তালার মাছিয়াড়া গ্রামে দূর্বৃত্তদের হুমকিতে একটি পরিবার নিরাপত্তাহীন


258 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালার মাছিয়াড়া গ্রামে দূর্বৃত্তদের হুমকিতে একটি পরিবার নিরাপত্তাহীন
জুন ১, ২০১৯ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

সংবাদ সম্মেলনে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন

বি. এম. জুলফিকার রায়হান ::

জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানী ও জমি থেকে উচ্ছেদ করে জোর দখল চেষ্টা, জীবন নাশের হুমকি প্রদান, হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট সহ মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে অপপ্রচার চালানোর প্রতিবাদে তালা রিপোর্টার্স ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকালে তালা উপজেলার মাছিয়াড়া গ্রামের মো. আমীর আলী গাজী’র পুত্র মো. শাহাদাত গাজী সংবাদ সম্মেলন করেন।
লিখিত বক্তব্য পাঠকালে শাহাদাত গাজী জানান, তার বাড়ির পাশের মাছিয়াড়া মৌজার হাল ৪৩২ খতিয়ানের ২৩৬২ ও ২৩৮৪ দাগ থেকে ৯ শতক জমি তিনি সহ তারা ৩ভাই একই গ্রামের তারাই মোড়ল’র পুত্র রহিম বক্স মোড়ল’র নিকট থেকে ২৬/০৮/১৯৯৫ তারিখে ৪৯১৩ নং কোবলা দলিলে খরিদ করেন। এস.এ. রেকর্ডীয় ও শান্তিপূর্ন দখলীকার রহিম বক্স মোড়ল’র কাছ থেকে ২ দাগের ৯শতক জমি ক্রয় করার পর থেকে শাহাদাত গং শান্তিপূর্ন ভোগদখলে ছিলেন। কিন্তু এরইমধ্যে প্রতিবেশি মোকছেদ মোড়ল এর কন্যা রাশিদা বেগম ২৩৮৪ দাগের ৫শতক জমি কৌশলে জোর দখল নেবার জন্য অপচেষ্টা শুরু করে।
শাহাদাত গাজী বলেন, ২৩৮৪ দাগের মোট ৩৩শতক জমির মধ্যে তারা ৫শতক জমি ক্রয় করেন। বাকি ২৮শতক জমির মধ্যে রাশিদা বেগম ২শতক সহ একাধিক ব্যক্তি মালিকানাধিন ও দখলীকার রয়েছে। কিন্তু রাশিদা বেগম তার জমির সীমানা অতিক্রম করে প্রতিনিয়ত আমাদের ৫শতক জমি জোর দখলের চেষ্টা চালায়। যে কারনে সেটেলমেন্ট জরিপে উক্ত ক্রয়কৃত ৯শতক জমির মধ্যে ২৩৬২ দাগের ৪শতক জমি শান্তিপূর্ন ভোগদখলীয় এবং ২৩৮৪ দাগের ৫শতক জমির দখল না দেখিয়ে আমাদের নামে রেকর্ড হয়েছে।
শাহাদাত গাজী জানান, সেটেলমেন্ট জরিপে ৯শতক জমি বিধি মোতাবেক আমাদের নামে রেকর্ড হয়। কিন্তু রেকর্ডে ৫ শতক জমির ভোগদখলীয় না দেখানোয় এবং রাশিদা বেগম সহ তার পরিবারের লোকজন প্রতিনিয়ত আমাদের জমি জোর দখলের চেষ্টা ও হুমকি দেয়ার ঘটনায় বিচার চেয়ে প্রথমে স্থানীয় ইউপি সদস্য মেহেদী হাসান পাড়’র নিকটে অভিযোগ করি। কিন্তু দূর্দান্ত রাশিদা বেগম গং ইউপি সদস্যকে সম্পূর্ন অবমাননা করে। ফলে খলিলনগর ইউনিয়ন পরিষদে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করি। ইউনিয়ন পরিষদ অভিযোগটি আমলে নিয়ে রাশিদা বেগম গংদের নোটিশ করলে তারা নোটিশ গ্রহন না করে বাহক চৌকিদারকে উল্টো অকথ্য গালিগালাজ সহ অপদাস্থ করে। পরে বাধ্য হয়ে ন্যায় বিচার পাবার জন্য তাদের বিরুদ্ধে তালা থানায় অভিযোগ করি। থানা পুলিশ বিষয়টি মিমাংসার জন্য তাদের নোটিশ করলে তারা থানায় হাজিরা দিয়ে সময় নিয়ে চলে যায়। পরে এএসআই মনির উদ্দীন বারবার নোটিশ করলেও একটি প্রভাবশালী মহলের ইন্দনে তারা পুলিশকেও অবমাননা করে থানার শুনানিতে আর হাজিরা দেয়নি।
শাহাদাত গাজী অভিযোগ করে বলেন, ইউপি সদস্য, ইউপি চেয়ারম্যান ও তালা থানা পুলিশকে অবমাননা করে পার পেয়ে যাবার পর থেকে আরো বেপরোয়া হয়ে ওঠা রাশিদা বেগম গং প্রতিনিয়ত জমি ছেড়ে চলে যাবার জন্য আমাদের হুমকি দিতে থাকে। যার ধারাবাহিকতায় গত মাসের ২৪ মে জমিতে কাজ করার সময় মকছেদ মোড়ল’র ছেলে সলেমান মোড়ল, রবিউল মোড়ল ও রাশিদা বেগম গং ভাড়াটিয়া দূর্বৃত্তদের নিয়ে হামলা চালিয়ে মারপিট, ভাংচুর ও লুটপাট করে। হামলায় বাবুল গাজী (২৮) গুরুতর আহত হলে তাকে তালা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এঘটনায় হামলাকারীদের বিরুদ্ধে তালা থানায় একটি এজাহার দাখিল করলেও পুলিশ আজও এজাহারটি রেকর্ড করেনি। যেকারনে দূর্বৃত্ত রাশিদা বেগম গং এখন অধিকতর বেপরোয়া হয়ে প্রতিনিয়ত খুন-জখম ও তর্কিত ৫শতক জমি দখলের হুমকি দিচ্ছে। এমনকি পরিকল্পিতভাবে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর জন্য একটি কূচক্রী মহলের ইন্দনে কাল্পনিক অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করে রাশিদা বেগম মা’ আলেয়া বেগম অপপ্রচার চালাচ্ছে বলেÑ অভিযোগে বলেন তিনি। এসব ঘটনায় চরম নিরাপত্তাহীনতায় থাকা শাহাদাত গাজীর গোটা পরিবার সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন।

#