তালার তৃণমুল আওয়ামীলীগের আস্থাভাজন নেতা ঘোষ সনৎ কুমার


738 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালার তৃণমুল আওয়ামীলীগের আস্থাভাজন নেতা ঘোষ সনৎ কুমার
নভেম্বর ২৪, ২০১৯ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অমিত কুমার ::

আগামী ৪ঠা ডিসেম্বর তালা উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। কাউন্সিলরা উক্ত কাউন্সিলে তৃণমুল আওয়ামীলীগের আস্থাভাজন, সৎ, যোগ্য, ত্যাগী নেতা ঘোষ সনৎ কুমারকে পুনরায় সাধারন সম্পাদক হিসেবে দেখতে চান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের একাধিক সভাপতি সম্পাদক এ প্রতিবেদককে জানান, জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে সকল উন্ন্য়নমূলক কর্মকান্ডকে জনগনের দোরগোড়ায় পৌছে দিতে ঘোষ সনৎ এর বিকল্প নেই। তালা উপজেলা আওয়ামীলীগের জনপ্রিয় নেতা ঘোষ সনৎ কুমারকে টানা চতুর্থ বারের মত দলীয় সামর্থনে সাধারন সম্পাদক দেখতে চায় তালার তৃণমুল আওয়ামীলীগ নেতাকর্মিরা। তালা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হিসাবে দীর্ঘদিন দলকে সুসংগঠিত করে রেখেছেন তিনি। টানা তৃতীয় বারের মত তালা উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মিদের সমর্থন ও সাধারন জনগনের ভালবাসা নিয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

তালার তৃণমুলের আস্থাভাজন এই আওয়ামীলীগ নেতার রাজনৈতিক কর্মকান্ড অত্যান্ত চমকপ্রদ। ১৯৭৫ সালে ছাত্রজীবন থেকে রাজনৈতিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত থেকে সুনামের সহিত দলকে নেতৃত্ব দিয়ে এসেছেন। প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে তার ভুমিকা ছিল অগ্রনী। নেতৃত্ব প্রদানকালে জেল জুলুম অত্যাচার সহ্য করে তালার সাধারন নেতাকর্মিদের মাঝে জনপ্রিয় নেতা হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।

রাজনৈতিক জীবনে তিনি ১৯৭৮ সালে তালা বি.দে. সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক, ১৯৮০ সালে তালা কলেজ ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক, ১৯৮২ সালে তালা কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি, ১৯৮৩ সালে তালা থানা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক, ১৯৮৬-৯৬ সাল পর্যন্ত দীর্ঘদিন তালা থানা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৬ সাল থেকে অদ্যাবধি তিনবার তালা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হিসাবে দলকে সুসংগঠিত করে রেখেছেন। তিনি ২০০৯, ২০১৪ ও ২০১৯ সালে তালা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তিনি। ১৯৮৫ সাল থেকে তালা উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি, ১৯৯০ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত তালা উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্ট্রান ঐক্য পরিষদের উপদেষ্টা হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি বিভিন্ন কলেজ মাদরাসা ও বিদ্যালয়সহ বহু সংগঠনের সভাপতির পদে অধিষ্ঠিত আছেন। জনপ্রিয় এই নেতা ১৯৯০ সালে এরশাদ বিরোধী আন্দোলন ও ২০০১ সালে জামায়াত-বিএনপির নির্যাতনের শিকার হয়ে অনেকবার কারাবরন করেছেন। তাই আগামী ৪ঠা ডিসেম্বর উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সস্মেলনে নেতাকর্মিরা পুনরায় এ ত্যাগী নেতাকে সাধারন সম্পাদক হিসাবে নির্বাচিত হবেন বলে কাউন্সিলরা দাবী করেন।