তালার বন্যা কবলিত কপোতাক্ষ পাড়ের মানুষের মাঝে ঈদ-পূজার আনন্দ নেই


622 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালার বন্যা কবলিত কপোতাক্ষ পাড়ের মানুষের মাঝে ঈদ-পূজার আনন্দ নেই
সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৫ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি :
গত দুদিনের প্রবল বর্ষনে কপোতাক্ষ পাড়ে মানুষের মাঝে ঈদের আনন্দে ভাটা পড়েছে। মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আযাহা ও হিন্দু সম্প্রদায়ের  শারদীয় দূর্গা উৎসবের আনন্দ ম্লান হতে চলেছে। সারাদেশের মানুষের মাঝে ঈদ পূজার আনন্দের বন্যা বইলেও তালা উপজেলায় তার ব্যতিক্রম। ঈদ পূজা বন্যা কবলিত মানুষের মাঝে কেবল হতাশা আর আর্তনাদ। কপোতাক্ষ পাড়ের মানুষের দাবী কপোতাক্ষ খনন করে এ সমস্যা দ্রুত সমাধান। আতঙ্কিত তালার মানুষের মাঝে এবার তেমন ঈদ-পূজার আনন্দ নেই।

ঈদ পূজাকে সামনে রেখে সারাদেশে হিন্দু-মুসলমানদের মাঝে চলছে কেনাকাটার ধুম। ধনী-গরীব, কিশোর, বৃদ্ধ সকলের মাঝে চলছে আনন্দের জোয়ার। তালায় গত দুদিনের প্রবল বর্ষণের কারণে সেই আনন্দ কিছুটা ম্লান। বর্ষায় নিম্নআয়ের মানুষের কাজকর্ম কিছুটা ভাটা পড়েছে। কাজকর্ম না থাকায় গরীব ও সাধারণ পেশাজীবী মানুষ তাদের সন্তান-সন্তানীর জন্য পছন্দ মতো পোষাক-পরিচ্ছদ ক্রয় করতে পারছে না। স্থানীয় পাটকেলঘাটা বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী কসমেটিক্স, গার্মেন্টস ব্যবসায়ীরা জানান, বর্ষার কারণে ঈদ-পূজার কেনাকাটায় ভাটা পড়েছে। ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে খুশি। যা কপোতাক্ষ তীরবর্তী অঞ্চলের মানুষের মাঝে বিরূপ চিত্র হয়ে দেখা দিয়েছে। এ বছর বৃষ্টি আর কপোতাক্ষের উপছে পড়া পানিতে তালার প্রায় লক্ষাধিক মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যায়  তালা উপজেলার  অনেক গ্রাম পানিতে প¬াবিত হয়েছে।

সরেজমিন বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার কানাইদিয়া, কৃষ্ণকাটি, চরকানাইদিয়া, আটঘরা, জেঠুয়া নেহালপুর ঘোনা, কাজিডাঙ্গা, ভবানিপুর, খরাইল, নারানপুর খানপুর, খড়েরড়াঙ্গা, কাটাখালি, মাদরা, বিশুকাটি, মাগুরাডাঙ্গা, কিসমতঘোনা, তালামালোপাড়া, তালা সদর, মহল্লাপাড়া, পুটিয়াখালী, কাশিপুর, রাঢ়িপাড়া, আমানুল্লাপুর, সেনপুর, গৌরিপুর, কুমিরা মালোপাড়া, মির্জাপুর, কুমিরা, কেশা, কাটিপাড়া, কলাপোতা, নওয়াপাড়া, ধলবাড়িয়া, দেওয়ানীপাড়া, ওমরপুর, মানিকহার, দক্ষিণ সারসা, দাদপুর, সমনডাঙ্গা, গাবতলা, নিমতলা, কাপাসডাঙ্গা, গোয়ালপোতা, ভৈরবনগর, গঙ্গারামপুর, ঘোষনগর, নলতা, মালোপাড়াসহ প্রায় একশ গ্রামের  মানুষ কম-বেশি পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।

অনেক মসজিদ ঈদগাহ পানিতে ডুবে থাকার কারনে ঈদের নামাজ অন্যত্র আদায় করতে হবে। বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, গত ক’দিনের বর্ষণে অধিকাংশ নিচু এলাকা পানিতে ডুবে গেছে। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় কৃষকের রোপন করা আমন ধান ও মৎস্য ঘের পানিতে ডুবে একাকার হয়ে গেছে। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে তালা উপজেলা সহ পার্শ্ববর্তী ৫টি উপজেলার কপোতাক্ষ পাড়ের প্রায় ৮লক্ষাধিক মানুষ বন্যা কবলিত হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। গতক কপোতাক্ষ পাড়ের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, গত কয়েক দিনের  প্রবল বর্ষণে তালা উপজেলার বিভিন্ন নিচু এলাকা ও কপোতাক্ষ পাড়ের বিভিন্ন বাড়ীতে পানি উঠে লোকজন মানবেতর জীবন যাপন করছে।  কপোতাক্ষ পাড়ের মানুষ চরম হতাশায় দিন যাপন করছে। তালা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার জানান তিনি প্লাবিত  এলাকা পরিদর্শন করেছেন।