তালার মহান্দি গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় একটি পরিবার খোলা আকাশের নিচে


330 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালার মহান্দি গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় একটি পরিবার খোলা আকাশের নিচে
মার্চ ২৩, ২০১৬ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

বি. এম. জুলফিকার রায়হান তালা (সাতক্ষীরা)
উপজেলার মহান্দি গ্রামে হাবিবুর রহমান এর পরিবারের উপর তান্ডব চালিয়েছে প্রতিপক্ষরা। রাতে ও দিনে দু’দফা হামলা চালায় প্রতিপক্ষ গফ্ফার গং। হামলাকালে দোকান ও বাড়ির আসবাবপত্র ভাংচুর সহ লুটপাট করে মহিলা এবং শিশুদের পিটিয়ে তাড়িয়ে দিয়ে ঘর-বাড়ি দখল করে নেয়া হয়েছে। সব কিছু হারিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা খোলা আকাশের নিচে অবস্থান নিয়েছে।
মহান্দি গ্রামের মৃত. আরশাদ আলী মোড়লের পুত্র মফিজুল ইসলাম মোড়ল জানান, তার ভাই হাবিবুর রহমান মহান্দিা বাজারের পাশে পৈত্রিক জমিতে পরিবার নিয়ে বসবাস করে। এই জমি থেকে উচ্ছেদ করার জন্য সৎ ভাই হাফিজুর ও রশিদ মোড়ল গং দির্ঘদিন ধরে  হুমকি দিয়ে আসছিল। মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে মেম্বর প্রার্থী আব্দুর রশিদ মোড়ল পরাজিত হয়। এতে হাবিবুর মোড়লকে দায়ী করা হয় এবং রশিদ মোড়লের জামাতা জাকির ও গফ্ফার গং ক্ষুব্ধ হয়ে মহান্দি বাজারে হাবিবুরের চায়ের দোকানে হামলা চালায়। হামলাকালে দোকান ভাংচুর সহ দোকান থেকে টিভি ও টাকা লুট করা হয়। বুধবার সকালে হামলাকারীরা পুনরায় ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে হাবিবুরের বাড়িতে হামলা করে। হামলাকালে হাবিবুরের বাড়ি ও বাড়ির সকল আসবাবপত্র ভাংচুর সহ লুটপাট এবং তান্ডব চালানো হয়। এঘটনায় বাঁধা দেওয়ায় হামলাকারীরা হাবিবুরের বৃদ্ধ মা রাহিলা বেগম (৫৭) স্ত্রী বিলকিচ বেগম (২৬) ও শিশু কন্যা রোকাইয়া (১০) কে পিটিয়ে আহত করে। একইসাথে হামলাকারীরা হাবিবুরের পরিবারের সদস্যদের ঘর থেকে বের করে দিয়ে ঘরের সকল আসবাবপত্র ভেঙ্গে পাশের জমিতে ফেলে দেয়। হাবিবুরের বৃদ্ধা মাতা, স্ত্রী ও দুই শিশু সন্তান বুধবার সারাদিন তাদের ভাঙ্গা আসবাবপত্র’র সাথে খোলা আকাশের নিচে অবস্থান করে। এব্যপারে মফিজুল ইসলাম হামলাকারীদের বিরুদ্ধে তালা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। তবে, লুটপাট ও হামলার বিষয় অস্বীকার করে সাবেক মেম্বর আব্দুর রশিদ মোড়ল বলেন, হাবিবুর যেখানে বসবাস করে সেই জমি তার সন্তান আকলিমা ও ফেরদৌস এর। তাদেরকে উক্ত জমি ছেড়ে দেবার জন্য শালিস’র মাধ্যমে বারবার বললেও কোনও কাজ হয়নি। বুধবার সকালে হাবিবুর আকলিমাকে অন্যায় করে পিটালে আমরা আমাদের জমি দখল নিয়েছি।