে নিয়ে ওই স্ট্যাম্প ব্যবহার করে স্ত্রীকে প্রতারনার মাধ্যমে তালাক দেয়। গ্রাম পুলিশ পিতা বনামলী ও তার ছেলেদের অত্যাচার থেকে রক্ষা পেতে এলাকার একাধিক ব্যক্তি প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে আদেবন করেছেন।

#