তালায় অপরিপক্ক আম পাঁকাতে ব্যবহার হচ্ছে রাসায়নিক হরমোন


895 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
তালায় অপরিপক্ক আম পাঁকাতে ব্যবহার হচ্ছে রাসায়নিক হরমোন
মে ১০, ২০১৮ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email
  1. তালায় অপরিপক্ক আম পাঁকাতে দেদারছে ব্যবহার হচ্ছে রাসায়নিক হরমোন
  2. ঝুঁকির মধ্যে মানব স্বাস্থ্য
  3. প্রশাসন নিরব

বি. এম. জুলফিকার রায়হান, তালা ::
চলতি আম মৌসুমে আম পরিপক্ক হবার আগ থেকেই তালা উপজেলার সকল আম ব্যবসায়ীরা তা’ বাজারজাত শুরু করেছে। আর প্রাকৃতিকভাবে এখনও পাঁকার উপযোগী না হওয়ায় আমে ব্যবহার করা হচ্ছে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর ইথ্রিন নামক রাসায়নিক হরমোন জাতীয় পদার্থ সহ অধিকতর ক্ষতিকর- কার্বাইড। লক্ষ লক্ষ টাকা মূল্যের এই আম কৃত্রিম ভাবে পাঁকিয়ে প্রতিদিন ঢাকা ও চট্টগ্রামের আড়তে চড়া মূল্যে সরবারহ করছে তালার ব্যাবসায়ীরা। প্রকশ্যে আমে অবৈধভাবে রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহার হলেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন এখনও কোনও পদক্ষেপ গ্রহন করেনি।
সূত্র অনুযায়ী, প্রতি বাংলা সনের ২০-২২ বৈশাখ থেকে উপজেলা প্রশাসন আম পাড়ার অনুমোতি প্রদান করে। কিন্তু জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে আম পাকার সময় প্রতি বছর কম-বেশি পিছিয়ে যাচ্ছে। তারপরও আম ব্যবসায়ীদের অপতৎপরতায় অপরিপক্ক আম পেড়ে বাজারজত হচ্ছে। এই অপরিপক্ক আম পাঁকিয়ে অধিকমূল্যে বাজারজাত করার লক্ষ্যে ব্যবসায়ীরা ক্ষতিকর কেমিকেল ব্যবহার করছে। যদিও তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ফরিদ হোসেন অপরিপক্ক আম পাড়া রোধে তাঁর ব্যক্তিগত এবং উপজেলা প্রশাসনের ফেসবুক পেজে একাধিক স্ট্যাটাস দিয়েছেন। কিন্তু সেই নিষেধাজ্ঞামূল স্ট্যাটাস ফেসবুকের মধ্যেই আটকা পড়েছে। বাস্তবে তা প্রয়োগ না হওয়ায় ব্যবসায়ীর দেদারছে অবৈধভাবে রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে আম পাকিয়ে বাজারজাত করে যাচ্ছে।
সূত্র মতে, মধু মাস শুরু হতে এখনও সপ্তাহমতো বাকি। কিন্তু গোপালভোগ সহ এধরনের দু’ একটি প্রজাতির আম পরিপক্ক হয়ে লাল রং হতে শুরু করেছে। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে অসাধু তালা উপজেলা তালা সদর, তেঁতুলিয়া, ইসলামকাটি, মাগুরা, খলিশখালী, খলিলনগর, জালালপুর ও কুমিরা ইউনিয়স সহ সকল ইউনিয়নের ছোট-বড় প্রায় ৩শ’ ব্যবসায়ী ধুমধামের সহিত সকল প্রজাতীর আম পাড়া শুরু করেছে। এই সকল প্রজাতীর মধ্যে গোপালভোগ বাদে অন্য প্রজাতীর অপরিপক্ক আম পেড়ে তাতে রাসায়নকি হরমোন সহ কার্বাইড ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে প্রশাসনেরও কোন নজরদারী নেই। ফলে মানুষকে মধু ফলের পরিবর্তে রায়নিক বিষ খাওয়ানোর প্রতিযোগীতায় নেমে অসাধু আম ব্যবসায়ীরা। তালা উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, গত ৩ দিন ধরে বিভিন্ন আম বাগান থেকে ব্যবসায়ীরা আম পেড়ে মজুদ করে তাতে নানা রাসায়নিক পদার্থ স্প্রে করছে। অধিক মুনাফার আশায় অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা তাদের কেনা বাগানের আম আগাম পেড়ে বাজারজাত প্রক্রিয়া শুরু করেছে। ইসলামকাটির আম ব্যবসায়ী এজার আলী, খোরশেদ আলম, তেঁতুলিয়ার লুৎফর রহমান, নুরুল সহ কয়েকজন আম ব্যবসায়ীর সাথে কথা বললে তারা বলেন, আমরা অনুমতি নিয়েই আম পাড়া শুরু করেছি। কার অনুমতি এমন প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে বলেন সরকারী নিময় অনুযায়ী ২৫ বৈশাখ থেকে আম পাড়ার অনুমতি আছে। গোপালভোগ ছাড়া অন্য অপরিপক্ক আম পাড়ার কারণ জানতে চাইলে তারা অনুমতি আছে বলে জানান।
তালা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. সামছুল আলম ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান, এবার এখনও আমের ব্যাপারে আমাদের কোন মিটিং হয়নি, অনুমতির প্রশ্নই আসেনা।
তালা উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা মো. ফরিদ হোসেন ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান, এখনও আম ভাঙ্গার সময় হয়নি, অনুমতি দেবে কে ?

তালা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান, এব্যাপারে আমি কিছুই জানিনা, আমি কিছু বলতে পারবো না।

##