তালার শুভাষিনী ডিগ্রী কলেজে ছাত্রীর শ্লীলতাহানীর ঘটনায় ক্যাম্পাস উত্তাল


527 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালার শুভাষিনী ডিগ্রী কলেজে ছাত্রীর শ্লীলতাহানীর ঘটনায় ক্যাম্পাস উত্তাল
জুলাই ২৪, ২০১৯ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

২ ছাত্রলীগ নেতা দল থেকে সাময়ীক বহিষ্কার

বি. এম. জুলফিকার রায়হান ::

তালার শুভাষিনী ডিগ্রী কলেজের ২য় বর্ষের এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর ঘটনার প্রতিবাদে ক্লাস বর্জন করেছে শিক্ষার্থীরা। একই সাথে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি বাপ্পীর বহিষ্কার এবং ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি ফয়সালের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে শিক্ষার্থী ও শিক্ষক-কর্মচারীরা মিছিল ও সমাবেশ করেছে।
বুধবার (২৪ জুলাই) সকালে শুভাষিনী ডিগ্রী কলেজে প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, প্রথম বর্ষের ছাত্র মনিরুল ইসলাম, ২য় বর্ষের ছাত্র হাদিউজ্জামান, মাসুম হোসেন, ছাত্রী সুমাইয়া খাতুন, ডিগ্রী দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র মাসুদ রানা পিয়াস ও মাসুম প্রমুখ।
কলেজের শিক্ষার্থীদের “ইভটিজিং মুক্ত কলেজ ক্যাম্পাস চাই” দাবীর সহিত একমত পোষন করে বক্তব্য দেন, তেঁতুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সরদার রফিকুল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান ও কলেজের প্রতিষ্ঠাতা এম. এম. মকবুল হোসেন, কলেজের সহকারী অধ্যাপক হেম প্রসাদ, সহকারী অধ্যাপক কাজী তৈহিদুল ইসলাম, সহকারী অধ্যাপক শ্যামল কান্তি রায়, সহকারী অধ্যাপক মো. আকবর আলী, সহকারী অধ্যাপক মো. রবিউল ইসলাম, সহকারী অধ্যাপক ওবায়দুল ইসলাম, সহকারী অধ্যাপক আহসান হাবিব মিন্টু, সহকারী অধ্যাপক শাহিনা আক্তার বিলকিছ, প্রভাষক কামরুল ইসলাম, প্রভাষক প্রণব কুমার সাহা, প্রভাষক কাজী নুরুন্নবী, প্রভাষক কার্তিক চন্দ্র পাল, প্রভাষক হাফিজুর রহমান, প্রভাষক গৌতম মন্ডল ও ছাত্রলীগের কলেজ শাখার সাবেক সভাপতি আক্তারুজ্জামান বিপ্লব প্রমুখ।
এসময় কলেজ শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের দাবীর প্রেক্ষিতে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান হোসেন বাপ্পীকে সাময়িক বহিষ্কার ঘোষনা করেছেন এবং আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে কলেজ গভার্নিং বডির মিটিং করে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দিলে শিক্ষার্থীরা ক্লাসে ফেরার সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন।
উল্লেখ্য, গত ২১ জুলাই শুভাষিনী ডিগ্রী কলেজের ২য় বর্ষের ১ ছাত্রীকে কলেজ ক্যাম্পাসেই শ্লীলতাহানীর ঘটনা ঘটায় কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান হোসেন বাপ্পী এবং তেঁতুলিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল। এ ঘটনায় ফুঁসে ওঠে গোটা কলেজের শিক্ষার্থী ও শিক্ষক-কর্মচারীবৃন্দ। এছাড়া ছাত্রলীগ নেতা ইমরান হোসেন বাপ্পী ও ফয়সালের বিরুদ্ধে একাধীক ছাত্রীর সম্ভ্রমহানীর অভিযোগ সহ চাঁদাবাজী, সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। তাদের অপকর্মের জন্য অনেকবারই কলেজে সালিস বসেছে বলে জানায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা। কিন্ত প্রভাবশালী জেলা ছাত্রলীগ নেতার ভাগ্নে হওয়ায় সে পার পেয়ে গেছে বারবার এবং দিনদিন সে বেপরোয়া কর্মকান্ড চালাতে থাকে।
এবিষয়ে তালা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ সাদী জানান, উর্দ্ধতন নেতৃবৃন্দের পরামর্শে অভিযুক্তদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে এবং এবিষয়ে তাদের বিরুদ্ধে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। উল্লেখ্য যে, ছাত্রলীগ নেতা ফয়সাল এবং বাপ্পীর বিরুদ্ধে ছাত্রীর শ্লিলতাহানী সহ নানাবিধ অভিযোগের প্রেক্ষিকে বুধবার উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শেখ সাদী ও সাধারন সম্পাদক মশিউর আলম সুমন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তাদের সাময়ীক বহিষ্কারের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। একই সাথে তাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের তদন্ত করার জন্য ৩সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।
এব্যপারে শুভাষিনী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মো. কামরুল ইসলাম সেলিম জানান, শিক্ষক-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের দাবী যৌক্তিক। বাপ্পী অতীতে এর থেকেও মারাত্মক অপকর্ম করেছে যা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও কলেজ সভাপতির উপস্থিতিতে সালিসে ক্ষমা চেয়ে তারা পার পায়। কিন্তু তার পরেও তারা শুধরায়নি বরং আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। বাপ্পীকে কলেজ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে এবং একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে সাতদিনের ভিতরে তদন্তপুর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে আগামী শনিবার কলেজের উদ্ভুত পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে গভর্নিং কমিটির সভা আহবান করা হয়েছে বলে সূত্রে জানাগেছে।

#