তালার মাঠ জুড়ে সরিষা ফুলের হলুদ সমারোহ


3036 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালার  মাঠ জুড়ে সরিষা ফুলের হলুদ সমারোহ
ডিসেম্বর ৯, ২০১৫ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কামরুজ্জামান মোড়ল, পাটকেলঘাটা :

তালা উপজেলার মাঠে মাঠে এখন অপরুপ সৌন্দার্য বিলাচ্ছে সরিষা ফুলের হলুদ সমারোহ। হেমন্তের তরুরাজ্যে অন্যান্য ফুলের উপস্থিতি কম থাকলেও বিস্তৃত মাঠ জুড়ে সরিষা ফুলের উজ্জ্বলতায় মন জুড়ে যায়।

সরিষা ফুল মানুষের কাছে যেন হেমন্তের বার্তা বয়ে আনে। হেমন্তে শিশির ঝরা সরিষা ফুলের পাপড়িতে শীতের সকালে রোদের ঝিলিক আর বাতাসে সরিষা ফুলের আভা।

ফুলে ফুলে মৌমাছির গুঞ্জরণ। দেখলে মনে হয় মধু আহরণের প্রতিযোগীতায় নেমেছে তারা। এ সময় তাদের মুখে ফুটে ওঠে হাসির ফুয়ারা। প্রজাপতিরাও আপন মনে ঘিরে থাকে সকাল সন্ধ্যা জুড়ে।

এদিকে মাঠে চলছে কৃষকের আমন ধান কাটা-মাড়াইয়ের কাজ। ঘরে ঘরে নবান্নের উৎসব। সেই সাথে ইরি-বোরো বীজ তলা তৈরির কাজও চলছে পুরোদমে। প্রতিটা কৃষকের এখন ব্যস্ততা কমতি নেই।

শিশির ঝরা সকালে সরিষা ক্ষেত নাড়িয়ে কাজের সন্ধানে কৃষকের চলা। সকালে মিষ্টি মধুর রোদে বসে পিঠা পায়েষ খাওয়া এক আলাদা অনুভতি। প্রাকৃতিক অপরুপ সৌন্দর্যের মধ্যে কৃষকের মুখে হাসির ঝিলিক। সেই সাথে হেমন্তের এই শীতের সকালে মৌমাছিদের মৌ মৌ শব্দে হাসির বান ডেকেছে। মাঠে মাঠে নামিয়েছে মধু সংগ্রহের ডালা। আহরণ করছে মধু।

এসময় মৌয়ালীদের মধু সংগ্রহের ব্যস্ততা বেড়ে গেছে। অন্যান্য ফসলের মত সরিষা চাষের সুফলের দিকে কৃষকরা তাকিয়ে রয়েছেন ভাল ফলন ঘরে তুলবেন বলে। এ উপজেলায় চলতি মৌসুমে কৃষকরা ১৯৫ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষ করেছেন। তালা উপজেলা কৃষি অফিস সরিষা ফলনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করতে পারেনি। আমাদের দেশে ভোজ্য তেলের প্রায় ৬০ভাগ আসে সরিষার তেল থেকে।

সাধারণত চাষিরা কার্তিক মাসের প্রথম সপ্তাহে সরিষা বীজ বপন করে থাকেন। বপনের ২০-২৫ দিনের মাথায় ক্ষেতে একবার সেচের ব্যবস্থা করা হয়। সেই সাথে পরিমানমত রাসায়নিক সার প্রয়োগ  এবং সময়মত পরিচর্যা করলে ভাল ফলন হয়।

সরিষা ফুলের কুড়ি আসা শুরু হলে জাপ পোকার আক্রমন দেখাদিতে পারে। এসময় চাষিরা ডাইমেক্রম বা ম্যালেথিয়ন এস্প্রে করলে ভাল ফলন বৃদ্ধি পায়। ফুল ঝরে যাওয়া শেষ হলে ১৫-২০ দিনের মধ্যে সরিষা কেটে ঘরে তুলতে হয়।

এবার সরিষা তেলের দামও ভাল। এ উপজেলায় গত কয়েক বছরে রবি শস্যের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে সরিষা চাষে মনোযোগী হয়েছেন। তাই অন্যান্য বছরের তুলনায় এবছর চাষিরা ব্যাপকহারে সরিষা বপন করেছেন। স্বল্প মেয়াদী এ ফসলে বাম্পার ফলনের আশাও করছেন তারা।